বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সফল আন্দোলন শেষে ‘প্রেসিডেন্সি অর্ডারে’ খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে: টুকু

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, ‘মান্না সাহেব (অনুষ্ঠানে উপস্থিত মাহমুদুর রহমান মান্না) একটা প্রশ্ন করেছেন কেয়ারটেকার সরকার…। আমি বলব, ইতিহাস বলে আন্দোলনের ফলে যে সরকারগুলো এসেছে- ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) জেলে আছে, তাকে তো রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করেই জেলে নেওয়া হয়েছে। সুতরাং আমরা যদি আন্দোলনে জয়লাভ করতে পারি, আমরা আপনাদের সঙ্গে বসব।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমাদের মহাসচিব বলেছেন, কেয়ারটেকার সরকারের রূপরেখা দেওয়া হবে, সেটাও আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব। সেই সরকারের ক্ষমতা থাকতে হবে। এ পর্যন্ত যত মামলা হয়েছে এবং আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রাখা হয়েছে- তা রাষ্ট্রপতির হুকুমে প্রেসিডেন্সি অর্ডার দিয়ে তা বাতিল করে উনাকে (বিএনপি চেয়ারপারসন) মুক্ত করে আনব। পার্লামেন্ট ইলেকশনের পর প্রথম সেশনে এটার বৈধতা দেওয়া হবে- এ ধরনের ইতিহাস বহু আছে। এটা হবে, ভয়ের কোনো কারণ নেই।’

আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। ‘নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া বাংলাদেশের কোনো নির্বাচন হবে না’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি শামা ওবায়েদ ইসলামের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় আরো বক্তব্য দেন নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপি নেত্রী ফারজানা পুতুল প্রমুখ।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, ‘আমরা যদি নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করতে পারি, টার্মস অব রেফারেন্সে কাউকে মুক্তি দেওয়া এটা কোনো বিষয় নয়। এটা নির্ভর করবে আমরা কী সিদ্ধান্ত নিচ্ছি। তিনি বলেন, যুগপৎ আন্দোলনে কোনো বাধা নেই। যে যার অবস্থান থেকে আন্দোলন করব। এটা হবে শেখ হাসিনা সরকারের কফিনে শেষ পেরেক।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘আমার জীবনে দেখিনি যে, আন্দোলনের শুরুতেই পাঁচজন নিহত হয়েছে। একটা বিপ্লব হয়ে গেছে। এই আওয়ামী লীগ গত ১৩ বছরে আজকে একটা দানব সৃষ্টি হয়েছে। যা ইচ্ছে তাই করতে পারে। প্রশাসন, পুলিশসহ যত সহযোগী বাহিনী আছে, একেবারে সব তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়েছে। তারা অত্যাচারের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে।’

নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না উল্লেখ বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, ‘আমাদের নেতাকর্মীরা যেমন জীবন দিতে ভয় করে না, তেমনি আমরা যারা বৃদ্ধ ৭০-এর কোটায় আছি, মুক্তিযুদ্ধ করেছি তারাও ভয় করি না। এবার আমরা জয়লাভ করব। আমাদের নেতা তারেক রহমান একটা উপলব্দি করেছেন, জোট করে সবাইকে একত্রে নেওয়া যায় না; তিনি বলেছেন, যুগপৎ আন্দোলন করতে।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘যে প্রতিন্ধকতা ছিল তা উঠে গেছে, এখন মান্না সাহেবদের সঙ্গে নিয়ে যুগপৎ আন্দোলন করে রাজপথ অতিক্রম করব।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘গতকালও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলতেছেন ‘‘জামায়াত-বিএনপি’’। বিএনপি একটি আদর্শিক রাজনৈতিক দল। যারা ধর্মীয় রাজনীতি করে তাদের সঙ্গে নির্বাচন কেন্দ্রীক জোট হয়েছিল। এ অর্থ এই না, আওয়ামী লীগ সারাজীবন ‘‘বিএনপি-জামায়াত’’ বলবে। আমরা ওপেন করে দিয়েছি, যুগপৎ আন্দোলন করব-যার শক্তি যা আছে তাই নিয়ে রাজপথে থাকবে। এটা করায় একটা জাতীয় ঐক্যের সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের বাইরে যারা আছে, তারা সবাই একসঙ্গে আন্দোলন করবে।’