বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাবিতে রাত সাড়ে ৮টার পর বন্ধ থাকবে সব দোকান

news-image

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : মাদকের বিস্তার ঠেকাতে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ দোকান বন্ধে নতুন নিয়ম করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) প্রশাসন। নতুন নিয়ম অনুযায়ী রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে দোকানগুলো বন্ধ করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এস্টেট দপ্তরের সহকারী রেজিস্ট্রার জাহিদ আলী সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বুধবার (১৭ নভেম্বর) থেকে এ নির্দেশনা কার্যকর হচ্ছে।

আদেশে বলা হয়েছে, এস্টেট উপদেষ্টা কমিটির এক সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে সব দোকান রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত হয়। কোনো অবস্থায় নির্ধারিত সময়ের পরে দোকান খোলা রাখা যাবে না। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে যদি দোকান বন্ধ করা না হয় তাহলে আর্থিক জরিমানা করা হবে।

এ আদেশে ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন দোকানিরা। ক্যাম্পাসের স্থায়ী দোকানমালিক সমিতির সভাপতি জাহিদ হাসান বলেন, ‘আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব আদেশ মানতে বাধ্য। তবে দোকানের মালপত্র গুছিয়ে নিতেও বেশ সময় লাগে। সেক্ষেত্রে সময়টা সাড়ে ৮টা থেকে ৯টা করলে ভালো হতো।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন দোকানদার জাগো নিউজকে বলেন, করোনাকালীন প্রায় ১৮ মাস ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়তে হয়েছে। এর মধ্যেই এমন নির্দেশনা দিলো প্রশাসন।

এস্টেট উপদেষ্টা কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাগো নিউজকে বলেন, কিছু দোকানে রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মাদক ও কিছু নেশাজাতীয় দ্রব্য বিক্রি হওয়ার অভিযোগ পেয়েছি আমরা। দোকানগুলো বন্ধ না করলে এগুলো ঠেকানো সম্ভব হবে না। তাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে দোকানগুলো বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

রাবিতে রাত সাড়ে ৮টার পর বন্ধ থাকবে সব দোকান

স্টেট দপ্তরের সহকারী রেজিস্ট্রার জাহিদ আলী বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে তিনি বিষয়টি প্রক্টর দপ্তরের সিদ্ধান্ত বলে দাবি করেন। এর বাইরে অতিরিক্ত কথা বলতে রাজি হননি তিনি।

দোকান বন্ধের নির্দেশনার ব্যাপারে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক লিয়াকত আলী জাগো নিউজকে বলেন, ক্লাস চলার একটি সময়সীমা আছে। ক্যাম্পাসও একটা শৃঙ্খলার মধ্যে আসা দরকার। সেটি চিন্তা করেই দোকানগুলো বন্ধের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে।

মাদকের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এস্টেট দপ্তর সাধারণত ক্যাম্পাসের স্থাপনাগুলো দেখে এবং পরিচালনা করে। সভায় অনেক বিষয় আলোচনা হয় আর তার পরিপ্রেক্ষিতেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। মাদকের ব্যাপারটি ছিল কিনা তারাই বলতে পারবেন।