বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনিয়ম ঢাকতে ফের অনিয়মের চেষ্টা

news-image

লুৎফর রহমান কাকন
ভোলার বোরহানউদ্দিনে ‘নতুন বিদ্যুৎ বাংলাদেশ লিমিটেড (এনবিবিএল)’ বিদ্যুৎকেন্দ্রের (কম্বাইন্ড সাইকেল) জন্য ২০১৯ সালে একটি পাইপলাইন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ১২ ইঞ্চি ব্যাস ও এক হাজার পিএসআই চাপের পাইপলাইনটি নির্মাণ হয় সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির আওতায়। তবে দরপত্র অনুযায়ী ঠিকাদার পুরো পাইপলাইনটি নির্মাণ করেনি। এই অনিয়মের সঙ্গে সুন্দরববন গ্যাস কোম্পানিও জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ৭ দশমিক ২ কিলোমিটার পাইপলাইনের মধ্যে ৫ কিলোমিটার দরপত্র মেনেইে হয়েছে। বাকি ২ কিলোমিটার নির্মাণের চেষ্টা চলছে যেনতেনভাবে। ফলে ভবিষতে পাইপলাইনের নিরপত্তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। শোনা যাচ্ছে- এ শঙ্কার মধ্যেই সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানি কর্তৃপক্ষ ঠিকাদারদের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা করছে।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রের তথ্যমতে, ২২০ মেগাওয়াটের এনবিবিএল গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। এখানে চার কোটি ৮০ লাখ ঘনফুট গ্যাস সরবরাহের (জিএসএ) চুক্তি করে সুন্দরববন গ্যাস বিতরণ কোম্পানি। এ ছাড়া ২০২০ সালের ১৫ জানুয়ারি ‘মেসার্স টরমিন আমেরিকানা এসএ জেবিসিএ’ নামে একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করে সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানি।

চুক্তি অনুযায়ী গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পাইপলাইন নির্মাণের কাজ শেষ করার কথা ছিল। পরে ১৫০ দিন বাড়িয়ে ২৮ জুলাই কাজ শেষ করার নতুন সময় নির্ধারণ হয়। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে পারেনি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। পরে কাজ শেষ করার জন্য আরও ২১০ দিন সময় চায় ঠিকাদার। তাদেরকে সেই সময়ও দেওয়া হয়। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ২১০ দিন শেষ হয়; কিন্তু এখনো পাইপলাইনের কাজ শেষ হয়নি। ফলে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কাঙ্খিত গ্যাসের সরবরাহ করা যাচ্ছে না।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সাত কিলোমিটার পাইপলাাইনের একটি বড় অংশ সারাবছর পানির নিচে থাকবে। ফলে দীর্ঘ স্থায়ীত্বের জন্য দরপত্রে ‘কার্বন স্টিল লাইন পাইপ’ এবং ১২ ইঞ্চি ব্যাসের ‘কোটেড পাইপ’ কেনার শর্ত ছিল। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ৫ দশমিক ২ কিলোমিটার পর্যন্ত ‘কোটেড পাইপ’ দিয়েছে। বাকি দুই কিলোমিটারের জন্য এনেছে ‘আনকোটেড পাইপ’।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটিও স্বীকার করেছে যে, চুক্তির ব্যতয় ঘটিয়ে তারা আনকোটেড দুই কিলোমিটার পাইপ এনেছে। ঠিকাদারের স্বীকারোক্তির পরেও ‘আনকোটেড পাইপ’ কী করে পাইপলাইন নির্মাণে কাজে লাগানো যায়, সেই পথ খুঁজছে সুন্দরবন গ্যাস বিতরণ কোম্পানি।

গত বছরের ১ মার্চ প্রজেক্ট ম্যানেজম্যান্ট ইউনিটের সদস্যদের এবং গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জেটিসিএল) এক ম্যানেজারকে যুক্ত করে কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি চুক্তি মোতাবেক কোটেড পাইপ এনে কাজ বাস্তবায়নের পরামর্শ দেয়। পরে চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির তিন কর্মকর্তা এবং জিটিসিএল, বাপেক্স, তিতাস গ্যাস ও পেট্রোবাংলার একজন করে কর্মকর্তা নিয়ে মোট ৭ সদস্যর একটি কমিটি করা হয়। সেই কমিটি মতামত দেয়, দুই কিলোমিটার পাইপ চিনে ফেরত পাঠিয়ে যথাযথ কোটিং করে আনতে অনেক সময় লাগবে। ফলে ২ কিলোমিটার আনকোটেড পাইপের উপরিভাগে কোটিংয়ের জন্য কোল্ড এপ্লাইড টেপ (প্রাইমারি কালো টেপ, সাদা টেপ) প্রয়োগ করে কাজ বাস্তবায়ন করা যেতে পারে।

কমিটি একটি হিসাব করে দেখিয়েছে, প্রতি মিটার কোটেড পাইপের দাম ১৫১ দশমিক ৮৩ ডলার। যেহেতু ঠিকাদার কোম্পানি দুই কিলোমিটার পাইপ টেন্ডারের চুক্তি অনুযায়ী আনেনি, ফলে প্রতি মিটার আনকোটেড পাইপের বিল ১৩৬ দশমিক ৮৩ পয়সা করে পরিশোধ করা হোক। কমিটি নানা হিসাব করে দেখিয়েছে, ৭ কিলোমিটার পাইপলাইনের জন্য চুক্তিমূল্য ছিল ১৭ কোটি ৫ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। এখন দুই কিলোমিটার আনকোডেট পাইপের জন্য চার দশমিক দুই শতাংশ কম বিল পরিশোধ করা হবে।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির অদক্ষতার কারণে দীর্ঘ দিনেও পাইপলাইন নির্মাণ হয়নি। ফলে ভোলার ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রয়োজনীয় গ্যাস সরবরাহ করা যাচ্ছে না। আর গ্যাসের অভাবে কাক্সিক্ষত বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, ‘সুন্দরবন গ্যাস কর্তৃপক্ষ এক বছর ধরে কোনো সিদ্ধান্ত না দিয়ে বসে আছে। আমি অনিয়মের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’

এ বিষয়ে সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির চেয়ারম্যান ও বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. আব্দুল খালেক মল্লিক বলেন, ঠিকাদার কোম্পানি চুক্তির ব্যতয় ঘটিয়ে দুই কিলোমিটার পাইপ বিদেশ থেকে এনেছে। বিষয়টি নিয়ে এক ধরনের জটিলতা তৈরি হয়েছে। সেই জটিলতা নিরসন করে আমরা কাজটি বাস্তবায়নের চেষ্টা করছি।

সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে কথা বলতে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। তবে তিনি এ নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

পেট্রোবাংলার এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আমাদের সময়কে বলেন, এক-দেড় বছর ধরে পাইপলাইনের বিষয়ে সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানি কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি। সিদ্ধান্তে দেরি হওয়ায় রাষ্ট্রের ক্ষতি হয়েছে। শুরুর দিকে সিদ্ধান্ত দিলে হয়তো পাইপ পাল্টানো যেত। কিন্তু সেটা না করে এখন যুক্তি দেখাচ্ছে যে, আনকোটেড পাইপ পাল্টানো সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এর যুক্তিতে তারা আনকোটেড পাইপ ব্যবহারের পথ খুঁজছে।