বৃহস্পতিবার, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প অনুমোদন না দেয়ার দাবি টিআইবির

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : কয়লাভিত্তিক জ্বালানি ব্যবহার বন্ধ করে নবায়নযোগ্য জ্বালানি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ২০২১ সালের পর কয়লানির্ভর নতুন কোনো বিদ্যুৎ প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থায়ন না করার দাবি জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। পাশাপাশি গ্লোবাল ক্লাইমেট ফান্ডসহ (জিসিএফ) জলবায়ু তহবিলে ঋণ কিংবা বীমা নয়, অভিযোজনকে অগ্রাধিকার দিয়ে অধিক কার্বন নিঃসরণকারী উন্নত রাষ্ট্রগুলোকে অনুদান হিসাবে ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদানের জোর দাবি জানায় সংস্থাটি।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের গ্লাসগোতে আসন্ন কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলন নিয়ে টিআইবি অবস্থান ও সুপারিশপত্র প্রকাশের জন্য ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান টিআইবির ক্লাইমেট ফাইন্যান্স পলিসি ইন্টিগ্রিটি প্রকল্পের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. মাহফুজুল হক।

জাতিসংঘ পরিবেশ র্কমসূচীর ‘দ্য প্রোডাকশন গ্যাপ রিপোর্ট ২০২১-এর তথ্য উল্লেখ করে সংস্থাটি জানায়, ভারত ও চীনসহ ১৫টি দেশ ২০৩০ সাল নাগাদ জীবাশ্ম জ্বালানি উৎপাদন ও ব্যবহার ১১০ ভাগ বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে। এর মধ্যে কয়লার উৎপাদন বাড়ানোর পরিকল্পনা হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ঝুঁকিতে থাকা বাংলাদেশও হাঁটছে এই উল্টো পথে। রামপাল, মাতারবাড়ি, বাঁশখালী প্রকল্পসহ ১৯টি কয়লা ও এলএনজিভিত্তিক প্রকল্প বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে দেশে। যার বড় অংশই আবার উপকূলীয় জেলায়। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ৬৩ গুণ বৃদ্ধি পাবে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে বছরে ১১৫ মিলিয়ন টন বাড়তি কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণ করবে। ফলে বাংলাদেশ এশিয়ার অন্যতম কয়লা দূষণকারী দেশে রূপান্তরিত হবে। যা কার্বন নিঃসরণ কমানো সংক্রান্ত সরকারের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গীকারের সাথে সাংঘর্ষিক।

‘তাই ২০২১ সালের পর কয়লা জ্বালানি নির্ভর নতুন কোনো প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থায়ন না করার ঘোষণা প্রদানের পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কার্যকর নীতি ও বিনিয়োগের দাবি জানায় সংস্থাটি।’

আসন্ন জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলন-কপ ২৬ উপলক্ষে ১৪ দফা দাবি জানায় টিআইবি।

দাবিগুলো হলো- জলবায়ু বিষয়ক নীতি নির্ধারণে জীবাশ্ম জ্বালানি কোম্পানিগুলোর অনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে হবে, ২০৫০ সালের মধ্যে ‘নেট জিরো’ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আইএনডিসিসহ প্রশমন বিষয়ক সকল কার্যক্রমে উন্নত দেশগুলোর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে, ২০৫০ সালের মধ্যে নবায়নযোগ্য উৎস থেকে শতভাগ জ্বালানি উৎপাদনে উন্নত দেশগুলোকে পর্যাপ্ত জলবায়ু তহবিল ও প্রযুক্তি হস্তান্তর এবং কারিগরি সহায়তা প্রদানে সিভিএফ এর পক্ষ থেকে সমন্বিতভাবে দাবি উত্থাপন করতে হবে, দুর্যোগের ক্ষয়-ক্ষতি মোকাবেলায় একটি ক্ষয়-ক্ষতি বিষয়ক আলাদা তহবিল গঠন করতে হবে।

এছাড়া বাংলাদেশের জন্য বাস্তবায়নযোগ্য সুপারিশের মধ্যে রয়েছে- বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানির উৎপাদন বৃদ্ধিতে এখাতের জন্য স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি সময়াবদ্ধ পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে এবং সুনির্দিষ্ট রূপরখা প্রণয়ন করে প্রশমন বিষয়ক কার্যক্রম স্বচ্ছতার সাথে বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নিতে হবে, বিশেষ করে- এখাতে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ বৃদ্ধি সহায়ক নীতিমালা প্রণয়ন ও অবিলম্বে সেগুলো বাস্তবায়ন করতে হবে।

এসময় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এবং উপদষ্টো-নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের উপস্থিত ছিলেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর