মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

খেলার মাঠে প্রবেশ করা সেই যুবক মিরপুর থানায়

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে খেলা চলছিল বাংলাদেশ-পাকিস্তানের। এ সময় হঠাৎ পূর্ব দিকের গ্যালারি থেকে কাঁটাতারের ফেন্সিং (বেড়া) বেয়ে মাঠে ঢুকে পড়েন এক যুবক। মাঠে থাকা পেসার মোস্তাফিজের কাছে ছুটে যান। তাকে সামলাতে মুহূর্তে বিসিবির নিরাপত্তা রক্ষীরাও চলে আসেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই যুবকের নাম রাসেল। তিনি রাজধানীর আদাবরের বাসিন্দা। মোস্তাফিজুর রহমানের বড় ফ্যান। কুমিল্লা শহরে তার বাড়ি। ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

এ ঘটনায় রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিরপুর মডেল থানায় নেওয়া হয়েছে। দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী সাজা হতে পারে তার।

শনিবার (২০ নভেম্বর) রাতে মিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্য জানান।

খেলার মাঠে প্রবেশ করা সেই যুবক মিরপুর থানায়

তিনি বলেন, মাঠে প্রবেশ করা যুবক রাসেলকে স্টেডিয়ামে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যরা থানায় নিয়ে এসেছেন। তিনি এখন আমাদের হেফাজতে। কিছুক্ষণের মধ্যে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। কেন মাঠে প্রবেশ করেছিলেন, তার কোনো উদ্দেশ্য ছিল কি না এসব বিষয়ে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

ওসি আরও বলেন, ওই যুবক টিকিট কেটেই স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেছিলেন। তিনি তার জায়গায় খেলা দেখছিলেন। কিন্তু খেলা চলাকালীন হঠাৎ করে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছেন।

পাকিস্তানের ইনিংসের ১৩তম ওভার যখন শেষ হয়, পরের ওভারটি করার জন্য বোলিং মার্কের কাছাকাছি যাচ্ছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। তখনই ঘটনাটি ঘটে।

দেখা যায় নর্দার্ন গ্যালারির প্রায় ১২ ফুট উঁচু নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেদ করে মাঠে ঢোকার চেষ্টা করেন ওই যুবক। তাকে থামাতে ছুটে যান পাঁচ-ছয় জয় মাঠকর্মী।

কিন্তু একরকম ফুটবল স্কিল দেখিয়ে তাদের কাটিয়ে বিলবোর্ড লাফিয়ে সরাসরি মাঠেই ঢুকে পড়েন তিনি। তাকে ঢুকতে দেখে খেলোয়াড়রা সবাই চলে যান মাঝ মাঠের দিকে। খানিক এগিয়ে আটকানোর চেষ্টা করেন আম্পায়ার তানভীর আহমেদ। নাছোড়বান্দা সেই দর্শক মোস্তাফিজের সামনে গিয়ে লুটিয়ে পড়েন।

ততক্ষণে মাঠে আসেন নিরাপত্তাকর্মীরা। সেই দর্শককে টানতে টানতে কিউরেটরের কক্ষের পাশের গেট দিয়ে বাইরে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। প্রায় ৭-৮ মিনিট বন্ধ থাকার পর শুরু হয় খেলা। কিন্তু ১৪তম ওভারের এক বল করে মাঠ ছেড়ে চলে যান মোস্তাফিজ। তার ওভারের বাকি বলগুলো করেন শরিফুল ইসলাম।

ম্যাচ শেষে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান চিকিৎসকের সঙ্গে। তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, জৈব সুরক্ষা বলয়ের বাইরের একজন ব্যক্তি মোস্তাফিজের এতোটা কাছাকাছি আসার পর এখন পরবর্তী ব্যবস্থা কী হবে? সরাসরি উত্তর দিতে পারেননি দেবাশিষ। তবে জানিয়েছেন, পুরো দলেরই করোনা পরীক্ষা করানো হবে।

 

এ জাতীয় আরও খবর