শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : রংপুর মহানগরীর প্রধান সড়ক গুলো এখন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার দখলে রয়েছে। এই যানবাহন গুলো চলাচলে নিয়ন্ত্রণ না থাকায় নগরীজুড়ে প্রতিনিয়তই বাড়ছে দুর্ঘটনা। সিটি কর্পোরেশনের নিবন্ধনপ্রাপ্তের চেয়ে অবৈধভাবে কয়েকগুণ বেশী অটো ও চার্জার রিকশা চলাচল করায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ছেন চালক, যাত্রীসহ নগরবাসী। এছাড়াও ভাড়া নিয়েও প্রতিনিয়তই যাত্রী-চালকের মধ্যে তর্ক-বির্তকের ঘটনাও ঘটছে। এদিকে নগরীজুড়ে অবৈধভাবে চলাচলকারী অটো ও চার্জার রিকশার বিরুদ্ধে দ্রুত অভিযান এবং ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার করার জানিয়েছেন সচেতন নগরবাসী।সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর কাচারী বাজার, সিটি বাজারের সামনে থেকে সুপার মার্কেটের মোড় হয়ে পায়রা চত্বর ও জাহাজ কোম্পানির মোড় পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার সড়কের আশপাশে বিপণিবিতান, বাজার ও গুরুত্বপূর্ণ অফিস অবস্থিত। অটোরিকশার কারণে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কে প্রতিদিন যানজটের কবলে পড়তে হয় চালক,যাত্রীসহ নগরবাসীকে। কেনাকাটাসহ কাজে নগরীতে আসা মানুষজনকে যানজটের কবলে পড়তে হচ্ছে। যানবাহনের চালক, যাত্রী, পথচারীসহ নগরবাসীর এমন দুর্ভোগের ঘটনা নিত্যদিনের।

সিটি করপোরেশনের তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে, সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ৫ হাজার ২ শত ৪০টি ব্যাটারিচালিত ও ৩ হাজার দুইশতটি চার্জার রিকশার লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে ৮ হাজার ৫৪০টি যানবাহনের লাইসেন্স দেয়া হয়। এর বাহিরে নুতন করে আর কোন যানবাহনের লাইসেন্স বা নিবন্ধন দেয়া হয়নি বলেও সিটি কর্পোরেশন জানান। তবে লাইসেন্স প্রাপ্তের বাহিরেও আরো ২০ হাজারের বেশী ব্যাটারি চালিত অটো ও চার্জার রিকশা মহানগরীতে চলাচল করছেন।

রোববার সকাল ১১টায় নগরীর স্টেশন রোড, জাহাজ কোম্পানী মোড়, পায়রা চত্বর ও সিটি বাজার, কাচারী বাজার এলাকায় সরেজমিন দেখা গেছে, নগরীর গুরুত্বপুর্ণ এই সড়কটিতে রিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ সব ধরনের যানবাহনের জট লেগে আছে। যানবাহন গুলো একটু সামনে যায়, আবার থেমে থাকে। নিয়ন্ত্রণহীন এমন চলাচলে পথচারীরা নাজেহাল হয়ে পড়েছে। মানুষজনকে এই যানজটের মাঝেই সড়ক পারাপার হতে হচ্ছে। একারণে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনা ঘটেছে। অনেকেই অটো ও চার্জার রিকশার ধাক্কায় আহত হচ্ছে। এছাড়াও নগরীর সিটি বাজার ও নবাবগঞ্জ বাজারে পণ্য ক্রেতাদের সবচেয়ে বেশী দুর্ভোগে পড়তে হয়। অতিরিক্ত যানবাহনের কারণে ট্রাফিক পুলিশকে যানজট নিরসনে হিমসিম খেতে হচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের দুই কর্মকর্তা জানান, নগরীতে প্রতিনিয়তই অটো রিকশা বাড়ছে। এতে যানজট সৃষ্টি হয়। তা সামাল দিতে ট্রাফিক পুলিশকেও হিমশিম হচ্ছে। কারণ উত্তর-দক্ষিন মিলিয়ে ট্রাফিক বিভাগে জনবল রয়েছে ১০৫জন। যা চাহিদার তুলনায় অনেক কম।তাছাড়া সিটি বাজার ও পায়রা চত্বর এলাকায় সন্ধ্যার পর অবৈধভাবে কিছু ভ্রাম্যমান দোকান বসায় যানজটের লেগে যায়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার উচ্ছেদ করা হলেও ভ্রাম্যমান দোকানগুলো পুনরায় বসাচ্ছে হকাররা।

নগরীর সুপার মার্কেট এলাকায় কথা হয় জান্নাতুল পিংকি ও ইসরাত জামান সুমি নামের দুই গৃহবধু বলেন, দীর্ঘক্ষণ ধরে যানজটে আটকা পড়ে আছি। কখন যেতে পারব বুঝতে পারছি না। এই যানজটের জ্বালায় আমরা অতিষ্ঠ। দ্রুত এই সমস্যার সামাধান চাই।জাহাজ কোম্পানী মোড় এলাকায় অটো চালক শামসুল আলম, মোজাম্মেল হক ও রায়হানা মিয়া জানান, এমন করি প্রত্যেক দিন নানা জায়গাত আটকে থাকিয়া হামার আয়ও কমি গেইছে। একটু একটু করে অটোরিকশা এগিয়ে চলে। সামন্য পথ পৌঁছাতে প্রায় আধা ঘণ্টা সময় লাগে।

নগরীর সেনপাড়া বাসিন্দা মজিবর রহমান ও শরীফ লাবু বলেন, বাজার করতে যত সময় লাগে, তার থেকে বেশি সময় রাস্তায় চলে যায়। রাস্তা পার হতেও অনেক সময় লাগে। আমি গ্র্যান্ড হোটেল মোড় থেকে সিটি বাজার অটোতে গেছি প্রায় ২০ মিনিট সময় লাগছে। বাজার শেষে বাসা ফেরার সময়ে দেখি অনেক যানজট।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন জানান, নগরীর যানজট নিরসনে ট্রাফিক সদস্যরা নিরলসভাবে কাজ করছে। অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। আটক ও জরিমানার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

এব্যাপারে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নগরীকে যানজটমুক্ত করতে ইতিমধ্যে ফুটপাত থেকে অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ করা হয়েছে। যা চলমান রয়েছে। এছাড়াও নতুন করে আর কোন লাইসেন্স দেয়া হচ্ছে না।

এ জাতীয় আরও খবর