রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃষ্টি, পাখীদের প্রাপ্তির তৃপ্তি — আল আমীন শাহীন

news-image

অসহনীয় গরম। দিনে রাতে তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। এই সময়ে বৃস্টির জন্য অপেক্ষা করছে পাখী। কাকলী এসে জুটলো তাদের সঙ্গে। তিনজনের অপেক্ষা তৃষ্ণা মেটানোর। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেল রোডে একটি ফাস্টফুডের দোকানে দাঁড়িয়ে  ঠান্ডা কোকাকোলার পান করছি আমি কাইয়ূম ভাই, মাতিন আহমেদ আর শাহজাদা। হঠাৎ দৃ¯িট পড়লো তাদের দিকে। কাইয়ূম ভাই তার কোকের কোটাটি তুলে দিল বৃস্টির হাতে। বৃস্টি এটা ঝাকিয়ে দেখছে পানি আছে কিনা। চারভাগের ১ ভাগ পানীয় পেয়ে বৃস্টি দারুন খুশী।কৌটা হাতে নিয়ে এরমধ্যে যা আছে তা নিজে পান করলো না। পাখীকে দিল এক ঢোক, পরে কাকলীকে এক ঢোক সবশেষে নিজে বাকীটা সে পান করলো । অল্প পানীয় পেয়ে তিন শিশুর এই ভাগাভাগির বিষয়টি আমাদের দৃস্টি আকর্ষণ করলো। খালি পা তিনজনের । হাফ প্যান্ট আর জামা পড়া দুজন, একজনের শরীরে জামা নেই । বৃস্টির হাতে পলিথিনে ভরা কোমল পানীয়র খালি অনেক গুলো বোতল। তিনজনই তারা সমবয়সী , বয়স ১০ থেকে ১২ বছর । এই ছোট বয়সে একে অপরের প্রতি এতো মায়া , এতো মেল বন্ধন, আশ্চর্য হলাম। আমাদের মধ্যে মাতিন আহমেদ অন্যকে খাওয়াতে খুব পছন্দ করে। তিনটি শিশুর মধ্যে সম্প্রীতি দেখে সে ১ লিটারের পানীয় ভরা একটি বোতল কিনে দিলো তাদের। প্রথমে আশ্চর্য হলো শিশুরা, বৃস্টি বলে উঠলো “ আমরা খালি বোতল নেই”। পীড়াপীড়া করতেই চোখে মুখে আনন্দ আর লাজুক হাসিতে বোতলটি হাতে তুলে নিল বৃস্টি। এই ফাকে কিছু কথা হলো তার সাথে। সে জানাল তারা পথে পথে ঘুরে বেড়ায় প্লাস্টিকের বোতল, টিনের কৌটা, কাগজ কুড়ায়। সারাদিন ঘুরে যা পায় তা নিয়ে বিক্রি করে ভাঙগারী দোকানে। ২০ টাকা কেজিতে প্লাস্টিকের কৌটা বিক্রি হয়। কাগজ বিক্রি করে ৩-৪ টাকা কেজিতে। সে সহ আরও ১৫/১৬ জন আছে তাদের এই দলে। লেখাপড়া করেনি একজনও। বাড়ি শহরেই। এর চেয়ে বেমী কিছু বল্ল না। ঠান্ডা পানিয় প্রাপ্তির তৃপ্তিতে মিস্টি হাসি মুখে ওরা চলে গেল টেংকের পাড়ের দিকে।  দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভাবছি, ওদের বয়সী আমার সন্তান সহ সামর্থবানদের সন্তানদের কথা। কত আদর যতœ আর নানা বায়না প্রাপ্তির মাধ্যমে তারা বড় হচ্ছে , অন্যদিকে একই বয়সী বৃস্টি পাখী আর কাকলীরা ঘুরে বেড়াচ্ছে প্রখর রোদে পুড়ে পথে পথে।  যে বয়সে তাদের কাঁধে থাকার কথা বই খাতা, সে বয়সে তাদের কাঁধে পরিত্যক্ত জিনিষের বোঝা।
তিন শিশুকে দেখে অসহনীয় গরমের কথা ভুলে গেলাম। ভাবছি অনেক ভালই তো আছি আমরা অনেকে। যেখানে দাঁড়িয়ে ছিলাম এর পাশেই একটি চায়ের দোকান, তাকিয়ে দেখলাম ১৪/১৫ বছরের এক শিশু তার চেয়ে বেশী ওজনের একটি পানি ভর্তি বালতি নিয়ে আসছে দোকানে। নাম জিজ্ঞেস করতেই , উত্তর দিল সাকিব। বাড়ি কিশোর গঞ্জ । চায়ের দোকানে চাকরী করে, বেতন পায় মাসে দেড় হাজার টাকা। সকাল ৭ টা থেকে রাত ১০ পর্যন্ত দোকানে কাজ করে।
একটি খাবার হোটেলে ঢুকে দেখলাম সেখানে যারা কাজ করছে তাদের অনেকের বয়স ১৫ বছরের নীচে। প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন গ্রাম থেকে এসে হোটেলে কাজ নিয়েছে। বেতন প্রতিমাসে ১২ থেকে ৩ হাজার টাকা। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তার কাজ করে।
