বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেসবুক বনাম গুগল

টাইটান অ্যারোস্পেস, সৌরশক্তিনির্ভর ড্রোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। কিছুদিন আগে পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানটি কেনার জন্য আলোচনা করে যাচ্ছিলেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। অথচ ফেসবুক নয়, শেষ পর্যন্ত টাইটানকে কিনছেন গুগলের প্রধান নির্বাহী ল্যারি পেজ। আজ ১৫ এপ্রিল ড্রোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটিকে কিনে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে গুগল। এক খবরে এ তথ্য জানিয়েছে এএফপি।

প্রত্যন্ত অঞ্চলে সৌরশক্তি চালিত বিশাল আকারের ড্রোন দিয়ে ওয়াই-ফাই ইন্টারনেট সেবা দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েই টাইটার অ্যারোস্পেসকে কিনছে গুগল। তবে প্রতিষ্ঠানটিকে কিনতে গুগল কী পরিমাণ অর্থ খরচ করে সে তথ্য জানায়নি।

গুগলের একজন মুখপাত্র এএফপিকে জানিয়েছেন, ‘যদিও এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছি তারপরও পৃথিবীতে লাখ লাখ মানুষের কাছে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দিতে বায়ুমণ্ডলের কৃত্রিম উপগ্রহগুলো কাজে লাগানো সম্ভব। প্রাকৃতিক দুর্যোগে বা পরিবেশের ক্ষতি থেকে রক্ষা ও মানুষের নানা সমস্যায় কাজে লাগানো যাবে এই প্রযুক্তিকে। আর এ কারণেই গুগল পরিবারে টাইটান অ্যারোস্পেসকে স্বাগত জানানো হচ্ছে।’

টাইটানের তৈরি ড্রোন ৬৫ হাজার ফুট উঁচুতে টানা পাঁচ বছর উড়তে পারে। জিওস্টেশনারি স্যাটেলাইটের মতোই কাজ করতে পারে এই ড্রোন। সৌরশক্তির সাহায্যে দীর্ঘদিন অনেক বেশি উচ্চতায় শূন্যে ভেসে থাকার ক্ষমতা থাকায় বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক সুবিধা যোগ করতে পারে টাইটানের ড্রোন। এ ড্রোনে ওয়্যারলেস কমিউনিকেশনের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি থাকবে যাতে ফিচার ফোনেও ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন এর আওতায় থাকা ব্যবহারকারীরা।

ড্রোন কেনা ছাড়াও গুগল কর্তৃপক্ষ ‘প্রজেক্ট লুন’ নামে একটি প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে। এই প্রকল্পে বড় বেলুনের সাহায্যে ইন্টারনেট সুবিধাবঞ্চিত এলাকায় ওয়াই-ফাই সুবিধা পৌঁছানোর পরিকল্পনা রয়েছে গুগলের।মার্ক জাকারবার্গ ও ল্যারি পেজ

এর আগে টাইটানকে কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছিল ফেসবুক। টেক ক্রাঞ্চের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্চ মাসে টাইটান অ্যারোস্পেস কিনতে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছিলেন ফেসবুকের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। ইন্টারনেট অর্গানাইজেশন প্রকল্পের জন্য তিনি টাইটানকে কিনতে চেয়েছিলেন। ফেসবুকসহ বেশ কয়েকটি প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মিলে ইন্টারনেট সংস্থা তৈরি করেছে যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে ইন্টারনেট সুবিধাবঞ্চিত এলাকায় ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছে দেওয়া। টাইটানের তৈরি ড্রোনগুলো এই ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছে দিতে সক্ষম। তবে শেষ নাগাদ টাইটান কেনেনি জাকারবার্গ। তিনি অ্যাসেন্টা নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান কেনার ঘোষণা দেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে প্রতিষ্ঠান কেনা নিয়ে গুগল ও ফেসবুকের মধ্যে প্রতিযোগিতা দেখা গেছে। এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন হোয়াটসঅ্যাপ কেনার সময় গুগল ও ফেসবুকের মধ্যে প্রতিযোগিতা লক্ষ্য করা যায়। ফেসবুকের আগে মোবাইল মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন হোয়াটসঅ্যাপকে এক হাজার কোটি মার্কিন ডলারে কিনতে চেয়েছিল গুগল। কিন্তু ফেসবুক ১৯০০ কোটি ডলার দিয়ে কিনতে চাওয়ায় হোয়াটসঅ্যাপকে আরও বেশি দাম দিতে রাজি ছিল গুগল। 

মোবাইল মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে দ্রুত জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকা হোয়াটসঅ্যাপকে কিনতে ফেসবুক শেষ পর্যন্ত এক হাজার ৯০০ কোটি ডলার ব্যয় করে। দুটি আলাদা সূত্রের বরাতে ফরচুন সাময়িকীর এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, হোয়াটসঅ্যাপকে কিনতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিল গুগল। ফেসবুকের দেওয়া দামের কথা জানার পর মরিয়া গুগলের প্রধান নির্বাহী ল্যারি পেজ হোয়াটসঅ্যাপের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করেন। পশ্চিমা সংবাদ মাধ্যমের খবর, পেজ ১৯০০ কোটি ডলারের চেয়ে বেশি দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি শেষ পর্যন্ত সফল হননি।

শুধু কেনাকাটার দিক থেকেই নয়, সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট হিসেবে ফেসবুকের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় গুগল প্লাসকেও জনপ্রিয় করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে গুগল।