সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কোকিল সুতাকলের ভারী মেশিনপত্র লুট হচ্ছে রাতের আধারে

k111111111111আমিরজাদা চৌধুরী : রাতের আধারে গায়েব হয়ে যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কোকিল সুতাকলের ভারী মেশিনপত্র।  ট্রাকে ভরে মিলের এসব মালামাল সরিয়ে নেয়া হয়। মাল নির্বিঘেœ সরিয়ে নিতে পুলিশ প্রহরা রাখা হয়। সুতাকলটি ব্যাক্তিমালিকানায় দেয়ার পর থেকেই চলছে এ ধরনের লুটপাট।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মেড্ডা এলাকায় ১১ দশমিক ৮ একর জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত এই মিলটি অব্যাহত লোকসানের মুখে ১৯৯৮ সালে বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বিগত ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় ২০০১ সালের ১২ ই নবেম্বর এক দরপত্রের মাধ্যমে নামমাত্র মুল্যে জনৈক ফারুক হোসেন বেপারীর কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়। মিলের মেশিনপত্র এবং জায়গার মুল্য কয়েক’শ কোটি টাকা হলেও ফারুক বেপারীর কাছে তা বিক্রি করা হয় নগদ ৩ কোটি টাকা এবং ৫ বছরের মধ্যে মিলের দীর্ঘ মেয়াদী ঋন প্রায় ১১ কোটি টাকা পরিশোধের শর্তে। নগদ ৩ কোটি টাকা পরিশোধেও বিক্রয় চুক্তিতে নগদের পরিবর্তে ব্যাংক গ্যারান্টি চায় ক্রেতাপক্ষ। ফলে নিজের পকেটের এক পয়সা ছাড়াই মিলটি কিনে নেন ফারুক হোসেন ব্যাপারী। মালিকানা হস্তান্তরের পর এখানে শিল্পকারখানা ছাড়া অন্য কিছু না করার শর্ত দেয়া হয়। কিন্তু এসব শর্ত লঙ্গন করে শুরু থেকেই কারখানার মালামাল সরিয়ে নেয়া  হতে থাকে । আর শিল্প কারখানা চালু করা হয় নামমাত্র। যা গত ৪ মাস ধরে পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। সুত্র জানায়,মিলটির মালিকানা বুঝে পাওয়ার পরই এর বিভিন্ন স্থাপনা ও বহু পুরনো গাছপালা বিক্রি শুরু করে দেয় নতুন মালিকপক্ষ। গ্যাস ও নলকূপের অনেক পাইপ উঠিয়ে বিক্রি করে দেয়া হয়। মুল্যবান মেশিনপত্র মেরামতের কথা বলে বের করে নিয়ে বিক্রি করে দেয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকেই বিরামহীনভাবে চলতে থাকে  মিলের সম্পদ লুটপাট। গত ২৩ শে এপ্রিল রাতে ৬ টি ট্রাকে ভরে মালামাল সরিয়ে নেয়ার সময় ক্ষুব্দ এলাকাবাসী তা আটক করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কারখানার বিভিন্ন ফ্লোরে ঢ্লাাই করে বসানো ভারী মেশিনপত্র শাবল দিয়ে ভেঙ্গে রাতের আধারে তা ট্রাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় সেখানে পুলিশ প্রহরা রাখা হয়। এলাকার লোকজন বাধা দিলেও পুলিশ কর্মকর্তাদের তৎপরতায় তারা বাধা সরিয়ে নিতে বাধ্য হন। এসব মালামাল কার নির্দেশে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে এরও কোন জবাব পাওয়া যায়নি কারো কাছ থেকে। মাল নিতে আসা ট্রাক ড্রাইভাররা জানায়, তাদেরকে ঢাকা ও ভৈরবের ভাঙ্গারী ব্যবসায়ীরা পাঠিয়েছেন। কারখানার ম্যানেজার মো: কফিল উদ্দিন দাবী করেন ২ মাস আগে তার নিয়োগ হওয়ার পর তিনি কারখানাটি চালু করার চেষ্টায় কারখানার ভেতরে মেশিনপত্র এদিক-ওদিক করছেন। যেগুলো বিক্রি করা হচ্ছে সেগুলো উচ্ছিষ্ট যন্ত্রাংশ।এই অবস্থার মধ্যে আবার বকেয়ার কারনে কারখানার বিদুৎত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয় বলে তিনি জানান। তবে মেড্ডা এলাকার বাসিন্দা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো: মাসুম বিল্লাহ বলেন সরকারী এই সম্পদটি ৫/৭ বছর আগে লীজ এনে এখানে সুতা তৈরী না করে রাতের অন্ধকারে এর সম্পদ বিক্রি করে দেয়া হচ্ছে। তাদের কি এতো ক্ষমতা আছে তারা এভাবে সরকারী সম্পদ বিক্রি করে দেয় তা এই এলাকার মানুষ বুঝতে পারছেনা। কোকিল সুতাকলের সাবেক শ্রমিক নেতা মো: নিজাম উদ্দিন বলেন কারখানার মালামাল তাদের বিক্রি করার ক্ষমতা নেই। এটি বেআইনীভাবে তারা করছে।  ওদিকে এখানে শিল্প কারখানা চালু করার  শর্ত থাকায় নামমাত্র্ শিল্পকারখানা চালু করা হয়। যা মাসের পর মাস বন্ধ থাকছে নানা কারনে। শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন পরিশোধ করতে পারছেনা মিল মালিক। এই অবস্থায় কারখানার মুল্যবান মালামাল লুটেপুটে নেয়াই মূখ্য উদ্দেশ্যে পরিনত হয়েছে কারখানার মালিকপক্ষের। মিলটির মালিকানা বুঝে নেয়ার পর প্রথমদিকে একটি জাতীয় দৈনিকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ৩’শ নারী ও পুরুষ শ্রমিক নিয়োগের জন্যে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। পরে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া আর সম্পন্ন করা হয়নি। গত ৪ মাস ধরে কারখানাটি পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। রাতের আধারে ট্রাকের পর ট্রাক কারখানার মেশিনপত্র ভাঙ্গারী ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দেয়ার ঘটনাটি চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। এ বিষয়ে সাংবাদিকরা সদরের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন কোকিলের সম্পদ লুট হয়ে থাকলে স্থানীয় প্রশাসনকে তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে বলবো । পাশাপাশি প্রাইভেটাইজেশন বোর্ডের সঙ্গেও এনিয়ে আমি কথা বলবো। উল্লেখ্য,১৯৬৬ সালে এনাম পারুমা কোম্পানি এই মিলটি চালু করে। স্বাধীনতার পর এটি রাষ্ট্রীয়করণ করা হয়। ১৭ হাজার ৭২৮ স্প্যান্ডাল(টাকুর) সমৃদ্ধ এই মিলের বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতা ছিলো ১১ দশমিক ৭৮ লাখ টন সুতা। সর্বোচ্চ উৎপাদনের জন্যে ১৯৮৭ সালে এই মিল পুরস্কার পায়। মিলটিতে কর্মরত ছিলো ৭ শতাধিক শ্রমিক-কর্মচারী। বেসরকারীখাতে যাওয়ার পর মিলটি আবার চালু হবে এমন আশাই ছিলো এলাকার মানুষের। কিন্তু তা হয়নি।বরং লুটপাটের আখড়ায় পরিণত করা হয়েছে এই কারখানা। 

k22222222222