বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘পাওনা মেটাতে ইভ্যালির সম্পদ বিক্রি হবে’

news-image

অনলাইন ডেস্ক : আলোচিত ই-কমার্স কোম্পানি ইভ্যালির পাওনাদারদের পাওনা ফিরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আলোচিত ইভ্যালি আপাতত সাবেক এমডি মোহাম্মদ রাসেলের বিলাসবহুল গাড়িসহ অন্যান্য সম্পদ বিক্রি করে পরিচালন ব্যয় বহন করবে জানিয়ে বিচারপতি বলেন, ‘গ্রাহকদের পাওনা ফিরিয়ে দেয়ার কিছুটা প্রয়াস হলেও রাখব। কিন্তু এটা সময়ের ব্যাপার। অডিট চলার সময় আমরা আরও ভালো চিত্র জানতে পারব।’

ইভ্যালির সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে আদালতের দেয়া নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর এসব কথা জানান বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

একাধিক অভিযোগে গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ রাসেল ও তার স্ত্রী কোম্পানির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন গ্রেপ্তার হন। তার কয়েকমাস আগে থেকেই বেতন পাচ্ছিলেন না কোম্পানির প্রায় দুই হাজার কর্মী। এ অবস্থায় ইভ্যালির অবসায়ন চেয়ে এক গ্রাহকের আবেদনে ২২ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠানটির সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা দেয় হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। পরে ১৮ অক্টোবর ইভ্যালির অবসায়ন এবং তার আগে ইভ্যালির ব্যবসা ও ব্যবস্থাপনা নিয়ন্ত্রণে নিতে চার সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ গঠন করে দেয় হাইকোর্ট।

পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান করা হয় বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিককে এবং রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলনকে করা হয়েছে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক। এছাড়াও সদস্য হিসেবে আছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব রেজাউল আহসান, চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট ফখরুদ্দিন আহম্মেদ ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ।

ইভ্যালির এমডি মোহাম্মদ রাসেল ওই পর্ষদে দায়িত্ব নেয়ার পর প্রায় তিন মাস পার হলেও কোম্পানির নিয়মিত খরচ বহনের কোনো ব্যবস্থা ছিল না জানিয়ে বিচারপতি মানিক বলেন, ‘আদালতের রায়ে দুই কোটি ৩৫ লাখ টাকা পাওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। এটা ইভ্যালির পাওনাদারদের পাওনার তুলনায় খুবই অপ্রতুল।’

ইভ্যালির প্রধান কার্যালয়ে এখন যে ১৫ জন কর্মী কাজ করছেন, তাদের মধ্যে অ্যাকাউন্ট্যান্ট আছেন চারজন। অডিটের জন্য কাগজপত্র তৈরি করতে তাদের কাজে লাগানো হচ্ছে। এছাড়া সাভারের তিনটি গুদামের মালামাল পাহারা দিতে রয়েছেন ১৫ জন নিরাপত্তাকর্মী। তাদের তিন মাস আগে নিয়োগ দেয়া হলেও বেতন দেয়া যায়নি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে দেয়া ইভ্যালির প্রতিবেদন অনুসারে, গত বছর জুলাই পর্যন্ত তাদের দায়-দেনার পরিমাণ ছিল ৫৪৩ কোটি টাকা। এর বিপরীতে তার কী পরিমাণ সম্পদ রয়েছে তার সুস্পষ্ট ধারণা এখনও পাওয়া যায়নি।

বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অন্যান্য ব্যাংককে হাই কোর্ট আদেশ দিয়েছে, রাসেল ও শামীমার সব ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য হাইকোর্টে উপস্থাপন করতে হবে। অন্যান্য কর্তৃপক্ষকেও আদেশ দেয়া হয়েছে যেন তাদের সব সম্পত্তির তথ্য দেয়া হয়।

এদিকে শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ‘ইভ্যালির ওয়েবসাইটটা এখনও খোলা যাচ্ছে না। সার্ভার অ্যামাজনের হাতে। সেখানে অনেক টাকা-পয়সা বাকি পড়ে আছে। এই সার্ভার খুলতে পারলে অনেক তথ্য পাব।’