সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বড় জয়ে শুরু ইংল্যান্ডের

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি দুইবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের চ্যাম্পিয়ন দলকে ৫৫ রানের লজ্জা উপহার দিয়ে ৬ উইকেটের জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড।

শনিবার দুবাইয়ে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৫৫ রানেই অলআউট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মামুলি স্কোর তাড়া করতে নেমে ৭০ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে ইংল্যান্ড।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩.১ ওভারে দলীয় ২১ রানে ফেরেন ওপেনার জেসন রয়। এরপর ৯ রানের ব্যবধানে ফেরেন আরেক ওপেনার জনি বেয়ারস্টো। দলীয় ৩৬ ও ৩৯ রানে ফেরেন মঈন আলী ও লিয়াম লিভিং। ২২ বলে ২৪ রানে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন জস বাটলার।

শনিবার দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই সময়ের ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকে ক্যারিবীয়রা।

ব্যাটসম্যানরা আসা-যাওয়ার মিছিলে অংশ নেওয়ায় ১৪.২ ওভারে মাত্র ৫৫ রানেই অলআউট হয় উইন্ডিজ।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে রানের বিচারে এটি তৃতীয় সর্বনিম্ন। তবে বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে এটাই উইন্ডিজের সর্বনিম্ন স্কোর। এর আগে ২০০৯ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে ১০১ রানে অলআউট হয়েছিল ক্যারিবীয়রা।

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের বিশ্বকাপে এর আগে ৩৯ ও ৪৪ রানে অলআউট হওয়ার বাজে রেকর্ড গড়ে নেদারল্যান্ডস। চলতি বিশ্বকাপে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৪৪ রানে অলআউট হয় তারা।

শনিবার ইংলিশদের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে একের পর এক সজেঘরে ফেরেন লেন্ডন সিমন্স, এভিন লুইস, সিমরন হিতমায়ার, ক্রিস গেইল, ডুয়াইন ব্রাভো, নিকোলাস পুরান, আন্দ্রে রাসেল, কায়রন পোলার্ড, ওডি ম্যাকওয়ে ও রবি রামপাল।

ইনিংসের তৃতীয় ওভারে দলীয় ৯ রানেই সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার। লেন্ডন সিমন্সের পর ফেরেন এভিন লুইসও।

মঈন আলীর বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন সিমন্স। আর ক্রিস ওকসের বলে মঈন আলীর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লুইস।

দলীয় ২৭ রানে ফেরেন সিমরন হিতমায়ারও। তিনিও সেই মঈন আলীর শিকার। তার বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন হিতমায়ার।

দলের এমন ব্যাটিং বিপর্যয়ে হাল ধরতে পারেননি ক্রিস গেইলও। তাইমাল মিলসের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন এই তারকা ব্যাটসম্যান। তার বিদায়ে ৬ ওভারে ৩১ রানেই ৪ উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা। দলীয় ৩৭ রানে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন ডুয়াইন ব্রাভো।

মিলসের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফেরেন নিকোলাস পুরান। ৯ বল খেলে মাত্র ১ রান করার সুযোগ পান এই তারকা ব্যাটসম্যান। আন্দ্রে রাসেলকে রানের খাতা খুলতেই দেননি আদিল রশিদ। তার স্পিনে বোল্ড হয়ে ফেরেন রাসেল।

ব্যাটসম্যানদের এ আসা-যাওয়ার মিছিলে উইকেটের একপ্রান্ত বেশ কিছু সময় ধরে আঁকড়ে থাকা অধিনায়ক কায়রন পোলার্ডও প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেননি। ১২.১ ওভারে আদিল রশিদের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন ক্যারিবীয় এই অধিনায়ক।

পোলার্ড আউট হওয়ার পর দ্রুত আউট হয়ে যান ওডি ম্যাকওয়ে ও পেসার রবি রামপল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ১৪.২ ওভারে ৫৫/১০ (ক্রিস গেইল ১৩; আদিল রশিদ ৪/২, মঈন আলী ২/১৭, টাইমাল মিলস ২/১৭)।

ইংল্যান্ড: ৮.২ ওভারে ৫৬/৪ (জস বাটলার ২৪, জেসন রয় ১১; আকিল হোসেন ২/২৪)।

ফল: ইংল্যান্ড ৬ উইকেটে জয়ী।