শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড : ‘মায় মোর আজও আইলোনা’

news-image

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি : ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের এক মাস পার হলেও এখনো সন্ধান মেলেনি বরগুনার পাথরঘাটার মেয়ে ফজিলা আক্তার পপির। নিখোঁজ পপি বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার চরদুয়ানী ইউনিয়নের ছোট টেংরা গ্রামের আফজাল হোসেনের মেয়ে।

পপি ঢাকার সাভারে একটি গার্মেন্টস কারখানায় চাকরি করতেন। তার মেয়ে লামিয়া ইসলাম (১৩) নানা-নানির সঙ্গে পাথরঘাটায় থাকেন। মেয়ে লামিয়াকে নিজের কাছে রাখা ও সাভারে একটি বিদ্যালয়ে ভর্তি করানোর সিদ্ধান্ত নেন পপি। মেয়েকে নিতে গত (২৩ ডিসেম্বর) ঢাকা থেকে পাথরঘাটায় অভিযান-১০ লঞ্চে রওনা হন। দুর্ঘটনার পর এমভি অভিযান-১০ লঞ্চসহ ঝালকাঠি ও বরগুনা সদর হাসপাতালের মর্গে এবং বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে খোঁজ নিয়েও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।

পপির মা আমেনা বেগম বলেন, ‘একমাত্র মাইয়াডারে হারাইলাম। জামাই মাইয়াডারে ৮ বছর আগে তালাক দিয়া যান। জীবন বাঁচাইতে ঢাকায় গার্মেন্টস চাকরি করতো। আওয়ার আগের দিন পপি ফোন করে কয় মা মোর জন্য নতুন চাউল রাখপা। মোর নতুন চাউলের ভাত খাইতে মন চায়। সকালে রান্না করতে যাইয়া হুনি সেই লঞ্চে আগুন লাগছে। মোর মাইয়া আর ফিরে আইলোনা। মাইয়াডার লাশটাও আর পাইলাম না ‘

পপির মেয়ে লামিয়া ইসলাম বলেন, ‘লঞ্চে উঠে ফোন দিয়া মায় মোর লগে কথা কয়। মায় কয় মনু মুই অভিযান-১০ লঞ্চে উঠছি, সকালে আইয়া নামমু আনে। এর আগে মায় কইছিল, বাড়িতে আইয়া মোরে ঢাকায় নিয়া ভালো একটা স্কুলে ভর্তি করাইবে। কত দিন হইয়া গেছে এহনো মায় আয় নাই। এহন মোরে মা কইয়া কেডা বোলাইবে। মোর মায় কি আইবে?’ লামিয়া ইসলাম এখন নানা-নানির সঙ্গে পাথরঘাটায় থাকেন। উপজেলার হাতেমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৮ম শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর