সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেই দুজনের জুটিতেই তবু কিছু লড়াই

দলের সবার দিকেই কম বেশি সমালোচনার তির ধেয়ে যাচ্ছে। তবে সবচেয়ে বেশি বিদ্ধ হচ্ছিলেন এই দুজনই। মাহমুদউল্লাহ ও নাসির হোসেন। পরেরজন তো বাদই পড়েছিলেন দল থেকে। অন্যজনের মাথার ওপরই ঝুলছিল খড়্গ। সেই দুজনের জুটিতে আজ ভারতের বিপক্ষে তবু লড়াই করার কিছু পুঁজি পেল বাংলাদেশ। ষষ্ঠ উইকেটে তাঁদের গড়া ৪৯ রানের জুটির সুবাদেই বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে উঠল ১৩৮ রান। ২৩ বলে ৩৩ রান করে শেষপর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন মাহমুদুল্লাহ। নাসির করেছেন ১৬ রান।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রানের ইনিংসটি অবশ্য এসেছে এনামুল হকের ব্যাট থেকে। বিনা উইকেটে ২০ রান থেকে হুট করে বাংলাদেশের স্কোর হয়ে যায় ৩ উইকেটে ২১! এর রানের মধ্যে তিন ব্যাটসম্যানকে হারানোর সেই ধাক্কা সামলে নিতে চতুর্থ উইকেটে বাংলাদেশকে কিছুটা ভালো অবস্থায় নিয়ে গেছেন এনামুল ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। গড়েছেন ৪৬ রানের জুটি। ১১তম ওভারে মোহাম্মদ সামির শিকার হওয়ার আগে আগে মুশফিক করেছেন ২৪ রান। এক ওভার পরে এনামুলও সাজঘরে ফিরেছেন ৪৪ রান করে।

এই দুটো জুটি ছাড়া বলার মতো কিছুই নেই বাংলাদেশের ইনিংসে। অথচ টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই হয়েছিল বাংলাদেশের। প্রথম ওভারেই বাংলাদেশ তুলেছিল ১৩ রান। আবারও ব্যর্থতার মিছিলে সামিল হলেন, আত্মাহুতি দিলেন বেশির ভাগ ক্রিকেটারই। ৬ রানের মাথায় নিশ্চিত রানআউটের হাত থেকে বেঁচে যাওয়ার সুযোগটা কাজেই লাগাতে পারেননি তামিম। সাজঘরে ফিরেছেন সেই ৬ রান করেই। মমিনুল হকের পরিবর্তে দলে সুযোগ পাওয়া শামসুর আউট হয়েছেন প্রথম বলেই। দলের অন্যতম প্রধান ভরসা সাকিবও খেলতে পেরেছেন মাত্র দুইটা বল। করেছেন মাত্র ১ রান। যে জিয়াকে এক রকম অলিখিত আন্দোলন করে পুরো বাংলাদেশের সমর্থকেরা দলে ঢোকালেন, তিনিও ফিরলেন প্রথম বলে আউট হয়ে।

সেখান থেকে নাসির-মাহমুদউল্লাহর জুটি ওভারে সাড়ে আট করে রান তুলে পাল্টা আক্রমণ চালাচ্ছিলেন। এক সময় মনে হচ্ছিল ১৫০ করে ফেলবে বাংলাদেশ। কিন্তু শেষের দুই ওভার থেকে রানের ঝড়টা আর তোলা হলো না। তবুও ১৩৮-ই সই। দেখা যাক, বোলিংয়ে কতটা লড়াই করে বাংলাদেশ।