বৃহস্পতিবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইল প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অনিয়ম ও চাঁদাবাজি

images (5)মাহবুব খান বাবুল, সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) থেকে : সরাইল প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের বিরুদ্ধে নানা কৌশলে ব্যাপক অনিয়ম ও চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিরীক্ষা (অডিট) সামাল দেয়া, দপ্তরী নিয়োগ পরীক্ষা ও অফিস কক্ষের ফার্নিচার ক্রয়ের নামে চলছে এ চাঁদাবাজি। আর এ চাঁদা আদায়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ক্লাস্টার ভিত্তিক শিক্ষক নেতৃবৃন্দকে। তিনজন শিক্ষক চাঁদা উত্তোলনের কথা স্বীকারও করেছেন। চাঁদার ঘানি টানতে হচ্ছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল সহকারী ও প্রধান শিক্ষকদের। তবে অনেক শিক্ষক এ ঘটনায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার উপর চরমভাবে ক্ষুদ্ধ। এ ছাড়া চাকরিরত শিক্ষকদের বদলি পদায়নেও এখানে চলছে মোটা অংকের টুপাইস বিনিময়। সিনিয়র জুনিয়র বা নিয়ম নীতি বলতে কিছু নেই। সবকিছু হয় টাকায়। রয়েছে স্লিপ ও উপকরন ক্রয়ের টাকা থেকে কমিশন রাখার অভিযোগ। ছয়জন সহকারী শিক্ষক অফিসে করণিকের কাজ করছেন নিয়মিত। এসব কাজে অফিসের কর্তাবাবুরা তাদের পছন্দমতো শিক্ষক দালাল নিয়োগ করে রেখেছেন। চাকরিতে হয়রানির ভয়ে নীরবে এসব অনিয়ম সহ্য করে যাচ্ছেন শিক্ষকরা। অনুসন্ধানে একাধিক প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলে জানা যায়, শিক্ষা অফিসের বার্ষিক নিরীক্ষা আসন্ন। নিরীক্ষায় অনিয়ম ধরা পড়লেই গুনতে হবে টুপাইস। তাই উপজেলার ১২৪টি বিদ্যালয়ের উপর চাপিয়ে দিয়েছেন চাঁদা। দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ক্লাস্টার ভিত্তিক ৬ জন প্রধান শিক্ষককে। টার্গেট ১ লাখ ২৪ হাজার টাকা। নিরীক্ষা টিমকে দিতে হবে ১৫-২০ হাজার টাকা। বাকি টাকা ভাগ-বাটোয়ারা হবে কর্মকর্তা ও দালালদের মধ্যে। অবশ্য অনৈতিক এ চাঁদার বিপক্ষে নীরব প্রতিবাদ করছেন অনেক শিক্ষক। চাকরির ভয়ে সরব হতে পারছেন না তারা। জয়ধরকান্দি পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আইয়ুব খান, শাহজাদাপুর পূর্ব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হরিদাস ভৌমিক সহ অনেকে বলেন, অফিসের নিরীক্ষা সামাল দিতে টাকা লাগবে। তাই প্রত্যেক স্কুলের উপর ১ হাজার টাকা চাঁদা পড়েছে। আমরা দিয়েছি। সরাইল সদর ক্লাস্টারের প্রধান দেওয়ান রওশন আরা লাকি ১০টি বিদ্যালয় থেকে, কালিকচ্ছ ক্লাস্টারের প্রধান আবদুল মান্নান ২০টি বিদ্যালয় থেকে ও চুন্টা ক্লাস্টারের প্রধান মো. বজলুর রহমান ভূঁইয়া ৪টি বিদ্যালয় থেকে টাকা উত্তোলনের কথা অকপটে স্বীকার করে বলেন, অন্যরা ও যত দ্রুত সম্ভব টাকা দিয়ে দিবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক বলেন, অফিসের অনিয়ম ঢাকার মাসোয়ারা আমাদের উপর চাপিয়ে দেয়ার মানে কি? আমরা কয় টাকা বেতন পায়? সদ্য সমাপ্ত হওয়া পিএসসি পরীক্ষার ১৯টি কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেছি ২ শতাধিক শিক্ষক। স্বাক্ষর রেখেছেন ১২শ’ টাকার ভাউচারে। প্রত্যেকের ভাতা থেকে অডিটের কথা বলে ১৩০ টাকা করে রেখে দিয়েছে অফিস। এ ছাড়া স্লিপের টাকা থেকে দশ ভাগ ও উপকরণ ক্রয়ের টাকা থেকে অফিসকে কমপক্ষে ৫শ’ টাকা হলেও দিতে হবে। ১২৪টি বিদ্যালয়ের প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫৩ হাজার ৫শ’। প্রতি বছর কাবের নিবন্ধনের কথা বলে মোটা অংকের টাকা আদায় করা হয়। বার্ষিক মাথা পিছু ২ টাকা হারে কাবের চাঁদা আদায় হয় ১ লাখ ৭ হাজার টাকা। আর