মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রংপুর বিভাগে বাস-ট্রাক ধর্মঘট: চরম বিপাকে পড়েছে সাধারণ যাত্রীরা

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল, রংপুর : দেশের অন্যান্য জেলার মতো রংপুরেও চলছে অনির্দিষ্টকালের বাস-ট্রাক পরিবহন ধর্মঘট। প্রতি লিটারে কেরোসিন ও ডিজেলের দাম ১৫ টাকা বৃদ্ধির প্রতিবাদে রংপুর বিভাগীয় ও জেলার পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠনের নেতারা ধর্মঘটের এ ডাক দেয়। ধর্মঘটের কারণে বাস-ট্রাক-ট্যাংকলরিসহ পণ্যবাহী পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে সড়কে সরকারী বিআরটিসি বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন পরীক্ষার্থী ও চিকিৎসা সেবা প্রত্যাশীসহ রংপুরসহ বিভাগের সাধারণ যাত্রীরা। তাছাড়াও পরিবহন চলাচল না করায় এ অঞ্চলের কৃষক-ব্যবসায়ীরা শাক-সবজিসহ কৃষিপণ্য ও কাঁচামাল সরবরাহ ব্যহত হচ্ছে।

জানা গেছে, শুক্রবার ভোর থেকে একযোগে রংপুর বিভাগের সকল জেলায় শুরু হয়েছে অনির্দিষ্টকালের বাস-ট্রাকসহ পরিবহন ধর্মঘট। সকাল থেকে রংপুরের বিভিন্ন মহাসড়কে অবস্থান নেয় মালিক শ্রমিকরা। ফলে মহাসড়ক গুলোতে সবধরনের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

সরেজমিনে শুক্রবার ভোর থেকে দুইটা পর্যন্ত রংপুর নগরীর কামারপাড়া কোচ স্ট্যান্ড, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, ট্রাক টার্মিনাল, কুড়িগ্রাম বাস টার্মিনাল, মর্ডাণ মোড় ও পার্কের মোড়সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কোনো বাস ও ট্রাক চলাচল করছে না। তবে বিচ্ছিন্নভাবে কিছু গাড়ি রাস্তায় নেমেছে। বাস-ট্রাকসহ পরিবহন ধর্মঘটের কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। ছোট ছোট যানবাহনে গন্তব্যে ছুটছেন তারা। এতে গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।সব মিলিয়ে হঠাৎ এই ধর্মঘটে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন চিকিৎসা সেবা প্রত্যাশী, পরীক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষজন।

নগরীর টার্মিনালে অবস্থিত কেন্দ্রীয় বাসস্ট্র্যান্ডে কথা হয় মুরসালিন মুন্না ও রেজা আহমেদ নামের দুই জনের সাথে। তারা জানান, হঠাৎ ডিজেলসহ জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে যে ধর্মঘট চলছে এতে আমরা সাধারণ মানুষ বিপাকে পড়েছি। বিষয়টি নিয়ে দ্রুত হস্তক্ষেপ করার জন্য সরকারের প্রতি আনুরোধও জানান তারা।নগরীর মর্ডাণ মোড়ে কথা হয় শাপলা খাতুন ও হাজেরা বেগম নামের দুইজনের সাথে। তারা জানান, তাদের বাড়ি পীরগঞ্জ উপজেলায়। তারা চাকুরীর পরীক্ষা দিতে এসেছেন। বাস চলাচল না করায় তারা অটোতে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে এসেছেন।

শুক্রবার বিকেলে নগরীর কামারপাড়া ঢাকা কোচ স্ট্যান্ডে কথা হয় হাসান মাহফুজ ও আতিকুর রহমান সাগর নামের নামে দুই চাকরিজীবীর সাথে। তারা জানান, রংপুরে এসেছিলেন তাদের এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে। ঢাকায় ফিরতে দুদিন আগে টিকেটও কেটে রেখেছিলেন। কিন্তু ধর্মঘটের কারণে তারা বিপাকে পড়েছেন। সেই সাথে সঠিক সময়ে ঢাকায় যেতে না পারলে চাকুরী হারানোরও ভয় কাজ করছে।নগরীর টার্মিনালে কথা হয় বাস চালক টিটু মিয়া ও আবুল হোসেনের সাথে তারা জানান, সরকার কোনো ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ করে কেরোসিন ও ডিজেলের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এতে আমার বিপাকে পড়েছি।

আবু বক্কর, রহেদুল ইসলাম ও মনিরুল মিয়াসহ বেশ কয়েকজন শ্রমিক জানান, হঠাৎ তেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বেড়েছে, যা খুবই অস্বাভাবিক। এ অবস্থায় আমাদের বর্তমান ভাড়ার সঙ্গে তেলের দামের কোনও সমন্বয় হচ্ছে না। ভাড়া না বাড়ালে পরিবহন মালিকদের লোকসানের মুখে পড়তে হবে।শ্যামলী পরিবহনের চালক আল-আমিন বলেন, যে হারে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয়েছে, তাতে পরিবহন চালানো আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। হঠাৎ ডিজেলের এ দামবৃদ্ধির কোনো যৌক্তিকতা নেই।

কামারপাড়া কোচস্ট্যান্ডে এনা পরিবহনের কাউন্টারের সহকারী ম্যানেজার তোতা মিয়া বলেন, ‘তেলের দাম বাড়বে কিন্তু এভাবে হঠাৎ লিটার প্রতি ১৫ টাকা বাড়ানো কতখানি যৌক্তিক? আমরা তেলের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে ধর্মঘট পালন করছি। এখন বাস ভাড়া না বাড়ানো ছাড়া আমাদেরও উপায় থাকবে না। কিন্তু আমরা যাত্রীদের সুবিধার্থে তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তটি সরকারকে পুনর্বিবেচনা করার দাবি করছি।

রংপুর জেলা পণ্যবাহী ট্রাক ও ট্যাংক লরি শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মানিক জানান, জ্বালানী তেলের দাম বাড়ানোর কারণে ভাড়া পুনর্র্নিধারণের দাবিতে বিভিন্ন জেলায় যাত্রী পরিবহন বন্ধের ঘোষণা এসেছে। রংপুরেও চলছে।রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘সমস্যাটা জাতীয়ভাবে সমাধান হবে। স্থানীয়ভাবে কিছু করার নেই। তবে আমরা খেয়াল রাখছি, যেন ধর্মঘটের নামে অপ্রীতিকর কিছু না ঘটে।’

উল্লেখ্য, বুধবার (০৩ নভেম্বর) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের একটি গেজেটে লিটার প্রতি ১৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে প্রতি লিটার কেরোসিন ও ডিজেল বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা করে। এর আগে প্রতি লিটার ডিজেল ও কেরোসিন বিক্রি হতো ৬৫ টাকা করে।

এ জাতীয় আরও খবর