বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অটোরিকশার মধু মহাজনদের পেটে!

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বগুড়া পৌরসভার পাইকড়পাড়া এলাকার ‘নিরাপদ গ্যারেজের’ মালিক আনোয়ার হোসেন। নিজস্ব অটোরিকশার সংখ্যা ৫০টি। ঘণ্টা চুক্তিতে তার রিকশাগুলো ভাড়া দেন। তবে তার এ রিকশা ব্যবসার কোনো বৈধতা নেই।

পৌরসভা তাকে কোনো ট্রেড লাইসেন্সও দেয়নি। কোনো রিকশারই নম্বর নেই। এরপরও ৩০০ টাকা হিসেবে ৫০টি অটোরিকশার দৈনিক ভাড়া পান ১৫ হাজার টাকা। মাসে যার পরিমাণ দাঁড়ায় ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

দূর্গাহাটা এলাকায় ‘মায়াবী গ্যারেজের’ মালিক সাইদুল ইসলাম। সেখানে প্যাডেল চালিত কোনো রিকশা নেই। আছে অনুমোদনহীন অটোরিকশা। তিনি তিনটি দিয়ে শুরু করে আজ ৫৬টি অটোরিকশার মালিক।

কীভাবে সম্ভব জানতে চাইলে সাইদুল বলেন, হামরা পৌরসভার কাছে আবেদন করে লাইসেন্স পাই না। নম্বর না পেলে কি ব্যবসা বসে থাকপি? সে জন্যে অনুমতি ছড়াই চলিচ্ছে। পৌরসভা কিংবা পুলিশ মাঝে মধ্যে রিকশা আটকালে কিছু খরচাপাতি হয়। দু-তিনদিনের মধ্যেই ছাড়া প্যাইয়া আবার নামে আস্তাত (রাস্তা)।

একই কথা শোনালেন শাকপালা এলাকার আরেক মহাজন আব্দুল গফুর আকন্দ। তার অটোরিকশার সংখ্যা ৩৮টি। সবগুলোই অবৈধ। তার দাবি পৌর পুলিশসহ অন্যদের ব্যবস্থা করে চলছে এসব অটোরিকশা। দুটি রিকশা দিয়ে ব্যবসা শুরু করে আজ বড় মহাজন। অন্য ব্যবসার চাইতে এ ব্যবসাতেই বেশি লাভ বলে জানালেন গফুর।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যাটারিচালিত অবৈধ অটোরিকশা বিক্রির বিশাল বাজার তৈরি হয়েছে বগুড়ায়। যাতে অর্ধশতাধিক অটোরিকশার শো-রুম আছে। শহরের প্রাণকেন্দ্রে প্রশাসনের নাকের ডগায় গড়ে ওঠা এ বাজার থেকে প্রতিদিন শতাধিক রিকশা বিক্রি হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ এবং অবৈধ অটোরিকশায় ভরে গেছে জেলার অলিগলি, রাজপথ। দ্রুতগতি এবং ফিটনেসবিহীন এ যন্ত্রদানব এখন রাস্তায় পথচলতি মানুষের কাছে আতঙ্কের আরেক নাম।

বগুড়া শহরের গোহাইল রোডের আব্দুল মতিন আগে মেশিনারি পার্টসের ব্যবসা করতেন। এখন তিনি অটোরিকশার দোকান খুলেছেন। একটি অটোরিকশা বিক্রি করলে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা লাভ হয়। দিনে গড়ে তিন-চারটি বিক্রি করেন তিনি। এই করে দৈনিক লাভ আসে ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকা।

