শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রপ্তানি আয় বৃদ্ধি ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পদক্ষেপ জরুরি

news-image

করোনাভাইরাসের মহামারী পরিস্থিতিতে বিশ্বব্যাপী ব্যবসা-বাণিজ্যে মন্দা ভাব দেখা দিয়েছিল। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যাত্রী পরিবহন ও পণ্য পরিবহন দুটিই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এখনো বিমান পরিবহন স্বাভাবিক হয়নি। অভ্যন্তরীণ পর্যায়েও লকডাউনের কারণে সড়ক, রেল ও নৌ যোগাযোগ বন্ধ ছিল। সব কিছুতেই অচলাবস্থা দেখা দিয়েছিল। অভ্যন্তরীণ পর্যায়ে সেই অবস্থার অবসান হচ্ছে ধীরে ধীরে। বৈশ্বিক নিরিখে এ অবস্থার পুরোপুরি অবসান কবে হবে, তা বলা মুশকিল। তারপরও করোনাদশার মধ্যেই চলতি অর্থবছরে টানা তিন মাস দেশের রপ্তানি আয় বেড়েছে। জুলাইয়ে ৩৯১ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। আগস্টে কিছুটা কমলেও সেপ্টেম্বরে রপ্তানি আবার ৩০০ কোটি ডলার ছাড়িয়েছে। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরএই তিন মাসে মোট ৯৮৯ কোটি ডলারের বেশি পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এটি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২.৪৫ শতাংশ এবং গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২.৫৮ শতাংশ বেশি। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সম্প্রতি এই তথ্য প্রকাশ করেছে। প্রকাশিত পরিসংখ্যান অনুযায়ী, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে অর্থাৎ জুলাই-সেপ্টেম্বরে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯৬৬ কোটি ডলার। সেপ্টেম্বরে রপ্তানি হয়েছে ৩০১ কোটি ডলারের পণ্য, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৩.৫৩ শতাংশ বেশি।

দেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক। গত তিন মাসে মোট পণ্য রপ্তানির ৮২ শতাংশই পোশাক খাত থেকে এসেছে। রপ্তানির পরিমাণ ৮১২ কোটি ৬৩ লাখ ডলার, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২.৯ শতাংশ এবং গতবারের একই সময়ের চেয়ে ০.৮৫ শতাংশ বেশি। আরো কিছু পণ্যে আয় বেড়েছে। সেসবের মধ্যে পাট ও পাটজাত পণ্যে আয় হয়েছে ৩০ কোটি ৭৫ লাখ ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৯.২৬ শতাংশ; পাটের সুতায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫৩.৬৪ শতাংশ; হোম টেক্সটাইলে আয় হয়েছে ২৫ কোটি ২৩ লাখ ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪০.৭৪ শতাংশ; হিমায়িত ও জীবন্ত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ১৩ কোটি ১৬ লাখ ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫.১১ শতাংশ; ওষুধ রপ্তানিতে আয় হয়েছে চার কোটি ২১ লাখ ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০.৯০ শতাংশ।

আয় কমেছে চিংড়ি মাছ, শাক-সবজি, সিরামিক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য এবং প্লাস্টিক, আসবাব প্রভৃতি পণ্যে। করোনার প্রভাবে স্থগিত হওয়া পণ্য প্রতি মাসেই কিছু না কিছু রপ্তানি হচ্ছে। নতুন পণ্যও রপ্তানি হচ্ছে। এখন রপ্তানি কম হওয়ার মৌসুম, তার পরও রপ্তানি বাড়ছে। আগের স্থগিত হওয়া ৩০০ কোটি ডলারের বেশি পণ্যের ৮০ শতাংশ এরইমধ্যে রপ্তানি হয়েছে। আমাদের আশা, ভবিষ্যতেও রপ্তানি আয় বৃদ্ধির এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সরকার ও সংশ্লিষ্টদের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।