বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার কী দরকার, প্রশ্ন আইনমন্ত্রীর

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : দুটি দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার একটিতে ১০ বছর, আরেকটিতে ৭ বছর সাজা হয়েছে। মানবিক কারণে দুই শর্তে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। ওনার কোভিড হয়েছে, হাসপাতালে গেছেন। হাসপাতালে যাওয়ার দিন থেকে বলছেন বিদেশে যেতে দেন, বিদেশে যেতে দেন। তখন বিমান-ট্রেন-জাহাজ কিছুই চলে না। কিন্তু ওনাদেরকে বিদেশে যেতে দিতে হবে! আমরা বললাম চিকিৎসা তো হচ্ছে। ওনি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। এখনো বলে বিদেশ যেতে দেন। তাঁর বিদেশ যাওয়ার কি দরকার।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা পরিষদ মাঠে আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় ৩৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ এ জনসভার আয়োজন করে।

এ সময় বিএনপির সমালোচনা করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আমরা নাকি ভয় পাই ওনাকে (খালেদা জিয়া) বিদেশে যেতে দিতে। যে লোক, যে দল দেশে থেকে অশ্বডিম্ব পাড়ে-সে বিদেশে গিয়ে কী পাড়তে পারে? বিদেশে গেলে কী হতে পারে?

আইনমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার সরকার ষড়যন্ত্রে ভয় করে না। ষড়যন্ত্রে একবার জাতির পিতাকে হারিয়েছি। আর ষড়যন্ত্র করতে দেব না। আমরা সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করব জনগণের শক্তিতে। আমাদেরকে ষড়যন্ত্রের ভয় দেখাবেন না।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। জনগণকে অনুরোধ করব, আপনারা প্রত্যেকে নির্বাচনে ভোট দেবেন। আপনাদের প্রমাণ করে দিতে হবে যে, এ দেশে গণতন্ত্র আছে। প্রমাণ করে দিতে হবে যে, আমাদের মানুষ ভোট দিতে পারে। সে জন্য রেরকম পরিস্থিতি আপনারা চাইবেন, ঠিক সেরকম পরিস্থিতি আপনাদের জন্য সৃষ্টি করে দেওয়া হবে।

আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় আরও বক্তব্য রাখেন, আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রোমানা আক্তার, আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা, আখাউড়া উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পিয়ারা আক্তার পিউনা প্রমুখ।

জনসভায় আইনমন্ত্রীর একান্ত সচিব নূর কুতুব উল আলম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খাঁন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল কাউসার ভূইয়া ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।