রবিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ব্যর্থতা নিয়ে হাবিবুল বাশার বক্তব্য

basherবাংলাদেশ দলের বেশ কিছু ভালো খেলোয়াড় অফ-ফর্মে থাকার কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পরাজয়ের বৃত্তে আটকে পড়েছে দলটি। এর পেছনে মনস্তাত্ত্বিক কারণও ছিল এবং টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতাও বাংলাদেশের কম। বাংলাদেশে অনুষ্ঠানরত 'টি-টোয়েন্টি' বিশ্বকাপে স্বাগতিক দলটির হতাশাজনক পারফরমেন্স প্রসঙ্গে এসব কথা বলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সিলেক্টর, সাবেক অধিনায়ক এবং বাংলাদেশের সফলতম টেস্ট ব্যাটসম্যান কাজী হাবিবুল বাশার সুমন।

তিনি একান্ত সাক্ষাৎকারে বলেন, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের হতাশাকে কাটিয়ে আমরা ২০১৫'র বিশ্বকাপে ভালো করে জাতির প্রত্যাশা পূরণ করতে চাই। আমাদের আর পেছনে ফিরে তাকানোর সময় নেই।



সুমনের পুরো সাক্ষাতকারটি উপস্থাপন করা হলো:

প্রশ্ন : বাংলাদেশের মানুষের কাছে ক্রিকেট শুধু খেলাই নয়, এটাকে তারা তাদের বিনোদনের প্রধান অনুষঙ্গ মনে করে। সেই ক্রিকেটের মস্ত বড় আসর 'টি-টোয়েন্টি' বিশ্বকাপ হচ্ছে বাংলাদেশের মাটিতে। অথচ বাংলাদেশ দলের পারফর্মেন্স নিয়ে হতাশ দেশবাসী। বাংলাদেশ দলের এ হতাশাজনক পারফমেন্সের কারণ নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলছেন। জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক হিসেবে আপনি এজন্য কী কী কারণ চিহ্নিত করবেন?

হাবিবুল বাশার: দেখুন আমি প্রথমেই বলবো যে, 'টি-টোয়েন্টি'র জন্য আমাদের খুব বাজে একটা সময় যাচ্ছে। আমাদের টিমে যেসব খেলোয়াড় গত চার-পাঁচ বছর ধরে খুব ভালো পারফরম করছিলেন তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন প্লেয়ার অর্থাৎ পাঁচ থেকে ছ জন প্লেয়ার অফ-ফর্মে রয়েছেন। তাদের এই অফ-ফর্মে থাকাটা 'টি-টোয়েন্টি' বিশ্বকাপের জন্য বড় ক্ষতি বয়ে এনেছে। আর 'টি-টোয়েন্টি' ক্রিকেটে কোনো খোলোয়াড় অফ-ফর্মে গেলে তার নতুন করে ফর্মে ফিরে আসাটা বেশ মুশকিল। ফলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের খারাপ পারফরমেন্সের মূল কারণ এটি।



তাছাড়া কোনো দল খেলায় হেরে গেলে সমালোচনার মুখে পড়ে এবং বিতর্ক হয়- এটা স্বাভাবিক ব্যাপার। আমি আবারও বলতে চাই, যেসব প্লেয়ার আমাদের খুব ভালো পারফরম করে আসছে তাদের অফ-ফর্মের কারণেই তারা সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারেনি; আর সেটাই  মূলত আমাদের টিমের একের পর এক পরাজয়ের কারণ।



প্রশ্ন : আপনি বাংলাদেশ দলের সাম্প্রতিক পারফরমেন্সের কারণ বললেন। কিন্তু এই দলটিই দু’বছর আগে ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে এশিয়া কাপ ক্রিকেটের ফাইনালে পৌঁছে গিয়েছিল। সে ঘটনার দু’বছর পর দলটির কি সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার কথা ছিল না?

