রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন উদ্যমে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন তিস্তাপাড়ের কৃষকরা

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : আকস্মিক বন্যায় তিস্তা নদী তীরবর্তী রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলায় নদী ভাঙ্গনসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে স্বপ্ন ভেঙে গেছে তিস্তাপাড়ের কৃষকদের। তারা হতাশ হয়ে পড়লেও এখন নতুন উদ্যমে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। আবারও ফসল বুনতে শুরু করেছেন। এদিকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলার প্রায় ১০ হাজার কৃষককে প্রনোদনার আওতায় আনছে সরকার।

সরেজমিনে গঙ্গাচড়া উপজেলার চর ইচলী, চল্লিশসাল, মর্ণেয়া, বিনবিনা, গজঘন্টা, পীরগাছা উপজেলার শিবদেব, ছাওলা ও গাবুড়া চরসহ বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, তিস্তার আকস্মিক বন্যার পর পানি নেমে যাওয়ায় ক্ষতচিহ্ন ভেসে ওঠেছে। কোথাও কোথাও এখনও পড়ে আছে বিধ্বস্ত বাড়িঘর। তিস্তার বালুতে চাপা পড়ে আছে কৃষকের ফসলী ক্ষেত। কৃষকেরা সেই বালু কাঁচি ও কোদাল দিয়ে সরানোর চেষ্টা করছেন। আবার কোথাও পানি নেমে যাওয়ার পর নতুন ফসল রোপণের কাজ করছেন তারা।

খোঁজ নিযে জানা গেছে, গত ২০ অক্টোবর উজানের ঢলে তিস্তা অববাহিকায় বিপৎসীমার এ যাবতকালের সবোর্চ্চ রেকর্ড ভেঙে ৬০-৭০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছিল। পানির স্রোতে তিস্তা তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে দেখা দেয় আকস্মিক বন্যা। দুদিন পরই ফুলেফেঁপে ওঠা তিস্তার বুক থেকে পানি কমতে শুরু করে। এতে রংপুরের পীরগাছা, কাউনিয়া ও গঙ্গাচড়া উপজেলার নদী তীরবর্তী অর্ধশতাধিক গ্রামের কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।এর মধ্যে গঙ্গাচড়া উপজেলায় ৩৫টি, কাউনিয়া উপজেলায় ১০টি ও পীরগাছা উপজেলার ৫টি গ্রাম হাঁটু থেকে কোমর সমান পানিতে ডুবে যায়। পানি দ্রুত নেমে গেলেও ধান, আগাম আলু, মরিচ ও চিনা বাদামসহ উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক বন্যায় রংপুরের তিন উপজেলা গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছায় দুই হাজার ৫০৫ হেক্টর জমির রোপা আমন, ৩৫ হেক্টর জমির মরিচ, ৬২ হেক্টর জমির চিনা বাদাম ও ৪৮ হেক্টর জমির চিনা বাদাম পানিতে নিমজ্জিত হয়েছিল। এতে ৩৪৫ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে। এর মধ্যে ৩২৯ হেক্টর জমির আমন, মরিচ ৩০ হেক্টর, চিনা বাদাম ৬০ ও শাক সবজি ২৬ হেক্টর রয়েছে। এছাড়াও কিছু আলু ক্ষেত নষ্ট হয়েছে।

তবে কৃষি বিভাগের এই তথ্য মানতে নারাজ রংপুরের তিস্তাপাড়ের তিন উপজেলার কৃষকরা। তারা বলছেন, অসময়ে তিস্তার আকস্মিক বন্যায় ক্ষতির পরিমান আরও কয়েক গুণ বেশী।
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পীরগাছা উপজেলার ছাওলা গাবুড়া চরের কৃষক সেকেন্দার আলী মিয়া জানান,বাজারে আগাম মরিচ বিক্রি করে লাভের স্বপ্ন দেখছিলেন তিনি। কিন্তু তিস্তার আকস্মিক বন্যায় তার সেই স্বপ্ন ভেঙে গেছে। এতে তিনি হতাশ হয়ে পড়লেও আবার নতুন উদ্যমে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। একই কথা বলেন, গাবুড়ার নেছাম উদ্দিন বাজার এলাকার জয়নাল আবেদীন নামের আরেক কৃষক।

গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষীটারি ইউনিয়নের চল্লিশসাল গ্রামের বক্কর মিয়া ও মর্ণেয়ার চরের আলমগীর হোসেন, চর ইচলীর লুৎফর রহমানসহ গঙ্গাচড়া উপজেলা ও কাউনিয়ার বেশ কয়েকজন কৃষক জানান, বন্যায় তাদের ধান, আলু, সবজি, বাদামসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এতে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। দেনায় পড়েছেন। তার পরেও আবার নতুন করে চাষাবাদ শুরু করেছেন।গঙ্গাচড়া উপজেলা কৃষি অফিসার শরিফুল ইসলাম জানান, ‘আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার চরাঞ্চলে সকল ফসলের আবাদ ভাল হয়েছিল। আকস্মিক বন্যায় কৃষির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সাধারণত এ সময়ে বন্যা হয় না। কৃষকদের ঘুরে দাঁড়াতে কৃষি অধিদপ্তর থেকে নানা পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

এদিকে রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ওবায়দুর রহমান ম-ল বলেন, রংপুরে রবি মৌসুমে ছয়টি ফসলের যে কোন একটির জন্য ৩৫ হাজার কৃষককে প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলার প্রায় ১০ হাজার কৃষক এই প্রণোদনার আওতায় আসবে। এতে কৃষকদের মাঝে বিভিন্ন ফসলের সার ও বীজ সহায়তা দেওয়া হবে।