রবিবার, ২৮শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আবারও রক্তাক্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্প, ইন্ধনে অভিযুক্ত মিয়ানমার

news-image

কক্সবাজার প্রতিনিধি : বারও রক্তাক্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্প, ইন্ধনে অভিযুক্ত মিয়ানমার
# বার্স্টফায়ারে শিক্ষার্থী-শিক্ষকসহ নিহত ৬
# সক্রিয় ডজনের বেশি সশস্ত্র গ্রুপ
# চার বছরে ১২ ধরনের অপরাধে ১৩’শ মামলা
# মিয়ানমার সরকারের ইন্ধনে সক্রিয় হচ্ছে গ্রুপগুলো, অভিযোগ স্থানীয় রোহিঙ্গাদের

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার জেরে প্রাণে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গারা। আশ্রয় নেওয়া এসব রোহিঙ্গা এখন বিষফোঁড়ায় পরিণত হয়েছে। তাদের আশ্রয়স্থল কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৩টি ক্যাম্প এখন পরিণত হয়েছে অপরাধের স্বর্গরাজ্যে। স্থানীয়দের অভিযোগ, মিয়ানমার সরকারের ইন্ধনে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের একটি বিপথগামী অংশ খুন, অপহরণ, ধর্ষণ, অস্ত্র, মাদক ও মানবপাচার, ডাকাতিসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে নিজ অফিসে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনকামী নেতা মাস্টার মুহিবুল্লাহকে হত্যার ২৩ দিনের মাথায় একটি মাদরাসায় ঘুমন্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে বার্স্টফায়ারে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ ছয়জন নিহত হন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ১২ জনের বেশি। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোর সোয়া ৪টার দিকে উখিয়ার এফডিএমএন ক্যাম্প-১৮ এইচ-৫২ ব্লকের ‘দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়াহ’ মাদরাসায় এই ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে চারজন ঘটনাস্থলে আর বাকি দুজন হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান। শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মরদেহগুলো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে বলে জানিয়েছেন উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ সনজুর মোরশেদ।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন- দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়াহ মাদরাসার শিক্ষক ক্যাম্প-১২-এর ব্লক-জে-৫-এর বাসিন্দা হাফেজ মো. ইদ্রিস (৩২), ক্যাম্প-৯-এর ব্লক-২৯-এর মৃত মুফতি হাবিবুল্লাহর ছেলে ইব্রাহীম হোসেন (২৪), ক্যাম্প-১৮-এর ব্লক-এইস-৫২-এর ভলান্টিয়ার শিক্ষার্থী আজিজুল হক (২২), মো. আমীন (৩২), ক্যাম্প-১৮-এর ব্লক-এফ-২২-এর মাদরাসার শিক্ষক নুর আলম ওরফে হালিম (৪৫), ক্যাম্প-২৪-এর মাদরাসার শিক্ষক হামিদুল্লাহ (৫৫)।

আহতদের মধ্যে ক্যাম্প-১৮-এর ব্লক-এইস-৫২-এর মাদরাসার ছাত্র নুর কায়সারের (১৫) অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে ৮ এবিপিএন’র উপ-অধিনায়ক (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) কামরান হোসাইন। বাকিদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি।

তিনি জানান, শুক্রবার ভোর আনুমানিক সোয়া ৪টার দিকে এফডিএমএন ক্যাম্প-১৮-এর-এইচ-৫২ ব্লকে অবস্থিত ‘দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়াহ’ মাদরাসায় রোহিঙ্গা দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। হামলায় চারজন ঘটনাস্থলে মারা যান। ঘটনা জানতে পেরে ময়নারঘোনা পুলিশ ক্যাম্প-১২-এর পুলিশ সদস্যরা তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠায়। হাসপাতালে নেওয়ার পর আরও দুইজন হাসপাতালে মারা যান। এসময় পুলিশ মুজিব নামে হামলাকারীদের একজনকে অস্ত্রসহ (দেশীয় লোডেড ওয়ান শুটার গান, ৬ রাউন্ড গুলি ও একটি ছুরিসহ) হাতেনাতে গ্রেফতার করে।

ঘটনাস্থলের বাসিন্দা একাধিক রোহিঙ্গা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ভোর ৪টার দিকে ১২-১৫ জনের একটি সশস্ত্র গ্রুপ ‘দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়াহ’ মাদরাসার দিকে যান। তারা ওখানে পৌঁছানোর তিন মিনিট পর লাগাতার গুলির আওয়াজ ও মানুষের চিৎকার শুনতে পান। আশপাশের লোকজন ঘর থেকে বেরিয়ে মাদরাসার দিকে যেতে থাকলে এলোপাতাড়ি গুলি করে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যান। ঘুমন্ত শিক্ষার্থী ও শিক্ষককে গুলি ও জবাই করে সবমিলিয়ে ৫-৭ মিনিটের মধ্যেই হামলাকারীরা সরে পড়ে।

