শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জলবায়ু পরিবর্তনে উষ্ণতা বাড়ছে

climate_feedbacks-300x198হোয়াইট হাউজ থেকে দেয়া এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে যুক্তরাষ্ট্রে পরিবেশ বিপর্যয় বাড়ছে। ফলে ক্ষতি হচ্ছে দেশটির অর্থনীতি। এই নিয়ে কথা হয় জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ করা আন্তঃ সরকার প্যানেল আইপিসিসির বাংলাদেশী সদস্য ড. আতিক রহমানের সাথে।
 
বিবিসি : এই প্রতিবেদনে ঠিক কি বলা হয়েছে ?
 
ড. আতিক রহমান : বর্তমানে যে নতুন রিপোর্ট বেরিয়েছে সেখানে বিশেষ ভাবে বলা হচ্ছে, মার্কিন জীবণ পদ্ধতির অর্থনীতি, তার পরিবেশ ও মানুষের স্বাস্থ্য। এই তিনটি এলাকায় প্রচন্ডভাবে আঘাত আসছে এবং এর আলামত দেখা যাচ্ছে।
 
বিবিসি : এই প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা বলা হয়েছে। ব্যাপারটি কী রকম ?
 
ড. আতিক রহমান : জলবায়ু পরিবর্তনে যে উষ্ণতা বাড়ছে। এর একটা তীব্রতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। আরেকটা হচ্ছে তার ঠিক বিপরিত দিকে তীব্র শীত। কিছু দিন আগ পর্যন্ত যেখানে শীত শেষ হয়ে যাবার কথা ছিল, এই শীত বিশেষ করে শিশুদের এবং বৃদ্ধদের উপর স্বাস্থ্যহানির ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে।
 
বিবিসি : জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সেখানকার অর্থনীতি কি রকম ক্ষতির সম্মূখীন হচ্ছে ?
 
ড. আতিক রহমান : অর্থনীতির উদাহরণ দেয়া যেতে পারে শুধু পরিবেশের জন্য না। সামগ্রিক সেখানকার কৃষি উৎপাদন ক্ষমতা। আরেকটি হচ্ছে যে ক্যালিফোর্নিয়ার ওয়াইল্ড ফায়ার তার একটা ক্ষতিগ্রস্থতা আছে। আরেকটা হচ্ছে যে সী লেভেলের রাইজের যে ক্ষতিগ্রস্থতা ফ্লোরিডা ক্লোজড। আলাস্কার বরফ গলতে শুরু করেছে। যার ফলে বহু আলাস্কান বিশেষ করে স্কিমোরা ডিসপ্রেস্ড হচ্ছে। বহু ঘরবাড়ি তারা হারাচ্ছেন।
 
বিবিস : বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যারা জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদেরকে ফান্ডিং করে থাকে। এখন নিজেরাই যেখানে এই ঝুঁকিতে রয়েছে তারা এই পরিস্থিতি কিভাবে ঠেকাবে?
 
ড. আতিক রহমান : এটা ঠিক প্রথম পর্যায়ের জলবায়ু পরিবর্তনরে জন্য বর্তমান যে উন্নত রাষ্ট্রগুলো তাদের উন্নয়ণের জন্য যে পরিমাণ এনার্জি খরচ করত, যে পরিমাণ কর্বন পোড়াত নিউইয়র্কের মত শহর। সমগ্র বাংলাদেশ থেকে যে পরিমাণ গ্রীণ হাউজ গ্যাস উৎগিরণ হয় একমাত্র নিউইয়র্কের ম্যানহার্টেন সিটি এলাকাতেই তার চেয়ে বেশি উৎগিরণ হয়। অতএব এর ক্ষতিগ্রস্থতার কোন শেষ নাই।
 
তাই আমাদের মত ওদেরকেও সাফার করতে হবে। যে ঘটনা ঘটে গেছে সেটা তারা থামাতে পারবে না। তবে যেটা পারবে সেটা দ্রুতগতিতে গ্রীণ হাউজগ্যাস উৎপাদন, উৎগীরণ কমিয়ে দিয়ে এবং আমাদের সমুদ্রে যে গ্রীণ হাউজ গ্যাস জমে গেছে সেটাকে উঠাবার একটা পথ যেটাকে বলে বায়ু ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে তাদের বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিমধ্যে গবেষণা শুরু করেছে। তবে এদের যে ফান্ডিং এর প্রশ্নটা। হ্যাঁ এদের আইনত এবং ক্লাইমেট  চেঞ্জিয়ের যত আন্তর্জাতিক ডিপ্লোমেসি এবং মেলোসিয়েশন চলছে তার জন্য এরা বিশ্ব ক্ষতিগ্রস্থতার জন্য টাকা দিতে বাধ্য।
 ফান্ডিং এর জন্য তাহলে কোন প্রভাব রাখবে না বলে আপনি মনে করেন কি ?
 
ড. আতিক রহমান : আমার ধারণা রাখবে না। তারা রাখতে পারবে না। কারণ সেটা যদি তারা রাখতে চাই তাহলে তাদের সমূহ ক্ষতি হবে। তাহলেতো নব উন্নয়ণের ধারায় যে বিশ্ব আছে যেমন চীন, ভারত, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা তারা কমাবে না। তাদের নিজেদের বাঁচার জন্যই আমাদেরকে পয়সা দিতে হবে।