বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ম্যালেরিয়ার প্রথম টিকা এলো বিশ্বে

news-image

এই প্রথম বিশ্বের বাজারে আসতে চলেছে মশাবাহিত ভয়ঙ্কর সংক্রামক রোগ ম্যালেরিয়ার টিকা। ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা ‘গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন’-এর বানানো বিশ্বের প্রথম ম্যালেরিয়ার টিকা বুধবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সং‌স্থার (হু) অনুমোদন পেয়েছে। ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে আফ্রিকায় প্রতি বছর লাখো শিশুর মৃত্যু হয়ে থাকে।

মশাবাহিত রোগ ম্যালেরিয়াকে বিশ্বের অন্যতম প্রাণঘাতী রোগ হিসেবে মনে করা হয়। প্রতি বছর বিশ্বে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয় ২২ কোটির বেশি মানুষ। মৃত্যু হয় প্রায় ৫ লাখ মানুষের, যার বেশিরভাগই শিশু ও নবজাতক। প্রতিবছর মারা যায় ৫ বছরের কম বয়সী দুই লাখ ৬০ হাজারের বেশি শিশু। আর, মোট ম্যালেরিয়া রোগীর ৯৪ শতাংশই আফ্রিকায়।

ইউরোপিয়ান মেডিসিনস এজেন্সির তরফে জানানো হয়েছে, ব্রিটিশ ওষুধ সংস্থা গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন-এর বানানো ম্যালেরিয়ার এই টিকা ৬ সপ্তাহ থেকে ১৭ মাসের শিশুদেরও দেওয়া যাবে ম্যালেরিয়ার হাত থেকে সদ্যোজাতদের বাঁচানোর লক্ষ্যে। এই টিকা হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসের মাধ্যমে যকৃতের সংক্রমণও রুখতে পারবে।

প্রায় একশ বছর ধরে মারাত্মক প্রাণঘাতী এই রোগের টিকা আবিস্কারের চেষ্টা করছিলেন বিজ্ঞানীরা। দীর্ঘ সেই প্রচেষ্টা অবশেষে সাফল্যের মুখ দেখলো। টিকা আবিষ্কারের সাফল্যকে চিকিৎসা খাতের বড় অর্জন হিসেবে দেখা হচ্ছে।

৬ বছর আগেই এই টিকার কার্যকারিতা প্রমাণিত হয়েছিল। তবে, অনুমতি দেয়ার আগে দীর্ঘ পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। টিকার অনুমোদনকে ঐতিহাসিক মুহূর্ত বলে উল্লেখ করেছেন ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক।

বহু প্রতীক্ষিত ম্যালেরিয়ার টিকা শিশু, বিজ্ঞান এবং ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণে একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। তাই আমরা গর্বিত। এর ফলে, প্রতিবছর লাখো শিশুর জীবন রক্ষা পাবে বলে ধারনা করছেন ডব্লিউএইচও এর মহাপরিচালক টেড্রস আডানম গেব্রিয়াসুস।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইনের তৈরি এই আরটিএসএস টিকা শুধু ম্যালেরিয়া নয়, বরং যে কোনো পরজীবীঘটিত রোগের বিরুদ্ধেই প্রথম কার্যকর টিকা।