বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি

searchশেষ পর্যন্ত বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হলোই। এ দফায় গ্রাহক পর্যায়ে গড়ে শতকরা ৬ দশমিক ৯৬ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। ইউনিট প্রতি গড়ে দাম বেড়েছে প্রায় ৪০ পয়সা। আবাসিক, বাণিজ্যিক, শিল্প সব খাতেই দাম বাড়ানো হয়েছে। তবে সেচকাজে ব্যবহার্য ও ৫০ ইউনিট পর্যন্ত আবাসিক ব্যবহার্য বিদ্যুতের দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। বর্ধিত দাম ১ মার্চ থেকে কার্যকর করা হবে। বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি মানেই মানুষের জীবনযাত্রার সার্বিক ব্যয় আরেক দফা বৃদ্ধি। এবারো এর ব্যতিক্রম হওয়ার কথা নয়।

এবার আবাসিক গ্রাহক পর্যায়ে মোট ছয় ধাপে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুতের দাম ৬.১ শতাংশ, ৭৬ থেকে ২০০ ইউনিটের দাম ৫.৯২ শতাংশ, ২০১ থেকে ৩০০ ইউনিটের দাম ৭.৪৫ শতাংশ, ৩০১ থেকে ৪০০ ইউনিটের দাম ৯.৯৪ শতাংশ, ৪০১ থেকে ৬০০ ইউনিটের দাম ৬.৬৪ শতাংশ এবং ৬০১ ইউনিটের বেশি বিদ্যুতের দাম ৫.৮৬ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া বাণিজ্যিক ও অফিসের বিদ্যুৎ ব্যবহারে ফ্লাট রেট ৯ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা ৫৮ পয়সা, অফ-পিক আওয়ারে ৭ টাকা ২২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৮ টাকা ১৬ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। তবে পিক আওয়ারের বিদ্যুতের দাম ১১ দশমিক ৮৫ টাকায় অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ক্ষুদ্র শিল্পের জন্য ফ্লাট রেটের বিদ্যুতের দাম ৬ টাকা ৯৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ৪২ পয়সা, অফ পিক আওয়ারে ৫ দশমিক ৯৬ থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৬৪ পয়সা এবং আওয়ারে ৮ দশমিক ৪৭ থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা করা হয়েছে। রাস্তার বাতি ও পানির পাম্পের জন্য ফ্লাট রেট ৬ টাকা ৪৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৯৩ পয়সা করা হয়েছে। এছাড়া উচ্চ চাপের সাধারণ ব্যবহারের (৩৩ কেভি) জন্য ফ্লাট রেট ৬ টাকা ৪৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ২০ পয়সা, অতি উচ্চ চাপের সাধারণ ব্যবহারকারীর জন্য (১৩৩ কেভি) ৬ টাকা ১৬ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৯৬ পয়সা করা হয়েছে।

এ দফায়, ৫০ ইউনিট পর্যন্ত আবাসিক ও সেচে ব্যবহার্য বিদ্যুতের দাম না বাড়ানোর বিষয়টি ইতিবাচক। আবাসিক খাতের প্রত্যক্ষ বৃদ্ধি খুব বেশি দৃশ্যমান না হলেও পরোক্ষ বৃদ্ধি যেমন বাড়িভাড়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে ব্যয় সমানুপাতিকভাবে বাড়বে না, বাড়ানো হবে যথেচ্ছ হারে। বাণিজ্য ও শিল্প খাতে দাম বাড়ার ফলে শিল্পোৎপাদন ব্যয় বাড়বে, বাড়বে পণ্যমূল্যও। পণ্য ও সেবা মূল্যবৃদ্ধিও বিদ্যুতের দামবৃদ্ধির সমানুপাতিক হবে না, হয়নি কখনো।

এ সময়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর একমাত্র যুক্তি এ খাতে ভর্তুকি কমানো, বিইআরসি-র ভাষ্য মতে, বিদ্যুৎ বিতরণকারী কোম্পানিগুলোর পরিচালন লোকসান সমন্বয়। রাজনৈতিক সংঘাত-নাশকতার পর যখন সাধারণ মানুষ একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে যাচ্ছিলেন, শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী মহল যখন ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন, এ সময়টাই কি লোকসান কমাতে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির উপযুক্ত সময়? আর গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ানোই কি লোকসান কমানোর একমাত্র পথ? এসব ক্ষেত্রে সরকার যখন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে তখন নাগরিকদের কার্যত তা না মেনে গতি থাকে না। গ্রাহকদের বাড়তি দাম দিতেই হবে। তবে গ্রাহকদের যে চাওয়াÑ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাওয়া- সেটা নিশ্চিত করায় সরকারকে সদিচ্ছা, সক্রিয়তা ও স্বচ্ছতার প্রমাণ দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। গ্রাহকরা সাশ্রয়ী হবেন ঠিক, আগে সরকারকে সাশ্রয়ী হতে হবে। সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে, তাদের নীতি-পদক্ষেপে ভুল-ভ্রান্তির মাশুল যেন গ্রাহকদের দিতে না হয়। এছাড়া বিদ্যুতের সিস্টেম লসের নামে অপচয়, চুরি, দুর্নীতি ইত্যাদি রোধ না করা হলে শুধু গ্রাহকদের ঘাড়ে চাপ বাড়িয়ে লোকসান কমানোর নীতি কোনোভাবেই যৌক্তিক বলে গ্রহণযোগ্য হবে না।