সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির সব কিছুতেই ‘না’: তথ্যমন্ত্রী

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদকমন্ত্রিসভায় অনুমোদিত নির্বাচন কমিশন গঠনের আইনের খসড়া না পড়েই বিএনপি নেতাদের নানা মন্তব্য তাদের রাজনীতির অন্তঃসারশূন্যতা এবং সব কিছুতে ‘না’বলার বাতিকেরই প্রমাণ বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। আজ বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জানেন সরকার নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষে আইন প্রস্তুত করার জন্য খসড়া মন্ত্রিসভায় পাঠিয়েছে। মন্ত্রিসভা সেই আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে। আমাদের সংবিধানে একটি আইনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠন করার কথা বলা আছে। কিন্তু ৫০ বছরেও সেই আইন হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি কিছু দিন ধরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যে সংলাপ করেছেন, সেখানে বেশির ভাগ দলই একটি আইন প্রণয়নের কথা বলেছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষ থেকে দ্রুত আইন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে যাতে আইনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠন করা যায়। কিন্তু সরকারের এই ভালো উদ্যোগকেও প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য মঙ্গলবার বিএনপির পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে এবং সেখানে তাদের বক্তব্যে মনে হয়েছে নজরুল ইসলাম খান সাহেব আইনের খসড়াটি পড়েননি এবং তাদের দলের যে নেতারা সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্যটি তৈরি করে দিয়েছেন, তারাও পড়েননি।’

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘না পড়েই নজরুল ইসলাম খান সাহেব মন্তব্য করেছেন, এখানে কোনো বেসরকারি লোক বা কোনো আইনজ্ঞকে নিয়োগের সুযোগ রাখা হয় নাই। অথচ আইনের খসড়ায় স্পষ্ট বলা আছে, কোনো ব্যক্তি যিনি ২০ বছর ধরে সরকারি কিংবা বিচার বিভাগীয় পদে বা আধাসরকারি কিংবা বেসরকারি পদে কাজ করেছেন তাকে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া যাবে। বেসরকারি যখন বলা হয় সেখানে আইনজ্ঞ, বিশেষজ্ঞ সবাই অন্তর্ভুক্ত।’

এ সময় তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “একই সংবাদ সম্মেলনে আবার নজরুল ইসলাম খান সাহেব বলেছেন, এই সরকারের মাধ্যমে গঠিত নির্বাচন কমিশনের অধীনে তারা কোনো নির্বাচনে যাবেন না। অর্থাৎ নির্বাচন যেভাবেই হোক তারা নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে আছেন। কেউ যখন নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে থাকে তখন যেকোনো ভালো উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করাই তাদের উদ্দেশ্য হয়ে থাকে। সরকার একটি ভালো উদ্যোগ নিয়েছে এবং এতে দেশের মানুষ অভিনন্দন জানিয়েছে। এমনকি কিছু দিন আগে আইনজ্ঞ এবং সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ আইনমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে একটি আইন করার তাগিদ এবং প্রস্তাবনাও দিয়েছিলেন। তারা অনেকেই আইন করার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। কিন্তু বিএনপির সব কিছুতেই ‘না’বলার বাতিক। সেখান থেকে তারা বেরিয়ে আসতে পারেনি, যেটি অত্যন্ত দুঃখজনক।’

 

এ জাতীয় আরও খবর

সর্বদলীয় সরকার গঠনে বিরোধী দলকে আমন্ত্রণ শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর

টাইগার স্পিনারদের দাপট, ম্যাথিউসের সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার স্বস্তি

বিজেপি নেতাকে কষে চড় মারলেন এনসিপি কর্মী

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মাকে লাথি, মেয়েকে ‘ধর্ষণচেষ্টা’!

ঢাকাবাসীকে ‘স্বস্তির খবর’ দিলো কোয়ালিটি ইনডেক্স

দেশের উত্তরাঞ্চলে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা

ঘুরে ঘুরে ময়লা সংগ্রহ করেন মামুন, বিলান গাছ

ক্ষমতাচ্যুত হতে পারেন পুতিন : ইউক্রেন জেনারের

টিসিবিতে সোমবার থেকে সয়াবিন মিলবে ১১০ টাকায়

সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক হাসপাতালে

ভোটের এক মাস আগেই কুমিল্লায় বিজিবি মোতায়েন

অসুস্থ মঈন খান আইসিইউতে