বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইল-অরুয়াইল সড়কে চলাচলরত মানুষের দূর্ভোগ যেন ভাগ্যের লিখন

news-image

তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল উপজেলার হাওড় বেষ্টিত ভাটি অঞ্চলের মানুষের চলাচলের জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে সরাইল- অরুয়াইল সড়ক। চুন্ডা-পাকশিমুল ও অরুয়াইল ইউনিয়নের জেলা ও উপজেলার সাথে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগের একমাএ সড়ক এটি। সড়কটি তৈরি হওয়ার পর থেকে প্রতিবছর বিভিন্ন অংশে মেরামত করছেন স্হানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ব্রাহ্মণবাড়িয়া। অভিযোগ রয়েছে, দরপএ মার্ধ্যমে পাওয়া ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের নিম্ন মানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক মেরামতের কাজ করার কারণে বর্ষা মৌসুমে দু’দিকের পানির ঢেউয়ের সড়কের প্রায় অংশ ভেঙ্গে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, সড়কটির চুন্টা ব্রীজ থেকে ভৃইশ্বর বাজার পর্যন্ত অর্ধ-কিলোমিটার জায়গা বিভিন্ন স্হানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া দীর্ঘ এই সড়কটির মূল ব্যাসার্ধের দুপাড়ের মাটি ভেঙ্গে খোয়া-বিটুমিন সরে যাওয়ায় যানচলাচলে দেখা দিয়েছে বড় সমস্যা। বালু আর খোয়া একাকার হয়ে বেহাল দশার কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। হাওড় অঞ্চলের ব্যস্ততম সড়কটির খানা-খন্দে কারণে একপাশ থেকে গাড়ি আসলে অন্যপাশের গাড়িকে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এ সময় সৃষ্ট যানজট কর্মজীবী লোকজন সময়মতো অফিসে বা বিভিন্ন কাজে জেলা বা উপজেলায় পৌঁছাতে পারেন না এমন অভিযোগ অনেকের। প্রায়সময়ই উল্টে যাচ্ছে পণ্যবাহী গাড়ি, আটকে পড়ছে সিএনজি অটোরিকশাসহ রোগীবাহী গাড়ি। লক্ষাধিক মানুষের প্রতিদিনের দুর্ভোগ যেন ভাগ্যের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এপথে প্রতিনিয়ত চলাচলরত সিএনজি চালক মহসিন মিয়া বলেন, উপজেলা সদরসহ জেলা শহরের সাথে মানুষের যোগাযোগের একমাএ সড়ক এটি। আমরা উপজেলাসদর থেকে অরুয়াইল বাজার পর্যন্ত প্রতিনিয়তই যাএী এই সড়কে চলাচল করি।বর্তমানে এটির অনেক অংশ ভেঙ্গে সরো হয়ে গেছে। প্রায় সময় ঘটছে দূর্ঘটনা। গন্তব্যে যেতে দুইগুণ বেশি সময় লাগছে। ধূলার কারণে গর্ত দূর থেকে বুঝা যায়না, সব সাদা হয়ে যায়। আসলে সড়কটি এখন “মরণ ফাঁদে” পরিণত হয়েছে।

পণ্যবাহী গাড়ি ড্রাইভার সিদ্দিকুর রহমান বলেন, মাল নিয়ে এই সড়কে আমাদের অনেক ভয় করে। বালুর কারণে বড় বড় গর্ত বুঝা যায়না। মালিক আর ব্যবসায়ীদের অনুরোধে আসতে হয়। প্রায়ই পিকআপসহ পণ্যবাহী গাড়ি উল্টো যাচ্ছে। সড়কটি দ্রুত মেরামত না করলে আর মাল নিয়ে আসা সম্ভব না।

ষাট বছরের বৃদ্ধ আলফা মিয়া বলেন, গেছলাম ডাক্তারের কাছে গেছলাম, এখন গাতার কারণে ডরে গাড়ি তেকে নাইমা গেলাম, কোন সময় সিএনজি উল্ডাইয়া পইরা মরি। এইডা এখন আর রাস্তা না মরণের ফাঁদ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্হানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: শিরাজুল ইসলাম বলেন, সড়কটি মেরামত জন্য প্রায় ৪ কোটি টাকার কাছাকাছি দরপএ আহবান করা হচ্ছে। অচিরের সড়কটি মেরামত ব্যবস্হা করা হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

বোমা আতঙ্কে জরুরি অবতরণ, উড়োজাহাজে তল্লাশি

এইচএসসি পরীক্ষা : কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশ নয়

এইচএসসি পরীক্ষা, রংপুর বিভাগে অংশগ্রহণ নিবে ১লাখ ১৬ হাজার পরীক্ষার্থী

মুজিব শতবর্ষ ও বিজয় দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তীতে রংপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বস্তাভর্তি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

৭৯ শতাংশ করদাতা এখনও রিটার্ন দেননি

বয়স্ক নারীদের যেসব খাবার খাওয়া জরুরি

শীতের মৌসুমে ভ্রমণের জন্য ৫ জায়গা

সব বয়সের জন্য ভিন্ন স্বাদের গাজরের সন্দেশ

প্রতিশ্রুতি রক্ষায় নাইট গার্ডের দায়িত্বে ইউপি চেয়ারম্যান

বন্ধ হচ্ছে অবৈধ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের মৃত্যুতে জবির শোক