মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পুলিশ কর্তার বিরুদ্ধে কেবিন ক্রুকে হত্যার অভিযোগ

news-image

অপরাধ ডেস্কব্যবসায়িক অংশীদারকে বিষপান করিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে রাজধানীর গুলশানের এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার নূরে আলম আজাদ ওরফে সৌরভ (৪০) নামের ওই ব্যবসায়ী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রহস্যজনকভাবে মারা যান।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বিষাক্ত রাসায়নিক সেবনে তার মৃত্যু হয়েছে। স্বজনদের অভিযোগ, গুলশান পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহবুবুর রহমান পাওনা টাকা আদায়ের জন্য সৌরভের মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করেছেন।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু হিসেবে চাকরি করতেন সৌরভ। পাশাপাশি গুলশানের পিংক সিটি মার্কেটে প্রসাধনীর দোকান রয়েছে তার। ১৩ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে ওই প্রতিষ্ঠানের অংশীদার হন এসআই মাহাবুব। সম্প্রতি বিনিয়োগের টাকা ফেরত চান তিনি। ওই টাকার জন্যই সৌরভকে অপহরণের পর হত্যা করা হয় বলে দাবি স্বজনদের।

তবে রাতে এসআই মাহবুবুর রহমানের বক্তব্য জানার জন্য তার মোবাইল ফোনে (০১৭১৬৯৮০৯১১) যোগাযোগের চেষ্টা করে নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি সিরাজুল ইসলাম বাংলামেইলকে বলেন, ‘এই ব্যাপারে আমি এখনো কিছু জানি না। আগে বিষয়টি জানি। তারপর দেখা যাবে।’

নিহত সৌরভের ছোট ভাই মো. মাসুম বলেন, তাদের গ্রামের বাড়ি বগুড়ায় এবং ঢাকার বাসা মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডের প্রিপারেটরি স্কুলের পাশে। কেবিন ক্রু’র চাকরির পাশাপাশি এক বছর আগে গুলশানের পিংক সিটিতে প্রসাধনীর দোকান দেন সৌরভ। ওই দোকানের কর্মচারী রাজ্জাক ও আব্দুল্লাহর সূত্রে এসআই মাহাবুবুর রহমানের সঙ্গে সৌরভের পরিচয় হয়। মাহাবুবুর দেড় মাস আগে সৌরভের ব্যবসায় ১৩ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন। এর কিছুদিন পরেই দুই কর্মচারী চাকরি ছেড়ে চলে যায়। ব্যবসায় লোকসান হচ্ছে বলে মাহবুব তার বিনিয়োগের টাকা ফেরত চান।

মাসুম আরো বলেন, মাহবুবুবের চাপে তার ভাই দুই লাখ টাকা দিয়েছেন। এসআই মাহাবুর এরপরও সৌরভের একটি গাড়ি তার ফাঁড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। বৃস্পতিবার দ্বিতীয় দফায় টাকা দেয়ার কথা ছিল। সৌরভ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দুই লাখ টাকা নিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে যান। এরপর আর তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। বিকেলে ওমর ফারুক নামে পরিচত একজনের মোবাইল ফোনে সৌরভের নম্বর থেকে একটি এসএমএস যায়। এসএমএসে নোয়া রুপালি রঙের একটি গাড়ির নম্বর উল্লেখ করে বলা হয়, ‘আমাকে এই গাড়িতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে’। এই ঘটনার কিছু সময় পর রাজ নামে পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি মাসুমকে মোবাইল ফোনে জানায়, তার ভাই হাসপাতালে আছে। এরপর রাত ৯টার দিকে মাসুম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে তার ভাইয়ের লাশ দেখতে পান।

ঢামেক সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে পান্না নামে পরিচয় দিয়ে সৌরভকে হাসপাতালে রেখে সটকে পড়েন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সৌরভকে মৃত ঘোষণা করা হয়। চিকিৎসকরা বলছেন, এনডিন জাতীয় বিষাক্ত রাসায়নিক পাকস্থলিতে প্রবেশ করায় তার মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের ভাই মাসুম অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার ভাইকে এসআই মাহাবুব হত্যা করেছে। তারা একটি চক্র। ব্যবসার পার্টনার হওয়ার টাকাটা ছিল ফাঁদ। দুই কর্মচারী এই গ্রুপেরই লোক। ব্যবসা করলে এক মাস পরে কেউ এইভাবে টাকার জন্য চাপ দেয় না। মোটা টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে না পেয়ে ওরা আমার ভাইকে হত্যা করেছে।

এ জাতীয় আরও খবর