বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নিরাপদ যাতায়াতে এখন প্রথম পছন্দ রেল

news-image

অনলাইন ডেস্ক : দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে নিরাপদ ও আরামদায়ক যাতায়াতে ট্রেনের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। ফলে গত এক দশক ধরে এই খাতে অব্যাহতভাবে বাড়ছে বিনিয়োগ। এখন রেলওয়েতে চলমান ৪১টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে পদ্মা সেতু রেল ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল সংযোগ প্রকল্প। এসব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে দেশে রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে উন্মোচন হবে নতুন দিগন্ত।

কক্সবাজার-বান্দরবানসহ পর্যটন এলাকাগুলোতে রেল সংযোগে জোর দিচ্ছে সরকার। পদ্মা সেতু, কক্সবাজারের রেল সংযোগ চালু হলে আরও অনেকগুলো জেলার মানুষ এর সুবিধা ভোগ করবে। লাইন টেনে যুক্ত করাও হবে সুবিধাজনক। ভ্রমণ স্বাচ্ছন্দ্যের কারণে এমনিতে জনপ্রিয় রেল। নতুন কোচ, ইঞ্জিন যুক্ত হওয়ায় সেটা আরও বেড়েছে। এছাড়া টাইমের ক্ষেত্রে আগের জটিলতা এখন কম। অধিকাংশ ট্রেন চলে অনটাইমে। সমস্যা শুধু কিছু ট্রেনে সেবার মান ও পাথর নিক্ষেপ। তবু জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রেলপথ।

গত ১৪ অক্টোবর ট্রেনে চট্টগ্রামে বেড়াতে যান ধানমন্ডির জিগাতলার আমিন উদ্দিন দম্পতি। ১৯ অক্টোবর সকালে তারা ঢাকার কমলাপুরে ফেরেন। ওইদিন সকালে আলাপকালে আমিন উদ্দিন  বলেন, বাসে যাতায়াতের চেয়ে ট্রেনে ভ্রমণ অনেকটাই নিরাপদ। দীর্ঘ সময় ভ্রমণ করলেও ক্লান্ত লাগে না। বাসের তুলনায় ট্রেনে ভাড়াও কম। তাই যেসব পর্যটন এলাকায় রেল সংযোগ রয়েছে, সেখানে ট্রেনেই যাতায়াত করি।

একই দিন সকাল সাড়ে ৭টার ট্রেনে চট্টগ্রাম যাচ্ছিলেন ব্যবসায়ী কামরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ব্যবসার কাজে প্রায়ই ঢাকায় যাতায়াত করতে হয়। এই যাতায়াতে ট্রেনই প্রথম পছন্দ। বাসে শরীর ক্লান্ত হয়ে যায়। ট্রেনে তা হয় না। তবে ট্রেনের সেবার মান আরও বাড়ানো দরকার।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্র জানায়, এখন দেশের ৪৪টি জেলায় রেল সংযোগ রয়েছে। এই ৪৪টি জেলায় ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে প্রায় সাত কোটি যাত্রী পরিবহন করেছে রেলওয়ে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রেলে যাতায়াত করেছেন নয় কোটি ২৭ লাখ। পরের বছর ২০১৯-২০ অর্থ বছরে প্রায় নয় কোটি ৩০ লাখ যাত্রী যাতায়াত করেছে রেলে। ২০২০-২১ অর্থ বছরে সাড়ে নয় কোটির বেশি মানুষ রেলে ভ্রমণ করেছেন। এভাবে প্রতি বছরই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রেলে যাত্রীর সংখ্যা। এর সঙ্গে রেলের সক্ষমতাও আগের চেয়ে অনেকাংশে বেড়েছে। রেলওয়েতে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন কোচ ও ইঞ্জিন।

কমলাপুর রেলওয়ে সূত্র জানায়, এখন কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে দিনে ১১৪ জোড়া ট্রেন (আন্তঃনগর ও মেইল) যাত্রী পরিবহন করে। এসব ট্রেনে হাজারো লোক যাতায়াত করেন। এখন যাত্রীদের যাতায়াত সুবিধার্থে অনলাইনে টিকিট কাটার ব্যবস্থা রয়েছে। ফলে কোনো ধরনের ভোগান্তি ছাড়াই নির্দিষ্ট গন্তব্যে ভ্রমণ করতে পারছেন তারা।