বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চালকদের অদক্ষতার কারনেই বাড়ছে প্রাণঘাতী সড়ক দুর্ঘটনা ওভার ট্রেকিং এর প্রবনতা মৃত্যুর ঝুকি বাড়ায়

imgresসড়ক দুর্ঘটনার মুল কারন অনিয়ন্ত্রিত ওভার ট্রেকিং, দুর্বল আইন, ভঙ্গুর সড়ক অবকাঠামো এবং চালকদের অদক্ষতার কারণে প্রতি বছর বাড়ছে এই সড়ক দুর্ঘটনার হার।  গত এক বছরে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্নস্থানে প্রায় কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যুর খবর গণমাধ্যমে পাওয়া গেছে। গত সাপ্তাহে ব্রাহ্মণবাড়িয়র সরাইলে ৬ দিনের ব্যবধানে দুই পরিবার নিশ্চিহ্ন হয়। নীলফামারী-সৈয়দপুর প্রধান সড়কের ফুলতলায় গত মঙ্গলবার বিকালে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আব্দুল মজিদ (৫০) নামে এক রিকশাচালক নিহত হয়েছেন,একই দিন দুপুরে উপজেলার মীরবাগ মালবাহী ট্রলি দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপারের নিহতরা হলেনÑ ট্রলিচালক সুজন কান্তি রায় (২৫) ও হেলপার মিলন মিয়া (২৭) গত শনিবার রাতে সড়ক দুর্ঘটনায় আবুল কালাম (৩৪) নামে এক মোটরসাইকেল চালক নিহত হয়েছেন, গত শুক্রবার ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে রাজ্জাক মিয়া (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে, গত বুধবার রাতে সড়ক দুর্ঘটনায় মোঃ নাঈম নামে এক কিশোর নিহত হয়েছে। তাছাড়া প্রতিনিয়ত দেশের কোথাও না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে, অকালে ঝরে যাচ্ছে তরতাজা প্রাণ, নয়তো সারা জীবনের জন্য পঙ্গুত্ববরণ করছে। সড়ক দুর্ঘটনায় করুণ মৃত্যু যেন এ দেশের মানুষের চরম নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা কি আদৌ বন্ধ হওয়ার নয়! সড়ক দুর্ঘটনা সংঘটিত হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু তারও একটা সীমা আছে। আমাদের দেশে বর্তমানে যে হারে সড়ক দুর্ঘটনা এবং দুর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে তাকে কিছুতেই স্বাভাবিক বলা যায় না। দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সংশ্লিষ্টদের প্রচেষ্টা ও উদ্যোগ যথোপযুক্ত নয়। এ ব্যাপারে আরো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ ও জোরালো তৎপরতার প্রয়োজন রয়েছে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশ পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনাপ্রবণ দেশ।ওই সংস্থার হিসাবে দেশে প্রতিদিন গড়ে ৫০ জন মারা যায় সড়ক দুর্ঘটনায়। এ হিসাবে বছরে মারা যায় ১৮ হাজারের বেশি নর-নারী। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার খবর ও স্থানীয় সূত্র থেকে বেসরকারি সংস্থাগুলো দুর্ঘটনার তথ্য সংগ্রহ করে। আর সরকারি তথ্য সংগ্রহ করা হয় থানার মামলা ও ডায়েরি থেকে। বুয়েটের শিক্ষকদের নেতৃত্বে ২০০৬ সালে সড়ক নিরাপত্তায় চালকদের ভূমিকা বিষয়ে একটি সমীক্ষা করা হয়েছিল। তাতে বলা হয়, ৬০ শতাংশ চালকই জীবনে বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে বলে বেরিয়ে আসে। বিশেষজ্ঞরা বলছে, চালকের ভুলের কারণেই বেশির ভাগ দুর্ঘটনা ঘটছে। অথচ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ১৯৯০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মোট এক লাখ ৮৯ হাজার পেশাদার চালকের লাইসেন্স দিয়েছে কোনো ধরনের যোগ্যতার পরীক্ষা ছাড়া(সূত্র মতে)। আর এদের তদারকি করার দায়িত্বও বিআরটিএর। অথচ জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিল, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এবং বিআরটিএর সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ সেলগুলো দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর কিছু করতে পারছে না। চালকদের সদিচ্ছার অভাবেই একের পর এক ঘটে চলেছে প্রাণঘাতী দুর্ঘটনা। তারপরও যানবাহন দুর্ঘটনা রোধে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা কেন গৃহীত হচ্ছে না, সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ যদি এসব না দেখে তাহলে এসব অকাল মৃত্যুর দায় তারা কিছুতেই এড়াতে পারে না। সড়ক দুর্ঘটনা একেবারে নির্মূল করা সম্ভব নয় একথা সত্য, তবে তা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখাটাও সম্ভব। যাদের দায়িত্বহীন কর্মকা-ে সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির শঙ্কা বাড়ে তাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা জরুরি। পরিবহন ব্যবস্থাকে অদক্ষ চালকমুক্ত করতে হবে সর্বাগ্রে। এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সচেতনতা সৃষ্টি ও ট্রাফিক আইন মেনে চলার মানসিকতা তৈরিতে সরকারকে যথাযথ উদ্যোগ নিতে হবে। এবং প্রচলিত আইনের পাশাপাশি কঠোর আইন প্রণয়ন এবং এর প্রয়োগ নিশ্চিত করা করা গেলে তা দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে।