শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাড়ের ইনফেকশনে সতর্ক থাকুন

news-image

ডা. মিজানুর রহমান কল্লোল
হাড়ের ইনফেকশনকে বলে অস্টিওমাইলাইটিস। এক্ষেত্রে হাড় ও অস্থিমজ্জায় সংক্রমণ ও প্রদাহ হয়। সংক্রমণ রক্তের মাধ্যমে বা নিকটবর্তী টিস্যু থেকে ছড়াতে পারে। আবার হাড় থেকেও হতে পারে, যদি হাড়টি আঘাত পেয়ে জীবাণুর সংস্পর্শে আসে। যেসব মানুষ ধূমপান করেন এবং যারা দীর্ঘস্থায়ী রোগে, যেমন- ডায়াবেটিস, কিডনির বিকলতায় ভুগছেন, তাদের অস্টিওমাইলাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি। একসময় অস্টিওমাইলাইটিসের চিকিৎসা সহজ ছিল না। বর্তমানে সফলভাবে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। যাদের হাড় মরে যায়, তাদের অপারেশন করে মৃত হাড় অপসারণ করতে হয়।

উপসর্গ : অস্টিওমাইলাইটিসের উপসর্গের মধ্যে রয়েছে- জ্বর; ইনফেকশনের স্থান ফুলে যাওয়া, গরম হওয়া ও লাল হয়ে যাওয়া; ইনফেকশনের স্থানে ব্যথা হওয়া; অবসন্নতা ইত্যাদি। অস্টিওমাইলাইটিসে কখনো কখনো কোনো উপসর্গ নাও থাকতে পারে। কখনো কখনো উপসর্গগুলো অন্য সমস্যা থেকে আলাদা করা কঠিন হয়ে পড়ে। এটি নবজাতক, বয়স্ক লোক ও যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাদের জন্য বেশি সত্য।

ইনফেকশনের কারণ : বেশিরভাগ কারণ হলো স্ট্যাফাইলোকক্কাস ব্যাকটেরিয়া। এ ব্যাকটেরিয়া সাধারণভাবে সুস্থ মানুষের ত্বক ও নাকে দেখা যায়। জীবাণুগুলো বিভিন্ন মাধ্যমে হাড়ে ঢুকতে পারে। যেমন- শরীরের অন্যস্থানের জীবাণু –(উদাহরণস্বরূপ নিউমোনিয়া আক্রান্ত ফুসফুস) থেকে কিংবা প্রস্রাবের ইনফেকশনযুক্ত প্রস্রাবের থলি থেকে এ জীবাণু রক্তের মাধ্যমে আপনার হাড়ের দুর্বল স্থানে যেতে পারে।

আঘাতের দ্বারা ত্বকে মারাত্মক ক্ষত সৃষ্টি হলে জীবাণু শরীরের গভীরে ঢুকে যেতে পারে। যদি আঘাতের স্থানটি সংক্রমিত হয় জীবাণু পার্শ্ববর্তী হাড়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে। যদি আঘাতের ফলে হাড় ভেঙে গিয়ে ভাঙা হাড় চামড়া ভেদ করে বেরিয়ে আসে, তাহলে জীবাণু শরীরে প্রবেশ করতে পারে। জয়েন্টে অপারেশন বা কোনো ভাঙা হাড় লাগানোর সময় সরাসরি জীবাণুর সংস্পর্শ ঘটতে পারে।

ঝুঁকিপূর্ণ বিষয় : হাড় স্বাভাবিকভাবে ইনফেকশন প্রতিহত করতে পারে কিন্তু যখন বয়স বাড়তে থাকে, এ সুরক্ষার মাত্রাও কমতে থাকে। অন্য কিছু বিষয়ও হাড় ইনফেকশনে আক্রান্ত হতে সহায়তা করে। যেমন- মারাত্মকভাবে হাড় ভেঙে গেলে বা গভীর ক্ষত হলে হাড় বা আশপাশের টিস্যুতে ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করে। পশুপাখির কামড় কিংবা জুতার মাধ্যমে নখে ইনজুরি হলে সেখান থেকেও ব্যাকটেরিয়া ঢুকে ইনফেকশন ঘটাতে পারে। ভাঙা হাড় অপারেশনের মাধ্যমে ঠিক করার সময় বা জোড়া প্রতিস্থাপনের সময় হাড়ে জীবাণু ঢুকতে পারে। হাড় বা জোড়ায় স্থাপিত অর্থোপেডিক জিনিসপত্র ইনফেকশন ঘটাতে পারে। যখন রক্তনালিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা বন্ধ হয়ে যায়, শরীরের ইনফেকশনের বিরুদ্ধে লড়াইকারী কোষগুলো সমস্যায় পড়ে। একটি ছোট কেটে যাওয়া থেকে বড় ক্ষত সৃষ্টি হতে পারে। এ কারণে গভীর টিস্যু ও হাড় উন্মুক্ত থাকে এবং সেখানে ইনফেকশন হতে পারে। এছাড়াও রয়েছে আরও নানাবিধ ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়।

প্রতিরোধ : যদি আপনার হাড়ের ইনফেকশন উচ্চমাত্রার ঝুঁকি থাকে, তাহলে ঝুঁকি কমাতে দ্রুত চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে নিতে হবে। সাধারণভাবে কেটে যাওয়া, ছড়ে যাওয়া বা প্রাণীর আঁচড় বা কামড়ানো এড়িয়ে চলবেন। কেননা এক্ষেত্রে সহজে জীবাণু ঢুকতে পারে। যদি আপনার নিজের বা আপনার সন্তানের শরীরের কোথাও সামান্য কেটে যায়, তাহলে জায়গাটি দ্রুত পরিষ্কার করুন এবং সেখানে পরিষ্কার ব্যান্ডেজ বেঁধে দিন। ক্ষতটিতে ইনফেকশনের চিহ্ন দেখতে ঘনঘন পরীক্ষা করে নিশ্চিত হোন।

লেখক : উপাধ্যক্ষ ও সহযোগী অধ্যাপক অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগ, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল

০১৭১৬২৮৮৮৫৫