শুক্রবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছানার পানি থেকে পানীয়

news-image

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক : দুগ্ধশিল্পের একটি প্রধান উপজাত হলো দুধের হোয়ে বা ছানার পানি। দুধ থেকে ছানা আলাদা করার পর যে সবুজাভ জলীয় অংশ পাওয়া যায় তাকে দুধের হোয়ে বা ছানার পানি বলা হয়। দুধের উপজাত হোয়ে পানি ল্যাকটোজ, অ্যালবুমিন, গ্লোবিউলিন, বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ পদার্থসহ বিভিন্ন পুষ্টিকর উপাদানের উৎস। দেশের বেশিরভাগ শিল্পকারখানাগুলোতে দুধের এই উপজাত হোয়েকে ফেলে দেওয়া হয়। হোয়ে পানি থেকে স্বাস্থ্যসম্মত পানীয় উদ্ভাবনে সক্ষম হয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ডেইরি বিজ্ঞান বিভাগের একদল গবেষক।

গবেষণায় নেতৃত্ব দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. হারুন-অর-রশিদ। গবেষক দলে রয়েছেন একই বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আশিকুল ইসলাম ও প্রভাষক মো. জাকিরুল ইসলাম।

গবেষক দল হোয়ে পানির সঙ্গে আনারসের জুসের মিশ্রণে স্বাস্থ্যসম্মত একটি প্রোবায়োটিক পানীয় উদ্ভাবনে সক্ষম হয়েছেন। গবেষণা নিবন্ধটি সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে (জার্নাল অব অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড ফুড রিসার্চ) প্রকাশিত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) অর্থায়নে একটি প্রকল্পের আওতায় ২০১৭ সাল থেকে গবেষণা কার্যক্রমটি পরিচালিত হয়ে আসছে। গবেষক দল হোয়ে পানি ও আনারসের জুসের বিভিন্ন অনুপাতের মিশ্রণ নিয়ে গবেষণা করেন। গবেষণায় ২৫ ভাগ হোয়ে পানির সঙ্গে ৭৫ ভাগ আনারসের জুসের মিশ্রণটি সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে।

গবেষক দলের প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মো. হারুন-অর-রশিদ বলেন, দুগ্ধশিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে উপজাত হিসেবে প্রচুর পরিমাণে হোয়ে পানি উৎপন্ন হয়। এক কেজি পনির তৈরি করতে প্রায় নয় কেজি হোয়ে পানি উৎপন্ন হয়। এই হোয়ে পানিকে প্রক্রিয়াজাত করে মানুষের পুষ্টির চাহিদা মেটানোর উদ্দেশ্যে গবেষণাটি শুরু করা হয়। হোয়ে পানি ল্যাকটোজ, অ্যালবুমিন, গ্লোবিউলিন, বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ পদার্থসহ বিভিন্ন পুষ্টিকর উপাদানের ভালো উৎস।

তিনি আরও বলেন, প্রোবায়োটিক পানীয়টিতে হোয়ে পানির পাশাপাশি আনারসের জুস ব্যবহার করা হয়েছে। আনারসে ব্রোমিলিন নামে একটি এনজাইম থাকে যা মানুষের খাবার হজমে সহায়তা করে। এছাড়া আনারসে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন (ভিটামিন এ, বি ও সি), খনিজ পদার্থ (ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম ও আয়রন) বিদ্যমান। তাই উদ্ভাবিত প্রোবায়োটিক পানীয়টি খুবই স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিমানসম্পন্ন।

গবেষক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আশিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে ভোক্তারা স্বাস্থ্য সচেতন। তাই প্রোবায়োটিক পানীয় হিসেবে হোয়ে পানির বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে। উদ্ভাবিত এই প্রোবায়োটিক পানীয়টি একদিকে দুগ্ধশিল্পের উপজাত নিয়ন্ত্রণের ভালো সমাধান, অন্যদিকে মানুষের জন্য হবে একটি পুষ্টিকর ও কার্যকরী কোমল পানীয়।

উদ্ভাবিত প্রোবায়োটিক পানীয়তে ছয় থেকে সাত সপ্তাহ পর্যন্ত উপকারী প্রোবায়োটিক সেল বেঁচে থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে জানিয়ে গবেষক মো. জাকিরুল ইসলাম বলেন, উদ্ভাবিত প্রোবায়োটিক পানীয়টি ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ৬ থেকে ৭ সপ্তাহ পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যাবে। এ সময়ের মধ্যে ভোক্তারা প্রোবায়োটিক পানীয় গ্রহণের মাধ্যমে প্রোবায়োটিকের উপকার লাভ করতে পারবেন।

এ জাতীয় আরও খবর

এফডিসিতে ঢুকে মনে হচ্ছে যুদ্ধ হবে : ইলিয়াস কাঞ্চন

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ভোটগ্রহণ চলছে

র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে ইইউ পার্লামেন্ট সদস্যের চিঠি ‘ব্যক্তিগত’ : রাষ্ট্রদূত

লাল না সবুজ, কোন আপেলে বেশি পুষ্টি?

বিএনপি লবিস্ট নিয়োগ করে র‍্যাবের বিরুদ্ধে এ ঘটনা ঘটিয়েছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কেনিয়ায় জনপ্রিয় ফুটবল ভক্তকে নিজ বাসায় কুপিয়ে হত্যা

অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতার আবেদনের সময় বাড়াল কাতার

দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার, সঠিক তদন্ত চান শিক্ষামন্ত্রী

ক্ষমতায় গেলে র‌্যাব-পুলিশের খারাপ সদস্যদের বাদ দেওয়া হবে : গয়েশ্বর

বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের টাকার পাই পাই হিসাব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

গাঁজা খেলে যৌনসুখ বাড়ে!

গণধর্ষণের পর চুল কেটে ঘোরানো হলো রাস্তায়