তারা আরও জানান, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে মুহিবুল্লাহ হত্যার পর মিয়ানমার সরকারের মদতপুষ্ট বিতর্কিত ও কথিত সশস্ত্র সংগঠন আরসারের চিহ্নিত সদস্যদের প্রতিরোধের ডাক দিয়ে সম্প্রতি ওই মাদারাসায় একটি সমাবেশ করে প্রত্যাবাসনপ্রত্যাশী সাধারণ রোহিঙ্গারা। সেখানেই বক্তব্য দেন শুক্রবারের ঘটনায় নিহত মাদরাসা শিক্ষক হাফেজ ইদ্রিস। এজন্য তিনি ন্যক্কারজনক এই হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন বলে বলে ধারণা তাদের।

রোহিঙ্গাদের আরেকটি সূত্রের দাবি, মুহিবুল্লাহ হত্যার পর থেকে সাধারণ রোহিঙ্গাদের তোপের মুখে কোণঠাসা হয়ে পড়ে কথিত ‘আরসা’র পরিচিত সদস্যরা। তারা ক্যাম্প থেকে পালিয়ে টেকনাফের হ্নীলার নয়াপাড়া মুছনি ক্যাম্পের পাহাড়ি এলাকায় স্থানীয় কয়েকটি সন্ত্রাসী গ্রুপের আশ্রয়ে রয়েছে। ফয়েজউল্লা নামে এক ‘আরসা’র সদস্যকে সম্প্রতি বালুখালী ক্যাম্প থেকে ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয় রোহিঙ্গারা। প্রত্যাবাসনপ্রত্যাশী রোহিঙ্গারা একাট্টা হওয়ায় নিজেদের অস্তিত্ব সংকটে পড়ছে দেখে ক্যাম্পে বড় ধরনের নাশকতার ছক তৈরি করে দুর্বৃত্ত রোহিঙ্গারা। এরই অংশ হিসেবে মাদরাসায় নারকীয় এই ঘটনা ঘটে বলে তারা দাবি করেছেন।

রোহিঙ্গা নেতা হামিদ হোসেন, মো. ইব্রাহিম ও আবদু শুক্কুরসহ কয়েকজন সচেতন রোহিঙ্গাদের অভিযোগ, মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ড ও ঘুমন্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে হত্যা একই সূত্রে গাঁথা। কথিত আরসার সন্ত্রাসীরাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে দাবি করেছেন তারা।

তারা বলেন, প্রত্যাবাসনের বদলে বাংলাদেশে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের অপরাধী প্রমাণে মরিয়া হয়ে উঠেছে মিয়ানমার সরকার। এজন্য তারা বিপথগামী রোহিঙ্গাদের দিয়ে ক্যাম্পে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। ২০১৯ সালের নভেম্বরে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার করা মামলাটি প্রশ্নবিদ্ধ করায় তাদের লক্ষ্য। এজন্য বিশ্বে রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী হিসেবে উপস্থাপনের সব রকম চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

উখিয়ার ১৮ নং ক্যাম্পে কর্মরত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এবিপিএন) অধিনায়ক শিহাব কায়সার খান বলেন, কী কারণে এই নারকীয় হত্যাকাণ্ড তা এখনও স্পষ্ট নয়। আমাদের সদস্যরা অস্ত্রসহ মুজিব নামে একজনকে আটক করেছে। তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলে আশা করছি। ক্যাম্পের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। খুনিদের শনাক্ত ও ধরতে চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

এদিকে, কক্সবাজার জেলা পুলিশের তথ্য বলছে, ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের অপরাধ দিনে দিনে বাড়ছে। গত চার বছরে কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ১২ ধরনের অপরাধে এক হাজার ৩০০ মামলা হয়েছে। এতে আসামি হয়েছে ২ হাজার ৮৭০ রোহিঙ্গা। অপরাধের মধ্যে রয়েছে- হত্যা, ধর্ষণ, অপহরণ, ডাকাতি, অস্ত্র ও মাদক পাচার, মানবপাচার, পুলিশের ওপর হামলা ইত্যাদি।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চার বছরে ৭৬টি খুনের মামলা হয়েছে। এসময়ে ৭৬২টি মাদক, ২৮টি মানবপাচার, ৮৭টি অস্ত্র, ৬৫টি ধর্ষণ ও ১০টি ডাকাতির মামলা হয়েছে। ৩৪টি মামলা হয়েছে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অপরাধে। অন্যান্য অপরাধে হয়েছে ৮৯টি মামলা। গেলো ৪৯ মাসে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সংঘর্ষের ঘটনায় ২৩৪ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ৩৬০ জন। ২০১৮ সালে ২০৮ মামলায় আসামি ৪১৪ জন। ২০১৯ সালে মামলার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২৬৩টি, আসামি ৬৪৯ জন। আর ২০২০ সালে ১৮৪টি মামলায় হয়েছে, আসামি ৪৪৯ জন।

