শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাপুরের আত্মঘাতী গোলে জয় পেল বাংলাদেশ

news-image

স্পোর্টস প্রতিবেদক : এএফসি অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সিঙ্গাপুরকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। আজ বুধবার রাতে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ২-১ গোলে জয় পায় বাংলাদেশের কিশোররা।

প্রথম ম্যাচে জয় পাওয়ায় মূলপর্বে যাওয়ার পথে এগিয়ে থাকলো লাল-সবুজের জার্সিধারীরা। এই গ্রুপে বাংলাদেশের অপর দুই প্রতিপক্ষ ভুটান ও ইয়েমেন।

আজকের খেলা শুরুর তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যাওয়ার আনন্দে ভাসতে পারত বাংলাদেশ। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা নাজিম উদ্দিনের শট পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে আসা আইজ্যাক লির গায়ে লেগে দূরের পোস্ট দিয়ে বেরিয়ে যায়। নাজিম চিপ করলেও হতে পারত গোল।

সাত মিনিট পরই কাঙ্খিত গোল পেয়ে যায় বাংলাদেশ। বাইরে থেকে নাজিম ক্রস বাড়ান বক্সে মিরাজুল ইসলামের উদ্দেশে। দলকে বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালে বল জড়িয়ে দেন সিঙ্গাপুরের ডিফেন্ডার ব্রেইডেন গোহ।

পঞ্চদশ মিনিটে মিরাজুলের কোনাকুনি শট ঠেকিয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ হতে দেননি গোলরক্ষক। ২০তম মিনিটে বেঁচে যায় বাংলাদেশ। জোনান টানের কাটব্যাক অধিনায়ক ইমরান খানের পায়ে লেগে পোস্টে ঢোকার মুখে হেডে বিপদমুক্ত করেন সিরাজুল ইসলাম রানা।

বক্সের ভেতর থেকে ২৭তম মিনিটে মিরাজুলের প্লেসিং শট গোলরক্ষক আটকান, ব্যবধান দ্বিগুণের আরেকটি ভালো সুযোগ নষ্ট হয় বাংলাদেশের।

পরের মিনিটেই সমতায় ফেরে সিঙ্গাপুর। মুহাম্মদ শাইজোয়ানের দূরপাল্লার শটে পরাস্ত সোহানুর রহমান। অনেকটা লাফিয়েও বলের নাগাল পাননি তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধে বাংলাদেশের আক্রমণে ধার ছিল না। ৭৩তম মিনিটে সুমনের পাসে বক্সে ঢুকে পড়া মিরাজের শট যায় বাইরে। শেষ দশ মিনিটে দফায় দফায় খেলা বন্ধ হয় বারবার সিঙ্গাপুরের খেলোয়াড়রা চোট পেয়ে মাঠ ছাড়তে থাকায়। ফলে রেফারি দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময় দেন ৮ মিনিট।

যোগ করা সময়ের শেষ মুহূর্তে দ্বিতীয় উপহার পায় বাংলাদেশ। রাতুলের থ্রো ইন ক্লিয়ার করতে হেড করেছিলেন সিঙ্গাপুরের এক খেলোয়াড়। কিন্তু তার ব্যাক হেড গোলরক্ষক আইজ্যাক লির হাত ফসকে জালে জড়ায়। শেষ পর্যন্ত এই গোলেই নিশ্চিত হয় পল স্মলির দলের ৩ পয়েন্ট।

ছেলেদের জয়ে আনন্দ মনে ফেরেন নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনও। ম্যাচটি দেখতে কোচিং স্টাফ ও ক্যাম্পে থাকা মেয়েদের নিয়ে কমলাপুরে এসেছিলেন তিনি।