সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মেগা প্রকল্পে বদলে যাচ্ছে সিলেট

news-image

শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট
সিলেটজুড়ে চলছে উন্নয়নযজ্ঞ। মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে চেষ্টা চলছে সিলেটকে বদলে দেওয়ার। ‘উন্নত আলোকিত সিলেট’ গড়তে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রচেষ্টায় চলছে একের পর এক প্রকল্পের কাজ। ইতিমধ্যে কিছু প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। কিছু আছে বাস্তবায়নাধীন আর কিছু আছে শুরুর অপেক্ষায়। চলমান ও অপেক্ষমাণ প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন হলে গোটা সিলেট বদলে যাবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

সিলেটের উন্নয়নে গৃহীত মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম-২ (বিভাগীয় আউটার স্টেডিয়াম), ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক, সিলেট-ঢাকা ছয় লেন মহাসড়ক, সিলেট-তামাবিল চার লেন মহাসড়ক, সিলেট মেরিন একাডেমি, শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও সিলেট টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, ডিজিটাল নগরীর প্রকল্প, ১১৪টি নদী খনন ও তীর সংরক্ষণ, বঙ্গবন্ধু মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্স, নতুন বিসিক শিল্পনগরী এবং সড়ক ও ড্রেন সম্প্রসারণ, সৌন্দর্যবর্ধন ও আধুনিকায়নে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার প্রকল্প।

উচ্চশিক্ষা, গবেষণা ও সেবার মান এবং বিদ্যমান সুযোগ-সুবিধা সম্প্রসারণ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে উদ্যোগ নেওয়া হয় নতুন মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করা হয় সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। এটি দেশের চতুর্থ সরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় ৮৩ একর জায়গা অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী। শিক্ষা ক্ষেত্রে আরও একটি মেগা প্রকল্প ‘সিলেট মেরিন একাডেমি’ ইতিমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে। ১০৭ কোটি টাকা ব্যয়ে সিলেট সদর উপজেলার হাটখোলা ইউনিয়নের বাদাঘাট এলাকার চেঙ্গের খাল নদীর তীরবর্তী ১০ একর জমির ওপর নির্মিত হয়েছে এ প্রতিষ্ঠান। ২০২১ সালের ৬ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাডেমির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
এ ছাড়া সিলেটের কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নে দক্ষিণ সুরমার কুচাই ইউনিয়নের তৈয়ব সুলতান মৌজায় ১০ একর জমিতে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে নির্মিত হচ্ছে শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও সিলেট টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট। ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্প দুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রকল্প দুটির ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ২১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১১০ কোটি ৩৬ লাখ ৫৬ হাজার টাকা ব্যয়ে ৫ একর জমির ওপর শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ এবং এর পাশেই ৯৫ কোটি ৬৫ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ব্যয়ে ৫ একর জমির ওপর নির্মিত হচ্ছে সিলেট টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট। বর্তমান সরকার আমলে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন হতে যাচ্ছে যোগাযোগব্যবস্থায়। সড়ক, আকাশ, রেল ও নৌ পথে সমানতালে নেওয়া হয়েছে উন্নয়ন প্রকল্প। অনেক জটিলতা কাটিয়ে অবশেষে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে সিলেট-ঢাকা ছয় লেন মহাসড়ক প্রকল্প। ইতিমধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ১৫ হাজার কোটি টাকার বেশি ঋণ অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পটির মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৭ হাজার কোটি টাকার বেশি। এডিবির ঋণ বরাদ্দের ফলে অর্থ নিয়ে কেটেছে অনিশ্চয়তা। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্পটি পাস হয়েছে একনেকে। মহাসড়কটি ছয় লেনে উন্নীত হলে বদলে যাবে এখানকার অর্থনীতির চিত্র। নতুন গতি পাবে শিল্প ও পর্যটন। শুধু তাই নয়, ছয় লেন হয়ে গেলে এ মহাসড়ক দিয়ে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোর সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হওয়ারও আশা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ মহাসড়ক ছাড়াও ইতিমধ্যে সিলেট-তামাবিল মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প একনেকে অনুমোদিত হয়েছে। এশিয়া অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংক (এআইআইবি) এতে অর্থায়ন করবে। প্রকল্পটির প্রস্তাবিত ব্যয় ৩ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকার মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ৬১৫ কোটি ৪৮ লাখ এবং এআইআইবির ঋণ থেকে ২ হাজার ৯৭০ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে। এ মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত হলে তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানি বৃদ্ধি পাবে। একই সঙ্গে সিলেটের পর্যটন খাতেরও ব্যাপক উন্নতি হবে বলে মনে করেন সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি এ টি এম শোয়েব। রেলপথ উন্নয়নে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনের দীর্ঘ প্রচেষ্টায় সিলেট-আখাউড়া সেকশনে মিটার-গেজ রেলপথটি ডুয়েল-গেজে রূপান্তরের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সিলেট-ঢাকা ও সিলেট-চট্টগ্রামের সঙ্গে রেল যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন হবে। কমবে ভ্রমণের সময়ও। সড়ক ও রেল পথের পাশাপাশি নৌপথ উন্নয়নেও নেওয়া হয়েছে মেগা প্রকল্প। নৌপথের ব্যবহার বৃদ্ধি ও বন্যা নিয়ন্ত্রণে সিলেট বিভাগের ১১৪টি ছোট-বড় নদী খননে নৌপরিবহনমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। ওই প্রস্তাবের আলোকে নদী উদ্ধার, খনন ও সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।

