শনিবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ধনের নয়, মনের কোরবানি চান আল্লাহ

news-image

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের প্রতি মানবজাতি তাদের আত্মাকে কীভাবে, কতটুকু উৎসর্গ এবং আত্মসমর্পণের মাধ্যমে তাঁর নৈকট্য লাভে আগ্রহী, তা পরীক্ষার জন্যই তিনি কোরবানির প্রথা চালু করেছেন। যা পৃথিবীতে মানুষ আগমনের পর থেকেই প্রচলিত। এ প্রথার উদ্দেশ্যই হচ্ছে মনের কোরবানি বা ত্যাগ, ধনের বা ঐশ্বর্যের কোরবানি নয়।
পৃথিবীর প্রথম কোরবানি ছিল হজরত আদম (আ.)-এর দু’সন্তান হাবিল ও কাবিলের। মহান আল্লাহতায়ালা তাদের আত্মাকে পরীক্ষা করলেন, সম্পদ বা জন্তুর কোরবানিতে নয় বরং আল্লাহ ভীতির প্রতি আত্মসমর্পণের মাধ্যমে। আল্লাহ মানুষের কাছে ধন-ঐশ্বর্য চান না, রক্তও চান না। তিনি চান মানুষের পবিত্র আত্মার আল্লাহ ভীতি বা তাকওয়ার জীবন। তিনি আরও চান তার প্রতি মানুষের প্রেম-প্রীতি ও ভালোবাসা, যেহেতু হাবিলের ছিল আল্লাহ ভীতি ও প্রেম এবং কাবিলের ছিল শয়তান প্রীতি ও অহংকার। সে জন্য আল্লাহতায়ালা হাবিলের কোরবানি কবুল করেছিলেন, কাবিলের কোরবানি নয়। এ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘যখন তারা উভয়ে কোরবানি করছিল তখন একজনের কোরবানি কবুল হল এবং আন্যজনের কোরবানি কবুল হল না। তাদের একজন কাবিল বলল, ‘আমি তোমাকে হত্যা করবই।’ অপরজন হাবিল বলল, ‘আল্লাহ সংযমীদের মুত্তাকিদের কোরবানি কবুল করেন।’ (সূরা-মায়েদা-২৭ আয়াত)
মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর একনিষ্ঠ বন্ধু ও নবী হজরত ইবরাহিম খালিলুল্লাহকে অনেক কিছু পরীক্ষার পরও তাঁর ‘পবিত্র আত্মার’ আল্লাহ প্রেমের শেষ পরীক্ষা নিলেন, তাঁর প্রিয় পুত্র হজরত ইসমাঈল (আ.)কে আল্লাহর নামে জবাই করে কোরবানির মাধ্যমে। যার স্মরণে বিশ্ব মুসলিমের পবিত্র ‘ঈদুল আজহার’ আনন্দোৎসব প্রতি বছর ১০ জিলহজ পালিত হয়ে থাকে। সেদিন (সামর্থ্যবান) সব মুসলিমই আল্লাহর নামে পশু জবাই করে, কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহ প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।
এ সম্পর্কে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন, ‘তখন ইবরাহিম তাকে ইসমাঈলকে বলল, হে বৎস আমি স্বপ্নে দেখি যে তোমাকে জবেহ করছি; এখন তোমার অভিমত কী বল? ইসমাইল বলল, হে আমার আব্বা আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, তাই করুন। আল্লাহ চাহেত আপনি আমাকে সবরকারী পাবেন। যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইবরাহিম ইসমাইলকে জবেহ করার জন্য শায়িত করল, তখন আমি তাকে ইবরাহমিকে ডেকে বললাম, হে ইবরাহিম, তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে। আমি এভাবেই সৎকর্মীদের প্রতিদান দিয়ে থাকি। নিশ্চয়ই এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি এর পরিবর্তে দিলাম জবেহ করার জন্য এক মহান জন্তু।’
