মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রবি ঠাকুরের কুঠিবাড়ি

kotibari “যখন পড়বেনা মোর পায়ের চিহ্ন এই বাটে, আমি বাইবোনা, আমি বাইবোনা খেয়া তরী এই ঘাটে গো” আমারও পরাণও যাহা চায়-এমন অসংখ্য গান, কবিতা, গল্পের সৃষ্টি হয়েছে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর শিলাইদহে। আর এর স্রষ্টা কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজরিত কুষ্টিয়া শহর থেকে ৯ কিলোমিটার দূরে কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহ গ্রাম। পদ্মার পরবর্তী সবুজে ঘেরা শিলাইদহ কবির কাছে খুবই ভাল লাগত। তার কাব্য ভুবনের অনেকাংশই জুড়ে আছে শিলাইদহ।

নোবেল জয়ী কাব্যগ্রন্থ গীতাঞ্জলির রসসম্ভার পূর্ণতা পেয়েছে শিলাইদহের প্রকৃতি-আবহাওয়া আর মানুষের কর্মচঞ্চলতায়।

বর্তমানে শিলাইদহ কুঠিবাড়ি বলতেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মুখচ্ছবি ভেসে উঠবে যে কারও চোখের সামনে। শিলাইদহ কুঠিবাড়ি নামকরণের পেছনের ইতিহাস রয়েছে অনেক।

শিলাইদহ গ্রামটি ছিল বিরাহিমপুর পরগণার অন্তর্ভুক্ত। সম্রাট জাহাঙ্গীরের সময় নদীয়া রাজ্যের (বর্তমান কুষ্টিয়া) অন্তর্ভুক্ত হয় এটি। মুর্শিদকুলি খান বিরাহিমপুর পরগনা নাটোর রাজরঘু নন্দকে ইজারা দেন। ১৮০০ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পিতামহ প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর বিরাহিমপুর মৌজা নিলামে কেনেন। তিনি শৈলী নামের একজন নীলকরের কাছে থেকে এ কুঠি কিনে সেখানে বাসস্থান গড়ে তোলেন। কিন্তু কুঠিবাড়ি শিলাদেবীর মন্দিরসহ শিলাইদহ গ্রামটি প্রমত্তা সর্বগ্রাসী পদ্মা গ্রাস করে নেয়। সে সময় শাহ মুখদুম মৌলুক খোরশেদের নামানুসারে খোরশেদপুর মৌজাতে ১৮৬২ সালে আবার নতুন কুঠিবাড়ি, ডাকঘর ইত্যাদি প্রতিষ্ঠা করা হয়। কিন্তু স্থানটির নাম খোরশেদপুর না হয়ে শিলাইদহই থেকে যায়।

১৮৭৬ সালে কিশোর বয়সে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রথম শিলাইদহে আসেন। তবে রবীন্দ্রনাথ জমিদার হয়ে শিলাইদহে আসেন ১৮৯২ সালে। বিশ্বকবির জীবনে শিলাইদহের অবস্থান ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের সূচনা।

কুঠিবাড়ির বকুলতলায় শান বাঁধানো ঘাটে, একটু দূরে গড়ায় নদী, পদ্মার বুকে পাল তোলা নৌকার চলমান ছবি। আমবাগানে ঘেরা কুঠিবাড়ির প্রকৃতি উদার হাতে তোলেন রবীন্দ্রমানস।

কবির যখন ভরা যৌবন ও কাব্যসৃষ্টির প্রকৃষ্ট সময় তখনই তিনি বিচরণ করেছেন এই শিলাইদহকে ঘিরে। জমিদারি কাজে, ব্যবসার কাজে কখনও অল্প সময়, কখনও দীর্ঘসময় কাটিয়েছেন শিলাইদহে। সপরিবারে এসে থেকেছেন কখনও আবার একাকিও এসেছেন। ঘুরে ফিরেছেন পদ্মার বাটে, পালকিতে।

১৯১৩ সালে নোবেল পুরস্কার লাভ করার পর কয়েক বছর জমিদারি পরিচালনা করেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এরপর সবুজপত্রের সম্পাদক সাহিত্যিক প্রমথ চৌধুরীর ওপর দায়িত্ব দিয়ে জোড়াসাঁকোতে ফিরে যান বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

পরে ঠাকুর পরিবারের জমিদারি ভাগাভাগি হলে শিলাইদহ জমিদারি সুরেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাগে পড়ে। ১৯২২ সালে শিলাইদহ ত্যাগ করেন বিশ্বকবি। তবে এরপরও আত্মার টানে দুবার শিলাইদহে এসেছেন তিনি।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৮৬১ সালের ৭মে (২৫শে বৈশাখ) কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুর পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৪১ সালের ৭আগস্ট (২২শে শ্রাবণ) সালে মহাপ্রয়াণ ঘটে বিশ্বকবির।

তিনি নেই- তার সৃষ্টি এখনও তার মতো সজীব প্রাণবন্ত। আর দাঁড়িয়ে আছে তার স্মৃতিবিজড়িত শিলাইদহ কুঠিবাড়ি। ৩৩ বিঘা জমির ওপর তিনতালা এ কুঠিবাড়ি পদ্মার তীর ঘেঁষে এখনও দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে।

চারিদিকে আম বাগান, একটি পুকুর, অতিদূরে পদ্মার জলরাশির বাতাসের গতিতে মিলেমিশে উথাল-পাতাল সব মিলিয়ে সে এক অন্যরকম প্রকৃতির হাতছানি।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিলাইদহ কুঠিবাড়ীটি বর্তমানে বাংলাদেশ প্রত্মতত্ত্ব বিভাগ দেখাশুনা করছে। এটা দেশের একটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তর থেকে দর্শনার্থীরা ছুটে আসে এই কুঠিবাড়িটিকে দেখার জন্য এবং রবী ঠাকুরের ব্যবহৃত জিনিসপত্রগুলো দেখে আবার কেউ বা ছবি তুলে আনন্দ পেয়ে থাকে।

শিলাইদহ কুঠিবাড়ির তিনতলাতে মোট কক্ষের সংখ্যা ১৭। তিনতলার নিচের কোঠায় ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখার ঘর। এ কক্ষে বসে রবীন্দ্রনাথ পদ্মার জলরাশি দেখতে পেতেন। কবির ব্যবহার্য প্রায় সবকিছুই এখনও রয়েছে এখানে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে পড়ার ও লেখার টেবিল, পালঙ্ক, গদি চেয়ার, সোফাসেট, আলনা, আলমারি, হাত পালকি, ৬ ও ৮ বেহারার পালকি, চপল বোট, ঘাস কাটার যন্ত্র ইত্যাদি। এছাড়াও রবীন্দ্রনাথের নিজ হাতে আঁকা ছবি, চিঠি, পান্ডুলিপি, কবির বিভিন্ন সময় তোলা ছবি এবং অনেকগুলো বই রয়েছে।

২৫ বৈশাখ জন্মজয়ন্তী। দিনটি এলেই আনন্দে মাতিয়ে রাখে আশপাশ এলাকাসহ মেলায় আসা হাজারো মানুষ। রবীন্দ্রজয়ন্তী অনুষ্ঠানে কুঠিবাড়ির রবীন্দ্রমঞ্চে আয়োজন করা হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভার। তিনদিনব্যাপী মেলায় রবীন্দ্রনাথে জীবনি নিয়ে আলোচকরা আলোচনাসভায় মিলিত হয়। পরিবেশন করা হয় রবীন্দ্রসঙ্গীতের। দেশ-বিদেশ থেকে রবীন্দ্র ভক্তরা যোগ দেয় এ অনুষ্ঠানে।