শুক্রবার, ১লা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শহরে এল হাতি-ঘোড়া

বিকেলবেলা নিজের ঘরে বসে ছবি আঁকছিল পিয়াল। ছোটকাকা বারান্দায় ডাকলেন ওকে।

পিয়াল আসতেই ছোটকাকা বললেন, ‘দেখ্ দেখ্, শহরে অনেক হাতি-ঘোড়া আসছে।’

চারতলার ওপর থেকে নিচে রাস্তার দিকে তাকাল পিয়াল। ঠিক তো, সারে সারে হাতি-ঘোড়া যাচ্ছে। অবাক হয়ে পিয়াল জিজ্ঞেস করল, ‘ছোটকাকা, হাতি-ঘোড়া ভ্যানগাড়িতে চড়ে নাকি?’

হা হা করে হেসে ছোটকাকা বললেন, ‘এ কারণেই তোকে দেখতে ডেকেছি।’

‘সে তো বুঝলাম। কিন্তু…’

পিয়ালকে কথার মাঝে থামিয়ে ছোটকাকা বললেন, ‘দশ মিনিটের পথও হেঁটে যেতে চাস না তোরা। তাহলে হাতি-ঘোড়ার দোষ দিচ্ছিস কেন? ওদের বুঝি হাঁটতে কষ্ট হয় না?’

পিয়াল ভাবে—সত্যি তো, হাতি-ঘোড়ারও তো হাঁটতে কষ্ট হতে পারে!

ভ্যানগাড়িতে চড়ে হাতি-ঘোড়াগুলো চলে গেলে নিজের ঘরে ফিরে আঁকতে বসল পিয়াল। ওর এখন হাতি-ঘোড়ার ছবি আঁকতে ইচ্ছে করছে।

পরের দিনও হাতি-ঘোড়াকে ভ্যানগাড়িতে চড়ে যেতে দেখা গেল।

পিয়াল জানতে চাইল—‘ছোটকাকা, এত এত হাতি-ঘোড়া কোথায় যাচ্ছে? আর শহরে হঠাৎ এত হাতি-ঘোড়াই বা আসছে কেন?’

‘তাই তো, এই ব্যাপারটা তো ভাবা হয়নি! একবার খোঁজ নেওয়া দরকার ওগুলো গেল কোথায়।’ একটু থেমে ছোটকাকা বললেন, ‘পিয়াল, কাল তোর স্কুল ছুটি না?’

‘হ্যাঁ। কাল পয়লা বৈশাখের ছুটি।’

‘তাহলে কাল সকালে পান্তা-ইলিশ খেয়ে বেরিয়ে পড়ব আমরা। ওগুলো কোথায় গেল দেখতে হবে, কী বলিস?’

‘ঠিক বলেছ ছোটকাকা।’

সকালবেলা ছোটকাকাই পিয়ালের ঘুম ভাঙালেন।

‘কী রে পিয়াল, স্কুল ছুটি পেয়ে খুব নাক ডেকে ঘুমাচ্ছিস! হাতি-ঘোড়াগুলোর খোঁজে বেরোতে হবে না?’

উঠে পড়ল পিয়াল। খাবার টেবিলে পান্তা-ইলিশ বেড়ে রেখেছিলেন মা। খেয়ে চাচা-ভাতিজা বেরিয়ে পড়ল।

রাস্তায় বেরিয়ে পিয়াল দেখল—নতুন কাপড় পরে ওদের মতো আরও অনেকে কোথাও যাচ্ছে।

হেঁটে হেঁটে পিয়ালকে নিয়ে বড় মাঠে চলে এলেন ছোটকাকা।

পিয়ালের বুঝতে বাকি রইল না ওরা বৈশাখী মেলায় এসেছে। কত কত লোকের হইচই! প্যাঁ-পুঁ বাঁশি বাজছে। ক্যাচ-ক্যাচ নাগরদোলার শব্দ। মুড়ি-মুড়কি-বাতাসার মিষ্টি গন্ধ ভেসে বেড়াচ্ছে।

এত কিছুর মাঝে আসল কাজের কথা ভুলেই গেছে পিয়াল।

ছোটকাকা মনে করিয়ে দিলেন, ‘কী রে, আমরা যে হাতি-ঘোড়ার খোঁজ করতে এলাম, তা ভুলে গেছিস?’