মতিন বলেন, অন্য ব্যবসা কেন করব? একটু ঝুঁকি থাকলেও এ ব্যবসাই ভালো।

এক বছর আগে শহরের গোহাইল রোড এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে সাতটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দেওয়া হয়। এগুলো হচ্ছে জিহাদ অটো সেন্টার, বিকল্প বাইক সেন্টার, শাহীন অটো হাউস, নিউ সেবা মোটরস, অটো হাউস, অটো পয়েন্ট ও বগুড়া অটো সেন্টার।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারহানা নাজের নেতৃত্বে অভিযান চলাকালে বলা হয়েছিল এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। কিন্তু গত এক বছরেও আর কোনো অভিযান হয়নি। সিলগালা করে রাখা প্রতিষ্ঠানগুলোসহ এখন গোহাইল রোডেই অর্ধশতাধিক দোকানে প্রকাশ্যে অবৈধ অটোরিকশা বিক্রি হয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে প্যাডেল রিকশায় শুধু একটি মোটর ও ব্যাটারি লাগিয়ে রাস্তায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এতে হালকা ধরনের ব্রেকে কোনোভাবেই ওইসব বাহন নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না চালকরা।

বগুড়া বিআরটিএর টেশনিক্যাল ইঞ্জিনিয়াররা জানান, এসব ব্যাটারিচালিত রিকশার বেশিরভাগই ব্রেক দুর্বল। চাকার সঙ্গে বডিওয়েটের সাম্যতা নেই। যার কারণে দ্রুতগতিতে চলার সময় সামনে কিছু পড়লে এ যান আর থামানো যায় না। উল্টে যায়। দুর্ঘটনা ঘটে।

বগুড়া বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মন্নাফ জাগো নিউজকে বলেন, পিকআওয়ারে এসব অটোরিকশা চার্জিংয়ের কারণে শহরে লোডশেডিং অনেক বেড়ে যায়। সার্ভে করে দেখা গেছে- অনেকগুলো গ্যারেজ রয়েছে, যেখানে ভাড়ার বিনিময়ে রাতে ব্যাটারিচালিত রিকশা রাখা যায়, আবার সেখানেই ওই রিকশাগুলোর ব্যাটারিও চার্জ করা হয়। একটি ব্যাটারি চার্জ করতে নেওয়া হয় ৫০ থেকে ১০০ টাকা। প্রায় চার ঘণ্টা থেকে পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগে ব্যাটারি চার্জ হতে। প্রতি রাতে শহরে এত সংখ্যক রিকশার ব্যাটারি চার্জ হয় যে তাতে বিদ্যুৎ সংকট দেখা না দিয়ে পারে না।

পৌর কর্তৃপক্ষ জানায়, দেড় যুগ ধরে শহরে অবৈধ প্যাডেল রিকশা এবং পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে অটোরিকশার কোনো লাইসেন্স দেওয়া হয়নি। যার কারণে এসব যানকে পৌর কর্তৃপক্ষ পুরোপুরি অবৈধ বলছে। তাদের হিসাব অনুসারে বগুড়া শহর ছাড়াও আশপাশের গ্রামাঞ্চলে এবং বিভিন্ন উপজেলায় ব্যাটারিচালিত অর্ধ লাখ এ ধরনের রিকশা চলাচল করছে।

সম্প্রতি জেলা পুলিশের তৈরি করা একটি সার্ভে রিপোর্ট থেকে জানা গেছে, শহরে সদর থানার আওতাধীন পুলিশ ফাঁড়ি আছে আটটি। এর মধ্যে উপ-শহর ফাঁড়ি এলাকায় অবৈধ অটোরিকশার গ্যারেজ আছে ২৭টি, সিলিমপুর ফাঁড়ি এলাকায় ১১টি, সদর ফাঁড়ি এলাকায় ১৪টি, কৈগাড়ি ফাঁড়ি এলাকায় ৩০টি, ফুলবাড়ি ফাঁড়ি এলাকায় ৩৮টি, স্টেডিয়াম ফাঁড়ি এলাকায় ২০টি, বনানী ফাঁড়ি এলাকায় ১৩টি এবং নারুলী ফাঁড়ি এলাকায় ৪১টি।