হাবিবুল বাশার: আপনি ঠিকই বলেছেন। অবশ্যই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। আমরাও এ ব্যাপারে কিছুটা বিস্মিত ও হতাশ হয়েছি। দু/এক বছর আগের সেই টিমই কিন্তু খেলছে। এমন না যে টিমে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে এবং যারা ভালো পারফরম করছিলেন তারা দলে নেই। দু'বছর আগে যারা এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলেছিলেন তারাই কিন্তু এখন টিমে।



আরেকটা মেজর কারণ হিসেবে আমি বলব, আসলে আমাদের দল খুব বেশি 'টি-টোয়েন্টি' ক্রিকেট খেলেনি। শুধু তাই না আমাদের দেশেও 'টি-টোয়েন্টি' ক্রিকেট খেলা খুব কম হয়। আরেকটি বিষয় টি-টোয়েন্টিখেলার একটি বড় বৈশিষ্ট্য হচ্ছে-'পাওয়ার'। আমরা আসলে 'পাওয়ার' ক্রিকেট এখনও পর্যন্ত অত ভালো খেলতে পারি না। আমার মনে হয় টি-টোয়েন্টি অপেক্ষা 'ওডিআই'তে আমাদের দল এর চেয়ে অনেক ভালো পারফরম করতে পারত। তাছাড়া 'টি টোয়েন্টি'তে আমাদের কোন্‌ প্লেয়ার খুব ভালো খেলতে পারবেন সে বিষয়টিও আমরা এখন পর্যন্ত ঠিক করতে  পারিনি। তবে কেন আমরা 'টি-টোয়েন্টি'তে ভালো করতে পারলাম না বা সাম্প্রতিক সময়ে খেলোয়াড়রা কেন ভালো পারফরম করতে পারছেন না সে বিষয়গুলো সুস্পষ্টভাবে খুঁজে বের করতে হবে। আমাদের অনেক ভাবতে হবে এবং এ ব্যাপারে অনেক কিছু করার আছে। তবে 'টি-টোয়েন্টি'র এই ব্যর্থতা ভুলে আমাদের সামনে ২০১৫তে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের যে মূল আসর রয়েছে সেদিকে মনোযাগ দিতে হবে।



প্রশ্ন : একটি গুঞ্জন কিন্তু এখন বাজারে রয়েছে যে, বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের সামর্থ্য এতটুকুই। তাদের কাছে দেশটির ক্রিকেটপ্রেমী দর্শকরা সামর্থ্যের অতিরিক্ত আশা করছে। এই গুঞ্জনের কতখানি সত্যতা রয়েছে?



হাবিবুল বাশার: দেখুন প্রত্যাশা তৈরি করেছেন আমাদের এই খেলোয়াড়রাই। কারণ তারাই খুব ভালো পারফরম করেছে গত এক-দু'বছরে। আমরা এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলেছি, আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তাদের মাটিতে হারিয়েছি এবং শ্রীলঙ্কায় গিয়ে তাদেরকে হারিয়েছি। এসব খেলায় দলের ভালো পারফরমেন্সের কারণেই প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে। দলের প্রতি দেশের মানুষের যে প্রত্যাশা সেটি অতিরিক্ত প্রত্যাশা নয়, আমার মনে হয় এটা খুব স্বাভাবিক প্রত্যাশা। তাছাড়া ক্রিকেট তো  বাংলাদেশ অনেকদিন ধরেই খেলছে। এতটা বছর পর দেশের মানুষ তাদের ক্রিকেট টিমকে নিয়ে ভালো কিছু প্রত্যাশা করবে সেটাই স্বাভাবিক। বরং আমি বলব প্রত্যাশা না থাকাটাই অস্বাভাবিক। আর এখন তো দলের লক্ষ্য শুধু ভালো খেলা না; দলের লক্ষ্য হবে জেতা। কিন্তু যেভাবেই হোক না কেন আমরা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভালো করতে পারিনি এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। আর এই বাস্তবতার আলোকে আমাদের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে।