হঠাৎ মনে পড়ার মতো পিয়াল বলল, ‘চলো চলো ছোটকাকা, হাতি-ঘোড়ার খোঁজ নেই।’

মেলা মাঠের দক্ষিণ দিকে এল তারা দুজন। এসেই চমকে উঠল পিয়াল—‘হ্যাঁ ছোটকাকা, এই তো পেয়েছি হাতি-ঘোড়াগুলো।’

ছোটকাকা মুচকি হেসে বললেন, ‘তোকে কেমন চমকে দিলাম?’

অবাক কণ্ঠে পিয়াল বলল, ‘এই হাতি-ঘোড়াগুলোই ভ্যানগাড়িতে করে আনা হয়েছে, তাই না?’

‘হ্যাঁ, শহর থেকে দূরে কুমোরদের গ্রাম থেকে হাতি-ঘোড়াগুলো শহরের বৈশাখী মেলায় আনা হয়েছে। গ্রাম থেকে হাতি-ঘোড়াগুলো শহরে এসেছে। শুধু হাতি-ঘোড়া নয়, মাটির তৈরি বাসন-কোসন, ফুলদানিসহ রং-বেরঙের খেলনাও রয়েছে।’

‘ছোটকাকা, চলো আমরা একটা হাতি কিনে ফেলি!’

‘এত বড় হাতি কোথায় রাখবি?’

‘আমার ঘরে।’ পিয়াল বলল।

‘হঠাৎ যদি মাটির হাতিটা সত্যিকারের হাতির মতো শূঁড় দিয়ে তোকে পিঠে তুলে নিয়ে জঙ্গলে চলে যায়; তখন তোকে আমরা কোথায় পাব?’

ছোটকাকার কথা শেষ হতে না হতেই পিয়াল বলল, ‘কোনো ভয় নেই ছোটকাকা, টারজান যেভাবে হাতির পিঠে চড়ে জঙ্গলের পশুদের মতো ডেকে সবাইকে একত্র করত, আমিও সেভাবে ডাকব। শুনে তোমরা ঠিকই আমাকে খুঁজে পাবে।’

শুনে হাসলেন ছোটকাকা। তারপর বললেন, ‘বাহ্, আমাদের পিয়ালের বেশ বুদ্ধি তো! ঠিক আছে, একটা হাতি কিনে নেব আমরা।’

এক সপ্তাহের মাথায় বৈশাখী মেলা শেষ হয়ে গেল। যে হাতি-ঘোড়াগুলো বিক্রি হয়নি, সেগুলো আগের মতো ভ্যানগাড়িতে চড়িয়ে ফেরত নিয়ে যাচ্ছিল কুমোররা। বারান্দায় দাঁড়িয়ে তা দেখতে দেখতে ছোটকাকাকে পিয়াল বলল, ‘হাতি-ঘোড়াগুলো গ্রামে ফিরে যাচ্ছে।’

‘গ্রামে গিয়ে ভালো খেয়েদেয়ে মোটা হয়ে আগামী বৈশাখে আবার ফিরে আসবে ওরা।’ বলে হা হা করে হাসলেন ছোটকাকা।

পিয়ালও হেসে ফেলল।

এ জাতীয় আরও খবর

ঈদের আগে ফ্রিজ পরিষ্কারের দারুণ কিছু টিপস

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ২২

পদ্মা সেতু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় দৌলতদিয়ার ১৪০০ হকার

বাসার নিচতলায় হাঁটুপানি, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু

‘সোনার চর’ দিয়ে কাজে ফিরলেন মৌসুমী

কিশোরীকে ‘আই লাভ ইউ’ বলায় যুবকের কারাদণ্ড

কোক স্টুডিও বাংলায় গান গাইবেন ওস্তাদ রশিদ খান

সেই জিতুকে স্কুল থেকে আজীবন বহিষ্কার

জাতির কাছে নূপুর শর্মার ক্ষমা চাওয়া উচিত : ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

যাত্রীর চাপে এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায় বাড়ল বুথ

‘আমরা শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারলে আ.লীগ সরকার থাকবে না’

ভাইয়ের জানাজায় অংশ নিতে প্যারোলে মুক্তি পেলেন হাজী সেলিম