বগুড়া শহরের একাধিক অটোরিকশা চালকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের বাড়ি গাইবান্ধা, রংপুর, কুড়িগ্রামসহ উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায়। তারা কাজের সন্ধানে বগুড়া শহরে আসেন। কিন্তু কাজ না পেয়ে অবশেষে রিকশা চালানো শুরু করেন।

রিকশাচালক মনির জানান, তিনি সকালের ট্রেনে লালমনিরহাট থেকে বগুড়ায় আসেন। সারা দিন রিকশা চালিয়ে ৭০০ থেকে ৯০০ টাকা পর্যন্ত আয় হয়। মহাজনকে ৩০০ টাকা দিয়ে বাকি ৫০০/৬০০ টাকা নিয়ে রাতে বাড়ি ফেরেন।

আকবর নামে আরও একজন জানান, তার বাড়ি সান্তাহার এলাকায়। আগে তিনি হোটেল কর্মচারী ছিলেন। বেতন পেতেন আড়াই হাজার টাকা। এখন রিকশা চালান। তাতে মাসে আয় হয় ১২ হাজার টাকা।

আরও ১০জন রিকশাচালকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা মহাজনের রিকশা চালিয়ে আয়-রোজগার করেন। আর অবৈধ রিকশা নিয়ে পুলিশি ঝামেলায় পড়লে ছাড়িয়ে নেওয়ার দায়িত্ব মহাজনই করে থাকেন।

এসব বিষয়ে বগুড়া ট্রাফিক পুলিশের টিআই (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম সরকার জাগো নিউজকে বলেন, আমরা রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছি এসব অবৈধ রিকশা সামাল দিতে। শহরের বিশেষ বিশেষ এলাকায় চলাচলের ওপর বিধি-নিষেধ জারি করার পরও পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কষ্টকর হয়ে গেছে। পৌর কর্তৃপক্ষ বিষয়টির দ্রুত সমাধান না করলে পরিস্থিতি আরও নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।

বগুড়া বিআরটিএর সহকারী পরিচালক মাঈনুল হাসান জাগো নিউজকে বলেন, অটোরিকশা আগে আমদানি করা হলেও এখন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বাহনগুলো অবৈধ, তাই লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে না। এসব অবৈধ গাড়ি চলাচল বন্ধ করতে পৌরসভা ব্যবস্থা নিতে পারে। প্রয়োজনে বিআরটিএ তাদের সহযোগিতা করবে।

এ বিষয়ে বগুড়া পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম বাদশা জাগো নিউজকে বলেন, শহরে রাস্তা সম্প্রসারণ করার পর থেকে বেড়েছে অবৈধ রিকশা। তবে যানজটের কারণে নতুন লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে না। পৌরসভা মাঝেমধ্যে এসব অবৈধ রিকশা আটক অভিযান চালায়। এর পরও থামানো যাচ্ছে না এদের দৌরাত্ম্য।

 

এ জাতীয় আরও খবর

বোমা আতঙ্কে জরুরি অবতরণ, উড়োজাহাজে তল্লাশি

এইচএসসি পরীক্ষা : কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশ নয়

এইচএসসি পরীক্ষা, রংপুর বিভাগে অংশগ্রহণ নিবে ১লাখ ১৬ হাজার পরীক্ষার্থী

মুজিব শতবর্ষ ও বিজয় দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তীতে রংপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বস্তাভর্তি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

৭৯ শতাংশ করদাতা এখনও রিটার্ন দেননি

বয়স্ক নারীদের যেসব খাবার খাওয়া জরুরি

শীতের মৌসুমে ভ্রমণের জন্য ৫ জায়গা

সব বয়সের জন্য ভিন্ন স্বাদের গাজরের সন্দেশ

প্রতিশ্রুতি রক্ষায় নাইট গার্ডের দায়িত্বে ইউপি চেয়ারম্যান

বন্ধ হচ্ছে অবৈধ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের মৃত্যুতে জবির শোক