আরেকটা বড় কথা হচ্ছে- কোনো একটি দেশের সঙ্গে দু’টি বা তিনটি ওডিআই বা কোনো একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ খেললে তার প্রতি মানুষের রিফ্লেকশন যেমন থাকে তার চেয়ে অনেক রিফ্লেকশন থাকে বিশ্বকাপের প্রতি। চাই সেটি টি-টোয়েন্টি হোক বা সাধারণ 'বিশ্বকাপ' হোক। ফলে বিশ্বকাপের আসরে দল এবং প্লেয়ারদের  পারফরমেন্সের মূল্যায়ন যেহেতেু বেশি হয় সে কারণে সেখানকার ব্যর্থতাটাও বেশ বড় হয়ে দেখা দেয়। আমি আবারও বলব, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আমরা ভালো করতে পারেনি এটা সত্যিই আমাদের জন্য হতাশার। তবে আমার মনে হয় সামর্থ্য আমাদের আছে। আমাদের প্লেয়ারদের সামর্থ্যের শতকরা ৫০ ভাগও তারা খেলতে পারেনি টি-টোয়েন্টি ওয়ার্ল্ড কাপে।



প্রশ্ন : সুপার টেন-এ বাংলাদেশ যে চারটি প্রতিপক্ষ পেয়েছে, এর প্রতিটিই শক্তি-সামর্থ্যে-যোগ্যতায় বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে আছে। তারপরও তো এই বাংলাদেশ দল এর আগে তাদের প্রত্যেককে হারিয়েছে। কিন্তু এবার তাদের বিরুদ্ধে জিততে না পারুক প্রতিদ্বন্দ্বিতাও গড়ে তুলতে পারল না কেন? তাহলে কি ধারাবাহিকভাবে হারতে হারতে টাইগারদের মনোবল ভেঙে গেছে বলে আপনি মনে করেন? অর্থাত মনস্তাত্ত্বিক সমস্যাটা কি এখানে কোনো ভূমিকা রাখছে?



হাবিবুল বাশার: জ্বি আপনি ঠিকই বলেছেন। ধারাবাহিকভাবে হারতে থাকলে খেলোয়াড়দের ওপর এবং গোটা টিমের ওপর মনস্তাত্ত্বিক একটা চাপ সৃষ্টি হয়। তাছাড়া 'টি টোয়েন্টি'তে টিম একবার হারের বৃত্তে ঢুকে গেলে তা থেকে বের হওয়া আসলে খুব মুশকিল। রিপিট করে একই কথা বলতে হয় যে, This is such a game যেখানে অফ-ফর্মের টিমের জন্য বেশ খারাপ অবস্থা সৃষ্টি করে। আপনি জানেন যে  'টি-টিয়েন্টি' শর্ট ফর্মের খেলা। সীমিত ওভারের মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। যা করার খুব দ্রুত এবং কম সময়ের মধ্যে করতে হয়। প্রতিপক্ষ আপনাকে সময় দেবে না। তো সেখানে অফ-ফর্মের প্লেয়ার থাকলে সে খেলায় কিভাবে জেতা সম্ভব!



So this is our problem and reality. তাছাড়া যে কথা আপনি বলছিলেন সেকথাও ঠিক যে সুপার টেনে যেসব দলের সঙ্গে আমরা খেলেছি তারা বেশ শক্তিশালী-তবে তাদেরকে আমরা হারিয়েছি একথাও ঠিক । তাছাড়া আমাদের খেলাগুলো হয়েছে উপমহাদেশের দলের সঙ্গে। এ ধরনের ম্যাচে তো কেউ কাউকে সুযোগ দেয় না, দলকে তার সুযোগ নিজেকেই সৃষ্টি করে নিতে হয়- সেই সুযোগটি  আমরা তৈরি করতে পারিনি। আর মনোস্তাত্ত্বিক চাপ তো রয়েছে-যা থেকে আমাদের খেলোয়াড়রা বের হয়ে আসতে পারেনি।



প্রশ্ন : অনেক ক্রিকেট বোদ্ধা এমন কথা বলছেন যে, দেশের ঘরোয়া ক্রিকেট হয় দায়সারাভাবে এবং ঘরোয়া ক্রিকেটকে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করা হচ্ছে না। নতুন প্রতিভা খুঁজে আনা, সেই প্রতিভার পরিচর্যায় বিসিবির উদ্যোগের কমতি আছে। তো বিসিবির বিরুদ্ধে এ ধরনের যে অভিযোগের কথা বলা হচ্ছে সেটা আসলে কতোটা সঠিক?