নিবন্ধনের ফি ২৪০ টাকা হারে ২৯ হাজার ৭৬০ টাকা। এগুলো শুধু আদায়ই হয়। আদৌ খরচের কোন হিসাব নেই। অফিসিয়াল কাজের জন্য উপজেলার ৬টি সু্কলের ৬ জন সহকারী শিক্ষকের মধ্যে ২-৩ জন মাঝে মধ্যে অন্যরা সর্বক্ষণ অবস্থান করেন অফিসে। এদের মধ্যে ভূঁইশ্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক  মো. আশরাফুল, উঁচালিয়া পাড়ার আমীর হামজা, আলী নগরের প্রণব বাবু, বেড়তলা স্কুলের রফিক মিয়া ও অফিস সংলগ্ন সদর মডেল স্কুলের সামছুল আলম। পাঠদান বাদ দিয়ে ২/১ জন শিক্ষক সর্বক্ষণ অফিসে কর্মকর্তার সেবায় নিয়োজিত থাকেন। তিনি (শিক্ষা কর্মকর্তা) চোখে কম দেখেন তাই গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র পড়ে শোনান ওই শিক্ষকরা। লোকজনের সঙ্গে উত্তেজিত হয়ে সহজেই দুর্ব্যবহার করা ওই কর্মকর্তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। ভূঁইশ্বর স্কুলের এসএমসি’র সভাপতি আবুল বাশার ও প্রধান শিক্ষক মো. দেলোয়ার হোসেন ওই স্কুলের শিক্ষক আশরাফ দীর্ঘদিন ধরে অফিসের কম্পিউটারে কাজ করছেন এমনটি স্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয়ে পাঠদানের কিছুটা সমস্যা তো হচ্ছেই। এখানে একজন প্যারা শিক্ষিকা রয়েছেন। একাধিক ভুক্তভোগী শিক্ষক জানান, বদলি ও পদায়নের বেলায় সরাইল অফিসে সিনিয়র জুনিয়র বলতে কিছু নেই। দালালদের মাধ্যমে বেশি টাকা যে দিতে পারবে তারটাই আগে হবে। সম্প্রতি ২৭টি স্কুলের দপ্তরী নিয়োগের সময় আপ্যায়নের নামে ৫শ’ টাকা করে মোট ১৩ হাজার ৫শ’ টাকা আদায় করেছে অফিস। এ ছাড়া নতুন ভবনের হলরুমের জন্য প্রত্যেক স্কুলের উপর ১টি করে চেয়ার চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। যার মূল্য কমপক্ষে ৫৫ হাজার ৮শ’ টাকা। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ আবুল খায়ের অফিস কর্তৃপক্ষের অনিয়মের সকল অভিযোগ অস্বীকার করে উত্তেজিত হয়ে বলেন, ২/১ জন শিক্ষক মাঝে মধ্যে অফিসে কাজ করেন। আমি তাদেরকে দাওয়াত দিয়ে আনি না। তাদের লাভে তারা আসেন। কম্পিউটারে সমস্যা হলে শিক্ষক আশরাফকে ডেকে আনি। আমি কি এখানে ব্যবসা করি? আমার কোন লাভ আছে? এগুলো আপনাদেরকে কে বলে? উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা নাহিদা হাবিবা বলেন, এ বিষয়গুলো তো ইন্টারনাল। তাই আমি একটু খোঁজখবর নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেব। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও প্রাথমিক শিক্ষা কমিটির সভাপতি মো. আবদুর রহমান বলেন, কোন ধরনের অবৈধ কাজকে প্রশ্রয় দেয়া হবে না। বিষয়গুলো নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করা প্রয়োজন। তদন্ত সাপেক্ষে অবশ্যই ব্যবস্থা নেবো।

এ জাতীয় আরও খবর

সৌদি নারী জন্ম দিলেন একসঙ্গে পাঁচ সন্তান

বিএনপির সব কিছুতেই ‘না’: তথ্যমন্ত্রী

ভোটে জিতেই ‘চাঁদাবাজিতে’ নেমে পড়েছেন চেয়ারম্যান

হবু জামাইকে ৩৬৫ পদে আপ্যায়ন করলেন শাশুড়ি (ভিডিও)

আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে মুস্তাফিজ

সাক্ষীর জবানবন্দি পাল্টে ছেলেকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ অমর্ত্যর বাবার

নতুন করে যে ৫ পরামর্শ দিলো কারিগরি কমিটি

এটিএম কার্ড ক্লোনকারী তুর্কি নাগরিক গ্রেপ্তার ঢাকায়

আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে মুস্তাফিজ

বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা : সাক্ষীর জবানবন্দি পাল্টে ছেলেকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ অমর্ত্যর বাবার

১৮ কোটি টাকা সহায়তা পেলেন দেড় হাজার পোশাক শ্রমিক

ইসি আইনের উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি: ওবায়দুল কাদের