সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ময়েস আর কত দিন?

ব্যাপারটা নিয়ে ব্রিটিশ গণমাধ্যমে তোলপাড় চলছে বটে, কিন্তু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কোচ ডেভিড ময়েসের ভবিষ্যত্টা অনুমিতই। গতকাল টেলিগ্রাফ, গার্ডিয়ান ও মেইলের মতো পত্রিকাগুলোর অনলাইন সংস্করণে ময়েসের বরখাস্ত হওয়ার খবরটি চাউর হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু মূল ব্যাপারটি হচ্ছে এখনো বরখাস্ত না হলেও তিনি যে চলে যাচ্ছেন, এটা কেবল এখন সময়েরই ব্যাপার।

জানা গেছে, এভারটনের বিপক্ষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ২-০ গোলে হারেই নাকি ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে পড়েছে ক্লাব প্রশাসকদের। এখন নরউইচ সিটির বিপক্ষে ম্যাচের আগে আগেই অনেকে চাচ্ছেন ময়েসের প্রস্থান। ক্লাব সভাপতিরও নাকি এমনই অভিমত।

ইউনাইটেডের কোচ হিসেবে ময়েসের চাকরির মেয়াদ এক বছরও হয়নি। কিন্তু এরই মধ্যে পেশাদারি নামক মুদ্রাটির দুই পিঠই দেখে ফেলেছেন তিনি। মাত্র ১১ মাস আগেই স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের উত্তরসূরি হিসেবে কী রাজকীয় অভ্যর্থনাই না পেয়েছিলেন ময়েস। অথচ মাত্র ১১ মাসের মধ্যে অভ্যর্থনাকারীদের কাছেই তিনি অসহ্য, অপাঙক্তেয়।

ব্যাপারটা পুরোটাই পারফরম্যান্স। পেশাদারি যাকে বলে আর কি! নিজের কাজ যতক্ষণ প্রতিষ্ঠানের কাজে আসছে, ততক্ষণই দাম। ময়েস ভালো কোচ, সন্দেহ নেই, কিন্তু সেই ‘ভালো’ কতটুকু ‘ভালো’ হয়ে দেখা দিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জন্য? উত্তর, একেবারেই না। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের অবিসংবাদিত শক্তি এবার শীর্ষ চারে না থাকায় খেলতে পারবে না চ্যাম্পিয়নস লিগ। ইউরোপা লিগে খেলা নিয়েও থেকে যাচ্ছে ঘোরতর সংশয়। ১৯৮১-৮২ সালের পর এই প্রথমবারের সতো ইউরোপীয় কোনো ক্লাবের এমন করুণ দশা কেন মানবে সমর্থকসহ অন্য সংশ্লিষ্টরা। তাই ময়েস যে ভবিষ্যতে ইউনাইটেডের দায়িত্বে থাকছেন না, সেটা বলতে খুব বড় জ্যোতির্বিদ হওয়ার প্রয়োজন নেই।

১৯৯০ সালে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের অবস্থান ছিল ত্রয়োদশ। ২৪ বছর পর এবারই দলটির অবস্থা এতটা খারাপ। মৌসুমে বাজে পারফরম্যান্স ক্ষতি করছে ব্যবসা-বাণিজ্যেরও। স্পন্সরা চলে যাচ্ছে, দর হারিয়েছে স্টক এক্সচেঞ্জে ইউনাইটেডের দামি শেয়ার। ২ দশমিক ৫ শতাংশ হারে শেয়ারের দর পড়ে যাওয়ার ব্যাপারটি ভাবতে বাধ্য করছে ক্লাব প্রশাসকদের।

মাঠের পারফরম্যান্সের পাশাপাশি ময়েসের বিপক্ষে অনেকের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করে ফেলারও অভিযোগ আছে। ডাচ তারকা রবিন ফন পার্সি নাকি তাঁর অধীনে খেলতে স্বাচ্ছন্দ্য নন। সাজঘরে ময়েসের মুখ দেখাদেখি বন্ধ রায়ান গিগসের মতো ইউনাইটেড ব্যক্তিত্বের সঙ্গেও। রিও ফার্ডিনান্ড ও হুয়ান মাতার মতো খেলোয়াড়েরা প্রকাশ্যে টুইট করে ময়েসের সমালোচনা করেছেন। সব মিলিয়ে কোনোকিছুই এখন আর ময়েসের পক্ষে কথা বলার মতো নয়।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তো ইতিমধ্যে কোচও খোঁজা শুরু করে দিয়েছে। একটু নামকরা, কিংবা সম্প্রতি সফল এমন কিছু কোচের জীবনবৃত্তান্ত নাকি পড়ে রয়েছে ক্লাব সভাপতির টেবিলে।

সমর্থকদের জোর দাবি, হোসে মরিনহো কিংবা পেপ গার্দিওলার মতো কোচ না এলে অস্তিত্বের সংকটে পড়তে পারে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ইয়ুর্গেন কপ নাকি এই মুহূর্তে ময়েসের উত্তরসূরি হিসেবে ইউনাইটেড কর্তাদের প্রধান পছন্দ। পছন্দের তালিকায় নাকি আছেন অ্যাটলেটিকোকে ‘যাদুমন্ত্র’ দিয়ে বদলে দেওয়া ডিয়েগো সিমিওনেও। হল্যান্ডের কোচ লুই ফন গালের সঙ্গে আলাপ হয়েছে। ফ্রান্সের লঁরা ব্লঁর সঙ্গে ভাবা হচ্ছে ইউনাইটেডের দীর্ঘ দিনের কান্ডারি রায়ন গিগসকেও।