বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এসএসসির প্রশ্নফাঁস: পাঁচ শিক্ষকসহ বরখাস্ত ৬

news-image

ভুরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে এসএসসির প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষক ও একজন অফিস সহায়ককে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে ব্যবস্থাপনা কমিটি।

আজ সোমবার স্কুলটির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান পলাশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ছয়জন হলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমান, সহকারী শিক্ষক জোবায়ের হোসেন, আমিনুর রহমান রাসেল, হামিদুর রহমান, সোহেল আল মামুন ও অফিস সহায়ক সুজন মিয়া। তারা সবাই জেল হাজতে রয়েছেন।

প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে গত মঙ্গলবার রাতে গ্রেপ্তার হন প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমান, ইংরেজী শিক্ষক আমিনুর রহমান রাসেল ও চুক্তিভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক জোবায়ের হোসাইন। ওই রাতেই চারজন শিক্ষকের নাম উল্লেখ করে আরও অজ্ঞাতনাম ১০ থেকে ১২ জনকে আসামি করে ভুরুঙ্গামারী থানায় একটি মামলা হয়। পরে বৃহস্পতিবার আরও দুই শিক্ষক হামিদুল ইসলাম ও সোহেল আল মামুন এবং অফিস সহায়ক সুজন মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ ঘটনায় পাঁচ শিক্ষকসহ মোট ছয়জন গ্রেপ্তার হলেও মামলার অপর আসামি অফিস সহকারী আবু হানিফ পলাতক রয়েছেন।

জানা গেছে, ২০১৬ সাল থেকে একই পদ্ধতিতে অষ্টম শ্রেনির প্রশ্নপত্র ফাঁস শুরু করে চক্রটি। তখন উদ্দেশ্য ছিল নিজ বিদ্যালয়ের ফলাফল ভালো করা। আর ফাঁসের সঙ্গে জড়িত ছিল ৩ জন শিক্ষক। পরবর্তীতে চক্রের সদস্য সংখ্যা বাড়ানো হয় এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও অন্যান্য জেলায় প্রশ্নপত্র বিক্রি করা হয়। প্রশ্ন ফাঁস হবার পর তদন্ত কমিটি এ তথ্য জানতে পারেন।

এদিকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, বাংলা ২য়পত্র, ইংরেজী ১ম ও ২য় পত্রের প্রশ্ন ফাঁস হলেও ওই বিষয়ে সরকার কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এর ফলে যারা প্রশ্ন পেয়েছে তারা লাভবান হলো আর যারা প্রশ্ন পায়নি তারা বঞ্চিত রয়ে গেল। তারা প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানান।

নেহাল উদ্দিন পালইট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় তাদের বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও রোববার রাতে চিঠি সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে অনলাইনে পাঠানো হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজাহার আলী জানান, পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। গ্রেপ্তারকৃতদের তিন দিনের রিমান্ড দেওয়ার আবেদন করেছে পুলিশ। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর আদালত শুনানির দিন ধার্য করেছেন।