বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানাসহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

news-image

অপরাধ ডেস্করানা প্লাজা ধসের দু’ মামলায় আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার বিজয় কৃষ্ণ কর মামলা দু’টিতে ভবন মালিক  সোহেল রানা, রানার বাবা-মাসহ ৪২ জনকে অভিযুক্ত করে সোমবার বিকাল তিনটার দিকে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। মৃত্যু ঘটানোর অভিযোগে দণ্ডবিধি আইনে একটি এবং ইমারত নির্মাণ আইনে অপর চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। দণ্ডবিধির চার্জশিটে ৪১ জনকে এবং ইমারত নির্মাণ আইনের চার্জশিটে ১৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। ইমারত নির্মাণ আইনের ১৮ জন আসামির মধ্যে ১৭ জনই দণ্ডবিধির চার্জশিটে রয়েছেন।  সে কারণে দুটি চার্জশিট মিলে মোট আসামি ৪২ জন। মামলার চার্জশিটে আসামিদের মধ্যে সোহেল রানা, রানার বাবা-মা, গার্মেন্টস মালিক, ম্যানেজার, রানাকে পালাতে সহায়তাকারী, সাভার  পৌরসভার মেয়র এবং ১২ জন সরকারি কর্মকর্তা আসামি হিসেবে রয়েছেন। মামলার চার্জশিটে মোট ৭৫০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। ২০১৩ সালের ২৪শে এপ্রিল রানা প্লাজা ধসে ১১১৭ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১৯ জন মারা যান। মোট মৃতের সংখ্যা ১১৩৬ জন। ধ্বংসস্তূপ থেকে ২ হাজার ৪৩৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। মৃত উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ৮৪৪ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ডিএনএ পরীক্ষার নমুনা রেখে ২৯১ জনের অশনাক্তকৃত লাশ জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা হয়। জীবিত উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ১৫২৪ জন আহত হন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করে ৭৮ জন। এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত ২১ আসামির মধ্যে রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার বাবা আবদুল খালেক ওরফে খালেক কুলুসহ ৮ জন জামিনে রয়েছেন। জামিনে থাকা  অপর সাত আসামি হলো সাভার পৌরসভার বরখাস্ত  হওয়া মেয়র ও সাভার পৌর বিএনপির সভাপতি রেফাতউল্লাহ, সোহেল রানাকে যশোরে আত্মগোপনে থাকতে সহায়তাকারী অনিল দাস, শাহ আলম ও আবুল হাসান, রানা প্লাজার অনুমোদন ও নির্মাণ-প্রক্রিয়া তদারকির দায়িত্বে থাকা  পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী এমতেমাম  হোসেন, রানা প্লাজার নকশা অনুমোদনের জন্য সুপারিশকারী সাভার পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের কমিশনার ও পৌরসভা যুবদলের সভাপতি মোহাম্মদ আলী খান ও সাভার  পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী রাকিবুল হাসান।  মামলা দু’টির তদন্ত প্রায় ৬ মাস আগে শেষ হলেও শুধু সরকারি মঞ্জুরি আদেশের জন্য আদালতে চার্জশিট দাখিল করতে পারেনি সিআইডি। ভবন ধসে প্রাণহানির ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে একটি মামলা করেন সাভার থানার এসআই ওয়ালী আশরাফ। পরে মামলাটিতে অপরাধজনক প্রাণনাশেরও অভিযোগ আনা হয়। সোহেল রানাসহ ২১ জনকে আসামি করা হয় এ মামলায়। অভিযোগ প্রমাণিত হলে এ মামলায় আসামিদের সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড হতে পারে। ইমারত বিধি  মেনে রানা প্লাজা নির্মাণ করা হয়নি-এমন অভিযোগে সাভার মডেল থানায় আরেকটি মামলা করেন রাজউকের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  মো. হেলাল আহমেদ। এ মামলায় আনা অভিযোগ প্রমাণিত হলে আসামিদের সর্বোচ্চ ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ড হতে পারে। সেইসঙ্গে উভয় মামলায়ই আসামিদের আর্থিক দণ্ড হতে পারে। আসামিদের মধ্যে হত্যা মামলায় ২৫ জন এবং ইমারত নির্মাণ আইনের মামলায় ৭ জন পলাতক রয়েছেন।

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা