বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বগুড়ায় জব্দকৃত সার বিক্রির অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমাদানের নির্দেশ

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক,বগুড়া : বগুড়ায় জব্দকৃত ১৫ হাজার বস্তা সার বিক্রি করে সেই অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া মজুদ করা সার গুদামের ব্যবস্থাপককে আটক করে তার ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সমর কুমার পাল।

ইউএনও জানান, রোববার রাতে সদর উপজেলার এরুলিয়া এলাকায় অবৈধভাবে সার মজুদ করার অভিযোগে অভিযান চালানো হয়। সে সময় সারের মালিক ও গুদামের ব্যবস্থাপক পালিয়ে যান। এ কারণে গুদাম ভর্তি (১২ থেকে ১৫ হাজার বস্তা) ইউরিয়া ও ডিএপি সার জব্দ করে গুদামটি সিলগালা করা হয়।

সমর কুমার পাল জানান, গতকাল সোমবার বিকেলে ওই গুদামের ব্যবস্থাপক সেখানে অবস্থান করছেন এমন খবর পেয়ে পুনরায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত ব্যবস্থাপকের নাম আজিজুল হক সাজু (৩০)। তিনি বগুড়ার কাহালু উপজেলার সমন্তাহার পোড়াপাড়ার মৃত রহমতুল্লা প্রামাণিকের ছেলে।

আটকের পর দোষ স্বীকার করায় সার ব্যবস্থাপনা আইনে (বিধি বহির্ভূতভাবে সার গুদামজাতকরণ, সংরক্ষণ, বিক্রয়, বিপনন, পরিবহন ও বিপনন) তার ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া জব্দকৃত সার সরকার নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করে বিক্রয়লব্ধ অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা দিতে বগুড়া সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া সার বিক্রি না হওয়া পর্যন্ত ওই গুদামের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান ইউএনও। এ সময় দণ্ডপ্রাপ্ত গুদাম ব্যবস্থাপক তাৎক্ষণিক জরিমানার টাকা জমা প্রদান করেছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বগুড়ায় সদর উপজেলার এরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশের গুদামে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় অবৈধভাবে মজুদ করা ১৫ হাজার বস্তা সার জব্দ করা হয়। পরে ওই গুদাম সিলগালা করা হয়।