বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কেন্দ্রে কেউ নিহত হননি, ভোট উৎসবমুখর হয়েছে: ইসি সচিব

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : সারা দেশে দ্বিতীয় ধাপে ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিনভর নানা সহিংসতার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ভোটগ্রহণ। মারা গেছেন অন্তত ৭ জন। তবে নির্বাচন কমিশন (ইসি) বলছে, ভোট উৎসবমুখর হয়েছে। আর সংঘর্ষ ও নিহতের ঘটনাগুলো ভোটকেন্দ্রের বাইরে ঘটেছে।

ভোটগ্রহণ শেষে ইসি সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ভোট কেন্দ্রের বাইরে প্রার্থীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং তাঁদের মধ্যেই সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়।

আজ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটে অন্তত দশটি কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব। এসব কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দিয়েছেন প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা। পরবর্তীতে এসব কেন্দ্রের ভোট নেওয়া হবে।

সারা দেশে কয়েকটি জায়গায় সংঘর্ষ ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে দাবি কর হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, মোট যে ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হয়েছে আমরা সব জেলায় খবর নিয়েছি, প্রার্থীরাও কেউ কেউ আমাদের অভিমত ব্যক্ত করেছেন। আমরা জানতে পেরেছি ভোটটি খুব সুন্দর হয়েছে, উৎসবমুখর হয়েছে।

ভোট কেন্দ্রের বাইরের সংঘর্ষ ঘটলে সেটি নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ারের বাইরে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ২০১৬ সালে যে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়েছে সেসব নির্বাচনের ডেটাগুলো আপনাদের মাধ্যমেই আমরা নিয়েছি। সে তথ্যে আমরা দেখেছি, মোট ৮৪ জন মানুষ মারা গেছেন। কিন্তু এবার আজকে যে ছয়জন মানুষ মারা গেছেন সেটি নিঃসন্দেহে কমিশনের জন্য দুঃখজনক ব্যাপার। এটি নির্বাচন কমিশনের কাছে জেলা প্রশাসক এবং রিটার্নিং কর্মকর্তারা যেভাবে ফোর্স চেয়েছেন আমরা সেটি মোতায়েন করেছি। আমরা মনে করি, এখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ম্যাজিস্ট্রেট, রিটার্নিং অফিসার এবং নির্বাচনী কর্মকর্তা সবাই অত্যন্ত সক্রিয় ছিলেন এবং তাঁরা চেষ্টা করেছেন ভালো কাজ করার জন্য। সে কারণে ভোটটি সুষ্ঠু হয়েছে।

রক্তপাতে প্রথমকে ছাড়িয়ে গেল দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনরক্তপাতে প্রথমকে ছাড়িয়ে গেল দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন
ইসি সচিব মনে করেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ঘরে ঘরে প্রতিযোগিতা হয়, পাড়ায় পাড়ায় প্রতিযোগিতা হয়। একটি পাড়া আরেকটি পাড়ার ওপর প্রভাব বিস্তার করতে চায়। এই প্রভাব বিস্তার করার একটি প্রতিযোগিতা নির্বাচনে থাকে। প্রার্থী যারা, তাঁরা কিন্তু অতি আবেগী হয়ে যান বিজয়ের জন্য। এসব কারণেই কিন্তু এই নির্বাচনে সহিংসতা হয়ে থাকে।

কত শতাংশ ভোট পড়েছে জানতে চাইলে হুমায়ুন কবীর খোন্দকার জানান, এই মুহূর্তে বলা কঠিন, যেহেতু ভোট গণনা হচ্ছে। আমরা এ পর্যন্ত যে তথ্য পেয়েছি-৬৫ থেকে ৭০ ভাগ ভোট কাস্ট হয়েছে।