অন্যদিকে, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রোহিঙ্গা নেতা ও আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের (এআরএসপিএইচ) চেয়ারম্যান মাস্টার মুহিবুল্লাহ সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হওয়ার পর ক্যাম্পকেন্দ্রিক অপরাধ নতুন করে আলোচনায় আসে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিওকর্মীদের দাবি, অপরাধ জগত নিয়ন্ত্রণ ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ভেতরেই অন্তত ১৫-২০টি সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী সক্রিয় রয়েছে। এর বাইরে ক্যাম্পকেন্দ্রিক আরও একাধিক সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী রয়েছে। প্রত্যেক বাহিনীতে ৩০ থেকে ১০০ জন সদস্য বিদ্যমান। সন্ধ্যার পর থেকে ক্যাম্পগুলো হয়ে ওঠে অপরাধের স্বর্গরাজ্য। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হত্যাকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে রোহিঙ্গারা। ক্যাম্পগুলোতে দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজরদারি থাকলেও রাতে তা অনেকটাই ঝিমিয়ে পড়ে।

উখিয়ার রাজাপালং ইউপির কুতুপালং এলাকার সদস্য প্রকৌশলী হেলাল উদ্দিন বলেন, রোহিঙ্গারা সহজে সীমান্ত পার হয়ে মিয়ানমারে যাওয়া-আসা করতে পারছে। এ কারণে ইয়াবা ও স্বর্ণ চোরাচালান বেড়েছে। আর এসব ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতে ক্যাম্পকেন্দ্রিক গড়ে উঠেছে অনেক সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী। এতে করে খুনাখুনি ও অপরাধের মাত্রা দিনে দিনে বাড়ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সদ্য কারামুক্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পকেন্দ্রিক কয়েকজন শীর্ষ মাদককারবারি বলেন, ক্যাম্পে প্রতিদিন শত কোটি টাকার বেশি ইয়াবার লেনদেন হয়। হাতবদল হয় অন্তত ২৫-৩০ লাখ ইয়াবা। মূলত ইয়াবা ব্যবসার নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পের ভেতরে-বাইরে সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে উঠেছে।

ক্যাম্পে ব্যাপকভাবে পরিচিত সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে রয়েছে- মাস্টার মুন্না গ্রুপ, মৌলভী ইউসুফ গ্রুপ, রকি বাহিনী, শুক্কুর বাহিনী, আব্দুল হাকিম বাহিনী, সাদ্দাম গ্রুপ, জাকির বাহিনী, নবী হোসেন বাহিনী, পুতিয়া গ্রুপ, সালমান শাহ গ্রুপ, গিয়াস বাহিনী, শাহ আজম গ্রুপ অন্যতম।

অভিযোগ রয়েছে, ক্যাম্পভিত্তিক বেশিরভাগ সন্ত্রাসী গ্রুপের সঙ্গে মিয়ানমার সরকারের সেনাবাহিনীর প্রতিনিধিদের যোগাযোগ রয়েছে। ক্যাম্প অশান্ত করতে সন্ত্রাসী গ্রুপকে কোটি কোটি টাকার ইয়াবা ফ্রিতে দিচ্ছেন দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী। মূলত বিশ্বে রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী হিসেবে তুলে ধরা, আন্তর্জাতিক আদালতে চলমান রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করা ও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিলম্ব করতে চায় মিয়ানমার।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান বলেন, সীমান্ত এলাকা বাদ দিয়ে শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে অপরাধবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি মাদকবিরোধী অভিযান চালানো হচ্ছে। কক্সবাজারের ইতিহাসের ইয়াবার সবচেয়ে বড় চালান জেলা পুলিশ জব্দ করতে সক্ষম হয়েছে। দায়িত্বে না পড়লেও আইনশৃঙ্খলার পাশাপাশি মাদক নিয়ন্ত্রণে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

১৯৭৮ সালের পর থেকে বিভিন্ন সময়ে প্রায় পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে বাংলাদেশে। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টে রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযানের পর দেশে সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা প্রবেশ করে। সবমিলিয়ে দেশে রোহিঙ্গার সংখ্যা ১৩ লাখের বেশি। তার সাড়ে ১১ লাখ রোহিঙ্গার বসবাস উখিয়া ও টেকনাফের ৩৩টি ক্যাম্পে। বাকিরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় অবৈধভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

ওমিক্রন : দেশের সব প্রবেশপথে সতর্কবার্তা

রংপুরে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ,ভোট দিয়েছেন পুরুষের চেয়ে নারী ভোটারাই বেশি

ওমিক্রন : কারিগরি কমিটির চার সুপারিশ

রংপুরে আগুন পোহাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ ৭ শিশু, হাসপাতালে ভর্তি

তিন উইকেট হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

দিনের শুরুতে তাইজুলের জোড়া আঘাত

জার্মানি-ইতালিতে পাওয়া গেল ‘ওমিক্রন’

আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো রংপুরের আঞ্চলিক ইজতেমা

গঙ্গাচড়া উপজেলার ৯ ইউনিয়নে চেয়ারম্যানসহ তিন পদে ৫৭৯ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা মামলায় ৩ শ্বেতাঙ্গকে দোষী সাব্যস্ত

ভাড়া নিয়ে বাগবিতণ্ডা: শিক্ষককে বাস থেকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ কতটা বিপজ্জনক?