হাবিবুল বাশার: দেখুন টিম যখন ভালো পারফরম করতে না পারে বা বারবার হারতে থাকে তখন এ ধরনের কথা ওঠা স্বাভাবিক। আর ঘরোয়া ক্রিকেট দায়সারাভাবে হয় আমি এ কথার সঙ্গে পুরোপুরি একমত নই। কারণ এই ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলেই কিন্তু সাকিব, তামিম, মুশফিক ও নাসিরের মতো খেলোয়াড় বেরিয়ে এসেছে। যদি সব সময় দায়সারাভাবে ঘরোয়া ক্রিকেট হতো তাহলে এমনটি হতো না। তবে অবভিয়াসলি আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট আরো প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও প্রতিযোগিতামূলক হওয়া উচিত।



আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটের মূল যে বিষয়টি আমরা সাফার করি সেটা হচ্ছে আমাদের 'উইকেট'। যেকোনো কারণেই হোক আমরা স্পোর্টিং উইকেট তৈরি করতে পারি না। যার ফলে যারা ডোমেস্টিক ক্রিকেট খেলে তাদের সামর্থ্য কতটুকু সেটা তারা নিজেরাও বুঝতে পারে না, আমরাও বুঝতে পারিনা। যদিও আমরা এখন সব ধরণের ক্রিকেট খেলি। দেশে এখন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলা হয় দু’ধাপে। একটা হয় প্রথম শ্রেণির টিমগুলো নিয়ে। আরেকটি হয় প্রথম শ্রেণির সেরা চারটি টিম নিয়ে। এছাড়া প্রিমিয়ার লীগ হয়। দ্বিতীয় শ্রেণির ক্রিকেট হয়। বলা চলে খেলার পরিমাণ আগের চেয়ে আরও বেড়েছে। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে ঘরোয়া ক্রিকেটের ক্ষেত্রে যে বিষয়টি খুব বেশি ফিল করি সেটি হচ্ছে-  আমাদের উইকেটটি আরো বেশি স্পোটিং হওয়া উচিত। যেখানে আসলে খেলোয়াড়ের সামর্থ্যের সত্যিকার পরীক্ষা  করা যায়।



দেখুন ফরহাদ রেজা নামের একজন খেলোয়াড়কে নিয়ে কথা উঠেছে। কিন্তু সে আমাদের গত বছরের ঘরোয়া ক্রিকেটের সেরা পারফরমার ছিল। প্রথম শ্রেণি এবং প্রিমিয়ার লীগের বেস্ট অল-রাউন্ডার ছিল ফরহাদ। তো আসলে আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটের উইকেটটি খেলোয়াড়দের সেরা পারফরমেন্সের সুযোগ দিচ্ছে না। তবে সার্বিকভাবে বলবো, আমার মনে হয় না যে  আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট খারাপ হচ্ছে। আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটের উইকেট নিয়ে আমরা ইংল্যান্ডে কাজ করেছি। সেখান থেকে এ বিষয়টি বেরিয়ে এসেছে যে,  আমাদের আরো স্পোটিং উইকেট দরকার।  



প্রশ্ন : এবারের বিশ্বকাপের দিবা-রাত্রির ম্যাচগুলোতে সিলেট ও চট্টগ্রাম স্টেডিয়ামে একাধিকবার খেলা চলার সময় ফ্লাড লাইটের আলো নিভে যাওয়ার বিষয়টিতে কিন্তু সমালোচিত হয়েছে বাংলাদেশ। সিলেটে ফ্লাড লাইট নিভে যাওয়ার কারণে একটি ম্যাচের নিস্পত্তি হয়েছে বৃষ্টি আইনে। সব মিলিয়ে টি-২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আয়োজক দেশ হিসেবে কেমন করল বাংলাদেশ?



