সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাক্ষী না পেয়ে মেয়রসহ সব আসামির অব্যাহতি চেয়ে প্রতিবেদন

news-image

বরিশাল ব্যুরো : বরিশাল সদর উপজেলার সাবেক ইউএনও এবং দায়িত্বরত আনসার সদস্যদের ওপর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হামলার ঘটনায় করা দুই মামলায় বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহসহ সব আসামির অব্যাহতি চেয়ে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে পুলিশ। বরিশাল অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দুটির তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক লোকমান হোসেন ও পরিদর্শক খন্দকার ফরিদ হোসেন এ প্রতিবেদন দাখিল করেন।

আদালতের বিচারক মো. মাসুম বিল্লাহ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দুটি গ্রহণের বিষয়ে শুনানির জন্য আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন। পাশাপাশি চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিষয়টি মামলার দুই বাদীকে জানাতে নোটিশ জারির নির্দেশ দেন। আজ সোমবার বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) লোকমান হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, যথেষ্ট সাক্ষী না থাকায় মামলাটির চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। প্রতিবেদন আদালত গ্রহণ না করলে পুনরায় তদন্ত হবে। দুই পাতার ওই প্রতিবেদনে বরিশাল সিটি মেয়রসহ ২৮ অভিযুক্তকে মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন জানানো হয়। বরিশালের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে গত ডিসেম্বরে চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয় বলে জানান তদন্তকারী কর্মকর্তা।

প্রথমে মামলার তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন কোতোয়ালী মডেল থানার তৎকালীন পরিদর্শক (অপারেশন) আনোয়ার হোসেন। তিনি বদলি হয়ে গেলে ১৯ নভেম্বর থেকে মামলার তদন্তে ছিলেন লোকমান হোসেন।

২০২১ সালের ১৮ আগস্ট রাতে বরিশাল সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীমের পক্ষের ব্যানার অপসারণ কেন্দ্র করে সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা স্বপন কুমার দাসের সঙ্গে ইউএনও মুনিবুর রহমানের কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও ইউএনওর সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন। পরে সেখানে উপস্থিত আনসার সদস্যদের সঙ্গে হাতাহাতি শুরু হলে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ইউএনওর বাসায় হামলার চেষ্টা চালায়। এ সময় আনসার সদস্যরা গুলি চালালে স্বপনসহ চারজন আহত হন। এ নিয়ে পুলিশ ও সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এ ঘটনায় সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহসহ ২৮ জনের নামে এবং অজ্ঞাত ৭০ থেকে ৮০ জনকে আসামি করে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা করেন ইউএনও মুনিবুর রহমান।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে তৎকালীন ইউএনও মুনিবুর রহমান, কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এই দুই কর্মকর্তা পরবর্তীতে বদলি হয়ে যান। এ ঘটনায় দেশব্যাপী আলোচনার সৃষ্টি হয়। যদিও সরকারে উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশে ঘটনার কয়েকদিনের মধ্যে স্থানীয় প্রশাসন ও মেয়রের মধ্যে বিরোধ মিটিয়ে দেওয়া হয়।

 

এ জাতীয় আরও খবর

সর্বদলীয় সরকার গঠনে বিরোধী দলকে আমন্ত্রণ শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর

টাইগার স্পিনারদের দাপট, ম্যাথিউসের সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার স্বস্তি

বিজেপি নেতাকে কষে চড় মারলেন এনসিপি কর্মী

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মাকে লাথি, মেয়েকে ‘ধর্ষণচেষ্টা’!

ঢাকাবাসীকে ‘স্বস্তির খবর’ দিলো কোয়ালিটি ইনডেক্স

দেশের উত্তরাঞ্চলে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা

ঘুরে ঘুরে ময়লা সংগ্রহ করেন মামুন, বিলান গাছ

ক্ষমতাচ্যুত হতে পারেন পুতিন : ইউক্রেন জেনারের

টিসিবিতে সোমবার থেকে সয়াবিন মিলবে ১১০ টাকায়

সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক হাসপাতালে

ভোটের এক মাস আগেই কুমিল্লায় বিজিবি মোতায়েন

অসুস্থ মঈন খান আইসিইউতে