তাই মোমিন মুসলিমরা হজরত ইবরাহিম (আ.)-এর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে, খুশি মনে মহান আল্লাহতায়ালার প্রতি তাদের সব ধরনের সম্পদ ব্যয় ও আত্মত্যাগের নমুনা হিসেবে পশু কোরবানি করে। তাঁর প্রতি আল্লাহর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ফলে যাদের ত্যাগ প্রেম-প্রীতি ও আল্লাহ ভীতি যত বেশি তাদের কোরবানি ও উৎসর্গ আল্লাহতায়ালার কাছে গ্রহণযোগ্য তত বেশি। তারা বিনয়ী হয়ে, আল্লাহর কাছে কাকুতি-মিনতি করে বলেন, হে রাব্বুল আলামীন, ‘নিশ্চয়ই আমার নামাজ, আমার সমগ্র ইবাদত কোরবানি, আমার জীবন, আমার মরণ- সবই বিশ্বের প্রতি পালক আল্লাহর জন্য নিবেদিত।’ (সূরা-আনআম-১৬২)
তাদের মধ্যে থাকবে না কোনো ধরনের আহমিকা, অহংকার ও ধন ঐশ্বর্যের বড়াই। থাকবে না অধিক মূল্যে পশু ক্রয়ের প্রতিযোগিতা। থাকবে না কে কত বড় পশু ক্রয় করল এর অহংকার বরং তাদের মনে থাকবে আল্লাহর প্রতি ভয়-ভীতি এবং আত্মার বিশুদ্ধতা বা তাকওয়া। যেমনটা চান মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর খাঁটি ও প্রিয় বান্দাদের কাছে। প্রকৃত ঈমানদারের কর্তব্য হচ্ছে যে, আল্লাহতায়ালার দাসত্ব স্বীকারের মাধ্যমে সব ধরনের ইবাদত ও কোরবানিতে তাঁর কাছে আত্মসমর্পণ করা। চাই আর্থিক, শারীরিক ইবাদত হোক বা যে কোনো ধরনের ত্যাগের কোরবানির ইবাদতই হোক।
তাই মানবাত্মার মধ্যে পশুত্বের যে আচরণ বা স্বভাব বিদ্যমান তা ধ্বংস করার শিক্ষা পাওয়া যায় খাঁটি মনে আল্লাহর নামে পশু জবাই করে কোরবানির মাধ্যমে। কেননা, মানুষের মধ্যে পশুর আচরণ স্বভাবজাত হওয়ার কারণেই তো মানুষ, মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা, চরম অত্যাচার ও নির্যাতন করার পর হত্যা করে এবং অন্য আরও জঘন্যতম অপরাধে লিপ্ত হয়ে পৃথিবীতে বিপর্যয়ের সৃষ্টি করছে। ফলে পৃথিবীর মানুষ পশুর চেয়েও নিকৃষ্টতম হয়ে যাচ্ছে।
আল কোরআনে কোরবানি সম্পর্কে মহান আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আমি প্রত্যেক জাতির উম্মতের জন্য কোরবানির নিয়ম করে দিয়েছে। যাতে আমি তাদের জীবনোপকরণ রিজিক স্বরূপ যেসব চতুষ্পদ পশু দিয়েছি সেগুলো জবাইকালে আল্লাহর নাম নেয়। তোমাদের আল্লাহ তো একমাত্র আল্লাহই, সুতরাং তোমরা তাঁরই কাছে আত্মসমর্পণ কর এবং বিনয়ীগণকে সুসংবাদ দাও। যাদের হৃদয় আল্লাহর নাম স্মরণ করা হলে ভয়ে কম্পিত হয়, যারা তাদের বিপদ-আপদে ধৈর্য ধারণ করে এবং যথাযথভাবে নামাজ কায়েম করে এবং আমি তাদের যে জীবনোপকরণ রিজিক দিয়েছি তা থেকে আল্লাহর পথে ব্যয় কর। আল্লাহতায়ালা আরও বলেন, ‘যখন তোমাদের আল্লাহর নামে জবাই করা পশু কোরবানি হয়ে যায় তখন তা থেকে তোমরা নিজেরা আহার কর এবং অন্যদের আহার করাও। যে প্রার্থী নয় তাকে এবং যে প্রার্থী হয় তাকেও। এভাবে আমি ওদের কোরবানির পশুদের তোমাদের অধীন করে দিয়েছি যাতে তোমরা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর।’