হাবিবুল বাশার: টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ হিসেবে বাংলাদেশ কিন্তু খারাপ করেনি। তবে সিলেট ও চট্রগ্রামে একাধিকবার খেলা চলার সময় ফ্লাড লাইটের আলো নিভে যাওয়ার বিষয়টি কোনোভাবে কাম্য ছিল না। বিষয়টিকে দুর্ঘটনাই বলব। আর এ ধরনের ব্যাপার শুধু যে বাংলাদেশে হয়েছে তেমনটি নয়। এর আগেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার ঘটনা অনেক ম্যাচে দেখেছি। তবে ওয়ার্ল্ড কাপের মতো আসরে এ ধরনের ঘটনা ঘটা আসলে দুভার্গ্যজনক এবং কোনোভাবেই কাম্য নয়।



তবে এ বিষয়টি ছাড়া যেসব দল বাংলাদেশে খেলতে এসেছে তাদের কাছে যদি জিজ্ঞাসা করেন তাহলে আমার মনে হয় যে তারা খুব ভালো বলবে। কারণ তাদেরকে বেস্ট আতিথেয়তা এবং সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয়েছে। ফলে দুটি ম্যাচে বিদ্যুৎ যাওয়া ছাড়া বোধ হয় অন্য কোনো ব্যাপার নিয়ে কেউ অসন্তোষ প্রকাশ করতে পারবে না। সব দেশের প্লেয়াররা এখানে খেলতে এসে খুব খুশি।



প্রশ্ন : জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক হিসেবে আপনার কাছে সবশেষে জানতে চাইব, বাংলাদেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণে  ভালো ক্রিকেট উপহার দেয়ার জন্য বাংলাদেশ দলের জন্য আপনার পরামর্শ কি।



হাবিবুল বাশার: এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দলের জন্য আমার প্রথম পরামর্শ হচ্ছে, এই টি-টোয়েন্টি ওয়ার্ল্ড কাপের কথা একদম ভুলে গিয়ে নতুন করে শুরু করতে হবে। কারণ, আমাদের সামনে ২০১৫ বিশ্বকাপ রয়েছে। সেখানে যদি আমরা ভালো করতে পারি তাহলে জনগণ আজকের এই কথাটা অনেকটাই ভুলে যাবে।



তবে আজকের বাংলাদেশ দলের যে পারফরমেন্স তা একদম ভুলে যাওয়ার পক্ষপাতিও আমি নই। কারণ আমরা অবশ্যই ভালো করতে পারিনি। তার পেছনে বহুবিধ কারণ রয়েছে। আমাদের আলোচনার মধ্যে হয়ত কিছু কারণ আমি উল্লেখ করেছি। তবে কেন ভালো করতে পারিনি তার সুনির্দিষ্ট কারণগুলো কি ছিল তা আমাদের যথাযথভাবে খুঁজে বের করতে হবে এবং তার সমাধানে উদ্যোগ নিতে হবে। অনেক পরিশ্রম করতে হবে দলকে এবং সংশ্লিষ্ট সবাইকে। পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই। দল হিসেবে সামনে এগিয়ে যেতে হবে, এখন আর আমাদের পেছনে ফেরার কোনো অবকাশ নেই।



আমি চাইব, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পর একটু বিশ্রাম নিয়ে-কার কোথায় কিভাবে কাজ করা উচিত, কোথায় আমাদের ক্রুটি আছে-সে সব খুঁজে বের করে তা সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। যাতে এবারের ব্যর্থতা কাটিয়ে উঠে পরবর্তী বিশ্বকাপে দেশের জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারি।

dnewsbd.com

এ জাতীয় আরও খবর