বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অস্টিওপোরোসিস নিরাময়যোগ্য রোগ

news-image

অধ্যাপক ডা. এম. আমজাদ হোসেন
অস্টিওপোরোসিস হলো এমন একটা অবস্থা, যাতে হাড়ের ক্যালসিয়ামের ঘনত্ব বা পরিমাণ কমে স্বাভাবিক গঠন নষ্ট হয় ও হাড় ভঙ্গুর হয়। একপর্যায়ে কোমরের হাড়, মেরুদণ্ড ও হাতের কব্জির হাড় ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। তবে আগেভাগে সতর্ক ব্যবস্থা নিলে অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধ করা সম্ভব।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ করে নারীদের মেনোপজ-পরবর্তীকালে অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি বাড়তে থাকে। পুরুষের তুলনায় নারীর এ রোগে আক্রান্তের হার বেশি। নারীর ক্ষেত্রে ৩০ বছরের পর থেকেই এ রোগের লক্ষণ প্রকাশ পেতে শুরু করে। পঞ্চাশোর্ধ্ব প্রতি তিনজন নারীর একজন এ হাড়ক্ষয় বা ভাঙার শিকার হয়। কায়িক শ্রম না করায় গ্রামের চেয়ে শহরের মানুষের এ রোগ বেশি হয়।

কারণ : অস্টিওপোরোসিস হওয়ার পেছনে বহুবিধ কারণ রয়েছে। শৈশবে হাড় গঠনের সময় পর্যাপ্ত ক্যালসিয়ামের অভাবে হাড়ের স্বাভাবিক গঠন বাধাপ্রাপ্ত হয়। এ ছাড়া হাড় গঠনে কিছুটা পারিবারিক প্রভাবও রয়েছে। দৈনন্দিন জীবনে ব্যায়ামের অভ্যাস ও দৈনিক নির্দিষ্ট পরিমাণ ক্যালসিয়াম গ্রহণের ওপরও হাড়ের গঠন অনেকাংশে নির্ভর করে। এ ছাড়া দীর্ঘমেয়াদি কিছু রোগ ও ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকেও হাড়ক্ষয় বা অস্টিওপোরোসিস হতে পারে।

উপসর্গ : হাড়ক্ষয় নীরব ঘাতক। তেমন কোনো উপসর্গ ছাড়াই মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়। প্রাথমিক ধাপে এর কোনো লক্ষণ পরিলক্ষিত হয় না; বরং হাড় ভাঙার মাধ্যমে এর উপস্থিতি প্রথমবারের মতো টের পাওয়া যায়। এ রোগে রোগীর অস্থি বা হাড়ের ভঙ্গুরতা বৃদ্ধি পায় এবং হারের পুরুত্ব কমে যায়, পেশিশক্তি হ্রাস পায়, পিঠের পেছন দিকের অস্থিতে ব্যথা অনুভব হয়, হিপ, কোমর ও মেরুদণ্ডে ক্ষয় দেখা দেয়। আবার হাড়ের ব্যথা বা অল্প আঘাতে হাড় ভেঙে যাওয়াও হতে পারে অস্টিওপোরোসিসের প্রথম লক্ষণ। মেরুদ-ের হাড় ভাঙায় কোমরে হাড়ের গঠনগত ত্রুটি, শরীরের উচ্চতা কমে যাওয়া, এমনকি মেরুদণ্ডের ভেতরে অবস্থিত স্নায়ুর ওপর চাপের প্রভাবে তীব্র ব্যথাও অনুভূত হতে পারে।

চিকিৎসা : অস্টিওপোরোসিস চিকিৎসার প্রধান উদ্দেশ্যই হলো হাড় ভাঙার ঝুঁকি কমানো। হাড়ক্ষয় হ্রাস ও পূরণে প্রয়োজনীয় সাপ্লিমেন্টারি, ওষুধ গ্রহণের পাশাপাশি কিছু শারীরিক ব্যায়ামও করতে হয়। এতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে হাড়ক্ষয়ের হার তুলনামূলকভাবে ধীরে ঘটে এবং কিছু ক্ষেত্রে হাড় পুনর্গঠন হতে পারে। চিকিৎসকের পরামর্শে সঠিক মাত্রায় ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট গ্রহণ করা যেতে পারে। এ ছাড়া বিসফসফোনেট, ইবানড্রোনিক অ্যাসিড, জোলেনড্রোনিক অ্যাসিডজাতীয় ওষুধ বেশ কার্যকর। কেউ এ রোগে আক্রান্ত হয়ে গেলে খুব সাবধানে চলাফেরা করুন ও চিকিৎসকের পরামর্শে চলুন। জাম্পিং বা দৌড়াদৌড়ি করা একেবারে ঠিক হবে না। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে সঠিক ওজন বা ভার উত্তোলন, লো-ইমপ্যাক্ট ড্যান্সিং, অ্যারোবিক্স বা অন্য কিছু ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ করে এই রোগ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা যায়। যারা এই রোগে আক্রান্ত, তাদের জন্য সাইক্লিং, ক্লাইম্বিং স্টিয়ারিং (সিঁড়ি মাড়ানো), নাচ, হাইকিং, জগিং, জাম্পিং রোপ (দড়ি লাফ), স্টেপ অ্যারোবিক্স, টেনিস ইত্যাদি বেশ কার্যকর, তবে তা চিকিৎসকের তত্বাবধানে দেহের অবস্থা বুঝে করতে হবে।

প্রতিরোধে করণীয় : অস্টিওপোরোসিস এখন একটি প্রতিরোধ ও নিরাময়যোগ্য রোগ। নিয়মিত জীবনযাপন, সঠিক খাদ্যাভ্যাস ও ব্যায়ামের মাধ্যমে হাড়ক্ষয়ের পরিমাণ কিছুটা হলেও কম হতে পারে। মনে রাখতে হবে, হাড়ক্ষয়, পূরণ ও বৃদ্ধি একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এতে মন খারাপ না করে বরং সাহস সঞ্চয় করতে হবে। মনে করতে হবে, এটা কোনো রোগ নয় এবং জীবনই গতি, গতিই জীবন।

লেখক : চিফ কনসালট্যান্ট ও বিভাগীয় প্রধান

অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগ ও আর্থোপ্লাস্টি সেন্টার, ল্যাবএইড হাসপাতাল লিমিটেড

বাড়ি- ০৬, রোড-০৪, ধানমন্ডি, ঢাকা

 

এ জাতীয় আরও খবর