কোরবানির মূল উদ্দেশ্য সম্পর্কে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আল্লাহর কাছে ওদের কোরবানির পশুর গোশত এবং রক্ত পৌঁছায় না বরং তোমাদের তাকওয়া ধর্মনিষ্ঠা পৌঁছায়।’ (সূরা হজ-৩৪-৩৭ আয়াত)
উল্লিখিত আয়াতগুলোয় আল্লাহতায়ালা কোরবানির গোশত নিজে খেতে এবং অন্যদেরও খাওয়াতে নির্দেশ দিচ্ছেন। তবে যারা চেয়ে নিতে আসে তাদের দিতে বলেছেন এবং যারা চেয়ে নিতে আসে না তাদের অগ্রাধিকারভিত্তিক অধিক যত্নসহকারে দান করতে বলেছেন। কেননা, আত্মীয়, আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের মধ্যে এমন অনেক লোক আছে, যারা লজ্জায় কারও কাছে হাত পাততে চায় না। আল্লাহতায়ালা তাদের প্রতিই দানের বেলায় অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। এমন বক্তিদের প্রতি সৌজন্য দেখালে অধিক পুণ্যের ভাগি হওয়া যায়। এ ছাড়া ধনী ব্যক্তিরা কোরবানির উৎসব ছাড়া অন্য সময় ক্রয় করে গোশত খাওয়ার সামর্থ্য রাখে, কিন্তু অসহায় গরিব ব্যক্তিরা ঈদ উৎসব ছাড়া অন্য সময় ক্রয় করে গোশত খাওয়ার ক্ষমতা অনেকেই রাখে না। ফলে বিত্তবান ও ধনী ব্যক্তিদের উচিত বড় বড় গরু, মহিষ ও উট ক্রয় করে কোরবানি দিয়ে, গোশত জমা করে না রেখে, আল্লাহর নামে বিলিয়ে দেয়াই মুত্তাকিদের পরিচয়।
হে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন, আমাদের তোমার নামে নিষ্ঠার সঙ্গে কোরবানি উৎসর্গ করার সামর্থ্য দাও এবং তা সহজভাবে কবুল কর। আমীন।
 

এ জাতীয় আরও খবর

আরিয়ানের খাবার পাঠানো নিয়ে জেল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ শাহরুখের

নির্মাতা-অভিনেতা কায়েস চৌধুরী মারা গেছেন

সন্তানকে বাঁচাতে কুমিরকে পিষে দিল হাতি!

একজন ‘মাদকসেবী’কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে : ফখরুল

স্ত্রীকে হত্যার পর মেয়েকে নিয়ে থানায় হাজির স্বামী

ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দু সম্প্রদায়ের পুনর্বাসনে সরকারের ব্যাপক উদ্যোগ

স্কুল-কলেজের বিষয়ে শিক্ষাবোর্ডের জরুরি নির্দেশনা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক-অস্ত্র বন্ধ করতে প্রয়োজনে গুলি

আমাদের নেতাকর্মীরা মণ্ডপে হামলায় জড়িত নয়: নুর

দুর্বৃত্তের ছোড়া পাথর চোখে লেগে রক্তাক্ত ট্রেনযাত্রী

নুরের সংগঠনের নেতাকর্মীসহ ৭ জন রিমান্ডে

ইতিহাস গড়ে সুপার টুয়েলভে নামিবিয়া