হোটেলে খেয়ে বেড়িয়ে পড়লাম অন্তরকে নিয়ে। আজ শহরে ঘুরবো। সারা শহর ঘুরে ঘুরে দেখেছি, এই শহরে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা অনেক। কয়েক হাজার হবে। কত হতে পারে ? অন্তরকে জিজ্ঞেস করতেই সে বল্ল আর বুঝি কোন কাজ নেই,এ সবের খবর কে রাখে।আমাদের দেশে হালনাগাদ বিভিন্ন পরিসংখ্যান পাওয়া খুব মুশকিল। এই শিশু শ্রমিকদের খোজ খবর নেয়ার কোন দপ্তরও পেলাম না। ভাবলাম শিশু একাডেমীতে যাব । অন্তর বল্ল , লাভ নেই, শিশু একাডেমীতে তো শুধু সংগীত নৃত্য আবৃত্তি কতজন করে এই সবের সংখ্যা পাওয়া যাবে। সেখানে সব ধনীদের সন্তানের ভীড়। ছিন্ন মূল শিশুদের নিয়ে কাজ করে তেমন কোন এনজিও কার্যক্রমও মনে করতে পারছিনা। ঘুরছি শহরে। পথে পথে দেখছি ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ, বিভিন্ন যানবাহনের মেরামতের কারখানা, ছোটবড় ফ্যাক্টরী,বিভিন্ন দোকান প্রতিষ্ঠান, বিলাস বহুল স্বর্নের দোকান শুরু করে হকারী দোকানে সব খানেই অনেক শিশু শ্রমিক । ওরা সবাই দরিদ্র পরিবার থেকে এসেছে। কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেল, অভাবী বাবা মা ই পাঠিয়েছে কর্মক্ষেত্রে , কাজ না করলে খাবার জুটবে না তাই কাজে এসেছে। বিভিন্ন স্থানে কাজ করছে অনেক শিশু পেটে ভাতে, কাজ শিখে শিখে দক্ষ হলে তাদের মুজুরী ধরা হয়। মুজুরী বলতে , কারো দিনে ১০ টাকা থেকে শুরু হয়, ক্রমে তা বাড়ে , বাড়ার সময়টা দুতিন বছরের। শ্রম দিতে হয় অনেককে অবিরাম, ভোর থেকে রাত পর্যন্ত। দূর দূরান্ত, বিভিন্ন গ্রাম থেকে অনেক শিশু পরিবার পরিজন ফেলে এসে শহরে কাজ নিয়েছে । মাসের পর মাস বাবা মা ভাই বোনের সাথে দেখা করার সুযোগও পায়না তারা অনেকে। এসব শিশুরা কাজ করে আর কাজের ফাঁকে আনমনে তাকিয়ে থাকে গাড়িতে চড়া , বই খাতা কাঁধে, পিতা মাতার সঙ্গে হাস্যোজ্জ্বল শিশুদের দিকে। বিভিন্ন মিছিল এর বাদ্য বাজনা শুনে কর্মক্ষেত্রেই অনেক শিশু নেচে উঠে, কেউ কেউ শামিলও হয় মিছিলে , মিছিল শেষে ফিরে  মালিকের  বকাঝকা চড় থাপ্পর জুটে কারো ভাগ্যে। মে দিবস উপলক্ষে শ্রম জীবি নানা সংগঠন বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা মিছিল বের করে, লাল পতাকা নিয়ে ট্রেড ইউনিয়ন, রেজিস্ট্রেশন করা সংগঠন গুলো মিছিল করে , সে মিছিলে যাবার সুযোগও পায়না এই শিশুরা। মে দিবসে বিভিন্ন আলোচনা সভাও হয়। ৮ ঘন্টা শ্রম, শ্রমিকের অধিকার নিয়ে কত কথাই না হয়, অথচ ৮ ঘন্টার দ্বিগুণ ১৬ ঘন্টা কোন কোন শিশু তার চেয়ে বেশী সময় অমানসিক শ্রম দিচ্ছে যৎসামান্য বেতনে এই কথা উঠে আসে না বক্তাদের মুখে। মে দিবসের অনুষ্ঠানে বয়সী শ্রমিকদের দাবী আদায়ের ঝাঁঝালো বক্তব্যের পর অতিথিদের সাথে বিভিন্ন স্থানে আয়োজন হয় বিরিয়ানী সহ নানা খাবার সম্ভারের । ছিণœ মুল শিশুরা এই খাবারের গন্ধ পায়, কিন্তু ভাগ্যে জুটে না। অবশেষে বৃস্টি, পাখী আর কাকলীদের মতো কোন কোন  শিশুর ভাগ্যে জুটে খাবার শেষে ফেলে দেয়া বিরিয়ানীর প্যাকেট, আর পানির খালি বোতল, কুড়ানো  খাবার প্যাকেটে  লেগে থাকা অল্প অল্প বিরিয়ানী জমিয়ে সেটা খায় কেউ কেউ, তারপর প্যাকেট আর খালি পানির বোতল জমিয়ে নিয়ে তারা বিক্রি করে ভাঙ্গারীর দোকানে। ২ -১ টাকা থেকে ২৫ টাকা কেজিতে। এই অল্প প্রাপ্তিতেও তৃপ্তি পায় বৃস্টি , পাখী আর ক্কালীর  মতো শিশুরা। এই শিশুদের জন্য যদি এর চেয়ে বেশী করা যায় , তাহলে তাদের তৃপ্তির সীমা কোথায় দাঁড়াবে সেই কথাই ভাবছি মনে। ২০১৪ সালের মে দিবসে এই শিশুদের জন্য নতুন ভাবনা হবে সকলের এই প্রত্যাশাও করছি।

লেখক: সহ সভাপতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাব, সম্পাদক নতুন মাত্রা।