সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শবে মেরাজ: আমাদের করণীয়

d12ডেস্ক রির্পোট : মেরাজ আমাদের অলৌকিক সম্পদ। ইসলামের সত্যতা ও শক্তিমত্তার একটি প্রোজ্বল দৃষ্টান্ত। ঘটনার দেড় হাজার বছর পর আজও মুগ্ধ বিস্ময়ে এর অলৌকিকতার স্বাদ নেয় বিশ্বাসী মুসলমান। ভেবে অবাক হই, নিশুতি রাতের এক নিভৃত প্রহরে নবী মুহাম্মদ সা. ঐশী বাহনে চড়ে মক্কা থেকে সুদূর বাইতুল মুকাদ্দাস গিয়েছেন। সেখান থেকে সাত আকাশ পাড়ি দিয়ে সিদরাতুল মুনতাহা সবশেষে মহান আল্লাহর একান্ত সান্নিধ্য লাভে ধন্য হয়েছেন। আসার সময় আমাদের জন্য উপহার হিসেবে নিয়ে এসেছেন নামাজ— যা মুমিনের মেরাজ হিসেবে স্বীকৃত।মেরাজ নিয়ে আমাদের সমাজে কিছু বাড়াবাড়ি আছে— যা ইসলামের দৃষ্টিতে কোনোভাবেই সঙ্গত নয়। কেউ কেউ এর সত্যতা প্রমাণ করতে গিয়ে আধুনিক বিজ্ঞানের শরণাপন্ন হন। তাদের মনে রাখা উচিত, মেরাজ বৈজ্ঞানিক কোনো কারিশমা ছাড়াই মেরাজ। এর সত্যতা প্রমাণের জন্য কেবল কুরআন, কুরআনের নির্ভরযোগ্য ব্যাখ্যা ও সহীহ হাদিসই যথেষ্ট। বিজ্ঞানের সত্যায়নের বিন্দুমাত্র প্রয়োজন নেই। তবে বিজ্ঞান সর্বোচ্চ এক্ষেত্রে সহায়ক হিসেবে কাজ করতে পারে। কিছু মানুষ ঘটনার বিবরণের ক্ষেত্রে ভয়ানক রকমের অতিরঞ্জন করে থাকেন— যা কুরআন কিংবা হাদিস সমর্থিত নয়। আবার কেউ কেউ শবে মেরাজকে কেন্দ্র করে কিছু বিশেষ আমল করে থাকেন। শরিয়তে যার কোনো ভিত্তি নেই। একটু খোলাসা করে বলি, সশরীরে রাসূলের মেরাজ হয়েছিল— এ কথা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত ও স্বীকৃত এবং এটা মুসলমানদের জন্য একটি গৌরবদীপ্ত সম্পদ। তবে একে কেন্দ্র করে রোজা-নামাজের মতো বিশেষ কোনো আমল নেই।

যেমনটি রয়েছে আশুরা আরাফা শবে কদর ও শবে বরাতের ক্ষেত্রে। তাই ফুকাহায়ে কেরাম শবে মেরাজকে উপলক্ষ করে বিশেষ রোজা কিংবা নামাজ পড়াকে বিদআত বিবেচনা করেন। এর প্রমাণ হিসেবে তারা বলেন, মেরাজের ঘটনার পর রাসূল সা. আঠার বছর জীবিত ছিলেন। এ সময়ে তিনি মেরাজ দিবস উপলক্ষে কোনো বিশেষ রোজা বা নামাজ আদায় করেননি। দীর্ঘ শত বছরের সাহাবীযুগে এ দিবসকে বিশেষভাবে পালন করা হয়নি। আর এ ক্ষেত্রে খলিফা হযরত উমর রা.-এর আমল ছিল আরও কঠিন। তিনি রজব মাসের সাতাইশ তারিখ মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে জনসমক্ষে খাবার খেতেন এবং বলতেন, আমি আজ রোজা রাখিনি। তোমরাও আমার সামনে খেয়ে প্রমাণ করো যে, মেরাজ উপলক্ষে তোমরাও রোজা রাখনি। মূলত তিনি এমনটি করে মেরাজ দিবসকে কেন্দ্র করে উত্পন্ন বিদআতকে নির্মূল করতে চেয়েছিলেন। হ্যাঁ, কেউ যদি নিজের অভ্যাসমাফিক এ দিনটিতে রোজা রাখে, মেরাজকে উপলক্ষ করে নয়।

তাহলে এটা তার জন্য বিদআত বিবেচনা করা হবে না। অন্যান্য দিনের রোজা ও নামাজের মতোই স্বাভাবিক সওয়াব হবে। এক্ষেত্রে শরীয়তের একটি মৌলিক বিষয় আমাদের মনে রাখতে হবে, আরোপিত আমলটা মুখ্য বিষয় নয়। আল্লাহর হুকুম ও চাওয়াটাই মুখ্য। যেমন ধরুন, কাবা তওয়াফের ও হজরে আসওয়াদ চুমু করার বিষয়টা। কী আছে এর ভিতর? আল্লাহ করতে বলেছেন তাই করতে হবে। রমজান মাস। আল্লাহ রোজা রাখতে বলেছেন। তাই রাখতে হবে। এ দিন রোজা রাখা ফরজ। ঈদের দিন রোজা রাখতে নিষেধ করেছেন। রাখা যাবে না। রাখাটা হারাম। বলি, আমল করা নয় আল্লাহর হুকুম পালন করার মধ্যেই সফলতা। মেরাজ দিবসের ক্ষেত্রেও সে একই কথা। আমল নয়, বিদআত থেকে বেঁচে থাকাটাই কাঙ্ক্ষিত।

তবে রজব মাসে রমজানের প্রতি গভীর অনুরাগে আল্লাহর রাসূল সা. এইদোয়াটি বেশি বেশি পড়তেন— আল্লাহুম্মা বারিক লানা ফি রজাবা ওয়া শা’বান ওয়া বাল্লিগানা রমাজান— প্রভু, রজব ও শা’বানে আমাদের বরকত দাও এবং রমজান পর্যন্ত আমাদের জীবিত রাখো।