এ ছাড়া সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করতে নেওয়া হয়েছে মেগা প্রকল্প। ২ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নেওয়া হয়েছে বিমানবন্দর উন্নয়নে দুটি প্রকল্প। এর মধ্যে ৪৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে সুপরিসর বিমান ওঠানামার জন্য শক্তি বৃদ্ধি করা হচ্ছে রানওয়ের। এ প্রকল্পটির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এ ছাড়া ২ হাজার ১১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিক সুবিধাসহ একটি পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক টার্মিনাল। বিমানবন্দরে নতুন কার্গো হাউস নির্মাণ ও স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় আধুনিক এটিসি টাওয়ার, ট্যাক্সিওয়ে ও অ্যাপ্রোন, আধুনিক ফায়ার স্টেশন, নতুন বোর্ডিং ব্রিজ, ব্যাগেজ হ্যান্ডলিং সিস্টেম, ফ্লাইট ইনফরমেশন ডিসপ্লে সিস্টেমসহ অন্য অত্যাধুনিক টার্মিনাল বিল্ডিং সম্পর্কিত সব ধরনের যন্ত্রপাতি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে আকাশপথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে ওসমানী বিমানবন্দর একটি হাব হিসেবে ব্যবহৃত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেটে শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতেও নেওয়া হয়েছে কয়েকটি বড় প্রকল্প। এর মধ্যে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের বর্ণি এলাকায় বাস্তবায়ন হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক’।

দ্রুত এগিয়ে চলছে আইসিটি পার্কের নির্মাণকাজ। ইতিমধ্যে প্রকল্পের মাটি ভরাট, বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ, দৃষ্টিনন্দন ব্রিজ, অভ্যন্তরীণ সড়ক ও বাতি স্থাপন, বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন নির্মাণ, প্রকল্পের সাইট অফিস, প্রশাসনিক ভবন, আইসিটি বিজনেস সেন্টার, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের কাজ প্রায় শেষের পথে। ১৬৫ একর জমির ওপর ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক’ নির্মাণকাজ শুরু হলেও দিন দিন উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের চাহিদা বাড়ায় ইতিমধ্যে আরও ৮৫ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এদিকে ক্ষুদ্র শিল্পের বিকাশে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশন (বিসিক) সিলেটে নতুন আরেকটি শিল্পনগরী স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এটি হবে সিলেটের তৃতীয় শিল্প পার্ক। ৫০০ একর জমির ওপর এ শিল্প পার্ক স্থাপনের প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। বিসিক সিলেট অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক ম. সুহেল হাওলাদার জানান, পরিবেশবান্ধব এ শিল্প পার্কে কৃষিযন্ত্রপাতি, কেমিক্যাল, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, ওষুধশিল্প, পাট ও পাটজাত পণ্য, চামড়া প্রক্রিয়াজাত পণ্য, হস্ত ও কারু শিল্প, প্লাস্টিক ও নারী উদ্যোক্তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। অগ্রাধিকার পাবে হালকা প্রকৌশল প্রতিষ্ঠানও। স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে সিলেটে নির্মিত হচ্ছে নতুন আরেকটি সরকারি হাসপাতাল। মহানগরের চৌহাট্টায় আড়াই শ শয্যার নতুন সিলেট জেলা হাসপাতালের নির্মাণকাজ চলছে পুরোদমে। বর্তমান সরকার আমলে সিলেটের ক্রীড়াঙ্গনেও ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পাশে নতুন আরেকটি স্টেডিয়াম নির্মিত হয়েছে। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২ নামে পরিচিত এ স্টেডিয়ামটি প্রায় ছয় মাস আগে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হয়েছে। আন্তর্জাতিক ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতির জন্য আইসিসির কাছে অনুমোদন চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিসিবির পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। প্রায় ৩ একর জমির ওপর নির্মিত এ স্টেডিয়ামটি একটি পূর্ণাঙ্গ ক্রীড়া কমপ্লেক্স হিসেবে তৈরি করা হয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

এসএসসি শুরু ১০ নভেম্বর ও এইচএসসি ১৫ ডিসেম্বর

খালেদার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়লো

শিক্ষার্থীরা মানলেও অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

গায়েহলুদে ছবি তোলা নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ১০

না.গঞ্জে ‘কনস্টেবল নিয়োগে’ জালিয়াতি অমার্জনীয়: টিআইবি

অনিবন্ধিত ৫৯ আইপিটিভি বন্ধ

জাতিসংঘে বিশ্বনেতারা, থাকছেন টিকা না নেওয়া ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টও

সক্ষমতা বাড়ছে তিন স্থল শুল্ক স্টেশনের

জাতিসংঘ আগামী নির্বাচনে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায়

লোভ কমিয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ ই-কমার্স গ্রাহকদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চকলেট ভেবে বিষ খেয়ে শিশুর মৃত্যু

সাবিনারা ম্যাচ জিতলেই পাবেন ৩ হাজার ডলার পুরস্কার