বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রংপুর অঞ্চলে ৫ লাখ ৩ হাজার ৫৫০ হাজার হেক্টরে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : রংপুর অঞ্চলে চলতি মৌসুমে ৫ লাখ ৩ হাজার ৫৫০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা করেছে কৃষি বিভাগ। এর মধ্যে অনেকেই বোরো ধান লাগিয়েছেন, অনেকেই বীজতলা পরিচর্যা করছেন, আবার কেউ কেউ চারা রোপণ করছেন বাড়তি খরচের চিন্তা মাথায় নিয়েছেন। তবে এবার ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে ধান উৎপাদনে বাড়তি খরচ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন কৃষকরা।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে ৫ লাখ ৩ হাজার ৫৫০ হাজার হেক্টরে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বোরো মৌসুমে এই অঞ্চলে বিদ্যুৎ, ডিজেল ও এনএনপি, সোলার চালিত প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার সেচ চালিত যন্ত্র দিয়ে জমিতে সেচ দেওয়া হয়েছে। এবারও সেই লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। সেই হিসেবে গভীর নলকূপ বিদ্যুৎ চালিত ২ হাজার ৭৭০টি দিয়ে ৬৩ হাজার ৩৯৫ হেক্টর, ডিজেল চালিত ২৩টি গভীর নলকূপ দিয়ে ২৯৫ হেক্টর, এনএনপি বিদ্যুৎ চালিত ৪২টিতে ২৯১ হেক্টর, ডিজেল ৫২৬টি দিয়ে ৭৪৯ হেক্টর, সোলার চালিত ২৫টিতে ৪৯ হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।
অপরদিকে, বিদ্যুৎ চালিত অগভীর ৭১ হাজার ২৫৪টি নলকূপ দিয়ে ২ লাখ ৪ হাজার ৪৭০ হেক্টর, অগভীর ডিজেল চালিত ১ লাখ ৫৫ হাজার ৬৫৯টি সেচ যন্ত্র দিয়ে ২ লাখ ২০ হাজার ১০৩ হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়া হবে। অগভীর ৯৯টি সোলারে ৮০৯ হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

দেখা গেছে, অগভীর ডিজেল চালিত সেচ যন্ত্র দিয়ে ২ লাখ ২০ হাজার হেক্টরের বেশি জমিতে সেচ দেওয়া হবে। ডিজেলের মূল্য ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়েছে। ডিজেল প্রতি কেজিতে ১৫ টাকা বাড়ানোর ফলে কৃষকদের একর প্রতি বাড়তি খরচ পড়তে ৩০০ টাকার ওপরে। সেই হিসেবে প্রতি হেক্টরে বাড়তি খরচ পড়বে আড়াই হাজার টাকার ওপরে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, রংপুর অঞ্চলে ২ লাখ ২০ হাজার হেক্টর জমিতে ডিজেল দিয়ে সেচ দিতে বাড়তি খরচ পড়বে ৬৫ কোটি টকার ওপরে। গত মৌসুমে বোরো ধানের কেজি প্রতি উৎপাদন খরচ ছিল ২৭ টাকা। এবার প্রতি কেজিতে ৩ টাকা বেশি খরচ পড়বে বলে মনে করছেন কৃষকরা।পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুরের কৃষক সহিদুল ইসলাম ও কল্যাণী ফতা এলাকার কৃষক সৈয়দ আলী জানান, ডিজেলের দাম বাড়ায় প্রতি একরে তাদের বাড়তি খরচ হবে ৩০০ টাকা। প্রতি হেক্টরে আড়াই হাজার টাকার ওপরে খরচ হবে। বাড়তি খরচের টাকা নিয়ে তারা চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।

নগরীর কেরানীরহাট এলাকার সাইফুল ইসলাম, হরিদেবপুর এলাকার একরামুল হক, গঙ্গাচড়া এলাকার মোজাম্মেল হক ও সদরের মমিনপুর এলাকার সিরাজুল ইসলাম, সাহজাহানসহ কয়েকজন কৃষক জানান, চলতি মৌসুমে আবহাওয়া এখন পর্যন্ত বোরোর অনুকূলে রয়েছে। আবহাওয়া এমন থাকলে ফলন ভালো হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন। তবে বাড়তি খরচ নিয়ে তারা দুনিশ্চিতায় রয়েছেন। এজন্য সরকারের উর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ওবায়দুর রহমান জানান, চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে বোরো’র উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। বর্তমান যে আবহাওয়া বিরাজ করছে তাতে ধানের বীজতলার ক্ষতি হওয়ার শঙ্কা কম রয়েছে।এব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ি ঢাকা অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (এলআর) কৃষিবিদ আবু সায়েম জানান, কৃষি বিভাগের লোকজন সার্বক্ষণিক মাঠে কাজ করছেন। বোরো ধানের পরিবর্তে কৃষকদের আউস ধান চাষে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর

বন্যায় পিছিয়ে যাওয়া এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

ভারতে মুসলিম আধ্যাত্মিক নেতাকে গুলি করে হত্যা

করোনায় ৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭২৮

শিক্ষক উৎপল হত্যা মামলায় এবার জিতুর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

উত্তরের পথে শঙ্কা ১৪ কিলোমিটার

উত্তরে বইছে তাপপ্রবাহ, কমতে পারে তাপমাত্রা

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর বিএনপি নেতাদের ‘বিষজ্বালা’ বেড়েছে

সম্রাটের জামিন শুনানি পেছালো

মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৫৮

হেনোলাক্সের ব্যবসা বন্ধ হলেও বাড়ি, ফ্যাক্টরি বেড়েছে নুরুলের

করোনা: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

দেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের উদ্বোধন