বৃহস্পতিবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আবারও মুমিনুল বাহিনীর ভাগ্য মুশফিক-লিটনের হাতে!

news-image

বিশেষ সংবাদদাতা : পরপর তিনদিন প্রথম ঘণ্টা তথা সকালের সেশনে ছড়ি ঘোরালেন বোলাররা। প্রথম দু’দিন পাকিস্তানের শাহিন শাহ আফ্রিদি আর হাসান আলি। তাদের ফাস্ট বোলিং তোড় সামলাতে পারেনি মুমিনুলের দল। আর আজ রোববার তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনের নায়ক বাংলাদেশের বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল। তার স্পিন ঘূর্ণিতে বেসামাল পাকিস্তানীরা।

এখন প্রশ্ন হলো আগামীকাল চতুর্থ দিনের প্রথম সেশনে কী হবে? পাকিস্তানী ফাস্টবোলাররা আবার বল হাতে আগুন ঝরাবেন? আগের ৩ দিনের মত চতুর্থ দিনের প্রথম সেশনটিও হবে বোলারদের?

নাকি মুশফিক, ইয়াসির আলি আর লিটন দাস-মেহেদি হাসান মিরাজরা এবার সাহস আর আত্মবিশ্বাস নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন? তুলতে হবে।

এ ম্যাচে নিজেদের অস্তিত্ব ধরে রাখার পাশাপাশি সম্ভাবনা জিইয়ে রাখতে সোমবারের সকালটি দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই-সংগ্রাম করে উইকেটে টিকে থাকা ছাড়া পথ নেই হবে মুশফিক, ইয়াসির আলী, লিটন দাস আর মিরাজ- তাইজুলদের।

তারা কী তা পারবেন? প্রথম ইনিংসে লিটন আর মুশফিকের ২০৬ রানের দীর্ঘ পার্টনারাশিপে কেটেছিল শুরুর বিপর্যয়? এবার দ্বিতীয় ইনিংসে অমন একটি কিংবা অন্তত দেড়শো রানের একটি জুটি হলেও সম্ভাবনার প্রদীপ জেলে থাকবে মুমিনুলদের।

লিটন দাসের অনবদ্য শতরান (১১৪), মুশফিকের লড়াকু ৯২ আর বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুলের ৭ উইকেট- এ ম্যাচে টাইগারদের বড় অর্জন। যার ফলশ্রুতিতে এখনো লড়াইয়ে টিকে আছে মুমিনুল বাহিনী। স্বাগতিকদের শেষ পরিণতি কী? তা অনেকটাই জানা যাবে কাল সকালের সেশনে।

প্রথম দিন ৪৯ রানে ৪ উইকেট পতনের পর কঠিন সংকটে; বিপর্যয়ে লিটন দাস আর মুশফিকুর রহিম পঞ্চম উইকেটে খাদের কিনারায় পড়ে গিয়েও যেভাবে দলকে টেনে তুলেছিলেন, ঠিক তেমন একটি জুটিই গড়ে দিতে পারে ম্যাচের ভাগ্য।

আজ পড়ন্ত বিকেলে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে আবার সেই ভাঙ্গাচোরা অবস্থা টাইগারদের। ২৫ রানে ৪ ফ্রন্টলাইনার সাদমান, সাইফ, শান্ত আর অধিনায়ক মুমিনুল সাজঘরে। মুশফিক আর ইয়াসির আলী প্রাণপন লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন।

এখন চতুর্থ দিন সকালে তারা সে লড়াই অব্যাহত রাখতে পারলেই কেবল জিইয়ে থাকবে জয়ের আশা। অন্যথায় বালির বাঁধের মত ভেঙ্গে পড়বে সব প্রতিরোধ।

আগের দিন ৫৭ ওভারেও একটি উইকেটের পতন ঘটেনি। দুই পাকিস্তানি ওপেনার আবিদ আলি আর আব্দুল্লাহ শফিক ১৪৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়লে রাজ্যের হতাশা এসে ভর করে সমর্থকদের মনে; কিন্তু আজ সে হতাশা কেটে গেছে।

আজ রোববার তাইজুল-মিরাজ আর এবাদত চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন একটুখানি উইকেটের সহায়তা পেলে পাকিস্তানের এই দলটির ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দেয়া সম্ভব। তাইজুলের স্পিন জাদুতে তৃতীয় দিন ৫৮.৪ ওভারে ১৪১ রানে ১০ উইকেট খোয়া গেছে পাকিস্তানিদের।

চতুর্থ দিন শেষ সেশন আর পঞ্চম ও শেষ দিন এই উইকেটে দাঁড়িয়ে থাকা এবং স্বচ্ছন্দে রান করা হবে আরও কঠিন।

তার মানে পাকিস্তানিদের আড়াইশোর মত টার্গেট দিতে পারলেই একটা চ্যালেঞ্জ ছোঁড়া যাবে। ব্যাটাররা কী শেষ পর্যন্ত সে চ্যালেঞ্জ ছুড়তে পারবেন?

 

এ জাতীয় আরও খবর

সৌদি নারী জন্ম দিলেন একসঙ্গে পাঁচ সন্তান

বিএনপির সব কিছুতেই ‘না’: তথ্যমন্ত্রী

ভোটে জিতেই ‘চাঁদাবাজিতে’ নেমে পড়েছেন চেয়ারম্যান

হবু জামাইকে ৩৬৫ পদে আপ্যায়ন করলেন শাশুড়ি (ভিডিও)

আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে মুস্তাফিজ

সাক্ষীর জবানবন্দি পাল্টে ছেলেকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ অমর্ত্যর বাবার

নতুন করে যে ৫ পরামর্শ দিলো কারিগরি কমিটি

এটিএম কার্ড ক্লোনকারী তুর্কি নাগরিক গ্রেপ্তার ঢাকায়

আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে মুস্তাফিজ

বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা : সাক্ষীর জবানবন্দি পাল্টে ছেলেকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ অমর্ত্যর বাবার

১৮ কোটি টাকা সহায়তা পেলেন দেড় হাজার পোশাক শ্রমিক

ইসি আইনের উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি: ওবায়দুল কাদের