শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাগলা মসজিদের দান বাক্সে প্রায় ৪ কোটি টাকা

news-image

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি : মাত্র তিন মাসের ব্যবধানে সব রেকর্ড ছাড়িয়ে আবারও কাড়ি কাড়ি টাকা, বিদেশি মুদ্রা আর স্বর্ণালংকার। দেশের কোন মসজিদের দানবাক্সে এতো বেশি পরিমাণ টাকা পাওয়ার নজির না থাকলেও কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী পাগলা মসজিদ একেবারেই ব্যতিক্রম। এবার কিশোরগঞ্জের মসজিদের দান বাক্স খুলে পাওয়া গেল ৩ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৮৮২ টাকা।

আজ শনিবার তিন মাসের ব্যবধানে মসজিদের নিচতলায় বিভিন্ন স্থান রাখা বড় বড় ৮টি লোহার দানবাক্স খোলা হয়। সকাল ৯টার দিকে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এটিএম ফরহাদ চৌধুরীর নেতৃত্বে কালেক্টরেটের বেশ বেশ কয়েকজন ম্যাজিস্ট্রেট ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে বড় বড় ৮টি লোহার সিন্দুক খুলে বের করে আনা হচ্ছে টাকা।

স্তূপকৃত টাকাগুলো প্লাস্টিকের বস্তায় ভরা হয়। সব মিলে ১৫ বস্তা টাকা হলে এগুলো নিয়ে যাওয়া হয় মসজিদের দ্বিতীয় তলায়। লম্বা মেঝেতে ঢেলে চলে টাকা ভাঁজ করা ও গণনার কাজ। রূপালী ব্যাংকের ৫০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারি, মসজিদ কমিটির ৩৫ জন, মসজিদ ক্যাম্পাস মাদরাসার দেড় শতাধিক শিক্ষার্থীসহ দুই শয়েরও বেশি মনিুষ অংশ নেয় টাকা গণনার কাজে।

সারাদিন গণনার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে জানা যায়, এসব দানবাক্স থেকে পাওয়া দানের টাকার মোট পরিমান হচ্ছে ৩ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৮৮২ টাকা। গত ২ জুলাই সর্বশেষ মসজিদের দানবাক্স খোলা হলে তখন ৩ কোটি ৬০ লাখ ২৮ হাজার ৪১৫ টাকা এবং বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গিয়েছিল। এবার ৩ মাস পর দান সিন্দুকগুলো খোলা হলো।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এটিএম ফরহাদ চৌধুরী জানান, প্রশাসনের প্রত্যক্ষ তদারিকতে সিন্দুক খোলা, টাকা বের করা ও গণনার কাজ পরিচালিত হয়। হিসেব শেষ হওয়ার পর টাকাগুলো রূপালী ব্যাংকে মসজিদের হিসেবে জমা রাখা হয়।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসত মোহাম্মদ শামীম আলম জানান, মসজিদের দানের টাকার আয় থেকে গত বছর পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানায় অনুদান দেওয়া হতো। তা ছাড়া দরিদ্র জটিল রোগীদের চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা দেওয়া হতো। কিন্তু এখন আর মসজিদের টাকা খরচ করা হচ্ছে না। এ টাকা দিয়ে ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে পাগলা মসজিদ কমপ্লেক্স ও গবেষণাগার নির্মাণ করা হবে। ইতোমধ্যে নকসা অনুমোদনের জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।

জনশ্রুতিতে আছে, প্রায় ৫০ বছর আগে পাগলবেশী এক আধ্যাত্মিক সাধু নরসুন্দা নদীর মাঝখানে চরে আশ্রয় নেন। তার মৃত্যুর পর সমাধির পাশে এই মসজিদটি গড়ে ওঠে। পরে পাগলা মসজিদ নামে পরিচিতি এই মসজিদটি। পাগলা মসজিদে দান করলে মনের ইচ্ছে পূরণ হয়, এমন বিশ্বাসে মুসলমান ছাড়াও অন্যান্য ধর্মের লোকজন এখানে দান করে থাকেন। নগদ টাকা ছাড়াও পাওয়া যায়, চাল,ডাল, গবাদিপশু, হাঁস-মুরগিসহ অনেক কিছু।