রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রশি বেয়ে গাছ থেকে গাছে যাবে প্রাণী

news-image

লাউয়াছড়ায় কমবে মৃত্যু
দীপংকর ভট্টাচার্য লিটন, শ্রীমঙ্গল
মৌলভীবাজারের বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রাণীদের রাস্তা পারাপারের জন্য রশি দিয়ে কৃত্রিম সেতু তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। বনের ভিতর রাস্তা পারাপারের সময় প্রাণীরা যাতে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা না যায়, তাই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানায় বন বিভাগ। প্রাণীরা এ বিকল্প পথ রশির সেতু বেয়ে এক গাছ থেকে আরেক গাছে যাবে। এতে করে সড়কে বন্যপ্রাণী মারা যাওয়ার হার কমবে বলে মনে করেন প্রাণী বিশারদরা। বন বিভাগের অর্থায়নে গত ২ থেকে ৪ সেপ্টেম্বর এ সেতু তৈরি করে দেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. হাবিবুন নাহার। তার সঙ্গে ছিলেন ইউনাইটেড আরব আমিরাত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সাবির বিন মোজাফফর, গবেষক মো. সাবিত হাসান, বন্যপ্রাণী গবেষক হাসান আল-রাজি, তানভীর আহমেদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী সজীব বিশ্বাস ও তানিয়া আক্তার।

সরেজমিন দেখা যায়, জাতীয় উদ্যানের মাগুরছড়া এলাকায় সড়কের ওপরে একটি জায়গায় এপার-ওপার চারটি গাছে দুটি রাশি বেঁধে দেওয়া হয়েছে। ঠিক একইভাবে বনের ভিতরে রেললাইনের ওপর চারটি জায়গায় এপার-ওপার গাছের সঙ্গে রশি বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি জায়গায় ডাবল রশি ও একটি জায়গায় সিঙ্গেল রশি দেওয়া হয়েছে। আর প্রতিটি গাছে বাঁধা রশির গোড়ায় একটি করে ক্যামেরা বসানো হয়েছে, প্রাণীরা এ রশি দিয়ে পারাপার হয় কিনা তা পর্যবেক্ষণের জন্য। জানা যায়, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলায় বিস্তৃত মৌলভীবাজার রেঞ্জের ২ হাজার ৭৪০ হেক্টর আয়তনের পশ্চিম ভানুগাছ সংরক্ষিত বনের ১২৫০ হেক্টর এলাকাকে ১৯৯৬ সালে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করা হয়। আয়তনে ছোট হলেও এ বন দুর্লভ উদ্ভিদ এবং বন্যপ্রাণীর এক জীবন্ত সংগ্রহশালা। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে বনের প্রাণীরা মারা যাচ্ছে সড়কে গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে ও রেলে কাটা পড়ে। গত নভেম্বর থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত পাঁচটি বন্যপ্রাণী সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে বলে জানায় বন বিভাগ। প্রাণীগুলো হলো বানর, চশমাপরা বানর ও হনুমান। এর আগে বন বিভাগের দেওয়া ২০১৭ সালের তথ্য মতে, ওই বছরে ছয় মাসে রেল ও সড়কপথে মারা গেছে ১৩টি লোপার্ড, ছয়টি গন্ধগোকুল, পাঁচটি বানর, দুটি চশমাপড়া হনুমান, চারটি মায়া হরিণ, এটি লিজার্ড, একটি সঙ্খিনী, একটি অজগর, চারটি দাঁড়াশ, একটি সবুজ ডোরা, একটি শিয়াল, একটি শজারু, পাঁচটি লজ্জাবতী বানর, দুটি চশমাপরা হনুমান (একটি ইলেকট্রিক শকে), একটি বন্য শূকর ও দুটি ভাইপার। আর ২০১৬ সালে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী আরাফাত লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে গবেষণা করে দুই মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় বিভিন্ন প্রজাতীর ৯৯টি প্রাণী মারা গেছে বলে বন বিভাগকে জানান। এ ছাড়া ২০১১ সালে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অজগর সাপের ওপর গবেষণা করতে এসে গবেষকরা এক বছরে জাতীয় উদ্যানে ৩৫ প্রজাতীর ৭০০ মরা সাপ দেখতে পান। তারা জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় বানর, হরিণ, সজারুসহ বনের অনান্য প্রাণী মারা যাচ্ছে। গবেষক হাসান আল-রাজি জানান, লাউয়াছড়া বন হচ্ছে দেশের উপক্রান্তীয় মিশ্র-চিরহরিৎ একটি বনভূমি। এ বনে রয়েছে বিশ্বব্যাপী হুমকির মুখে থাকা কয়েক প্রজাতির বন্যপ্রাণী। বিশ্বব্যাপী বিপন্ন উল্লুকের শেষ আশ্রয় স্থল এ লাউয়াছড়া বন। কিন্তু এ বনের ভিতর দিয়েই গেছে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কপথ এবং সিলেট-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ। বনের প্রাণীরা রাস্তা পারাপারের সময় প্রায় প্রতিদিনই এসব সড়কে প্রাণ হারাচ্ছে। তাই বনের প্রাণীরা বিশেষ করে উল্লুক, হনুমান ও বানর জাতীয় প্রাণীরা যাতে সড়ক বা রেললাইনের ওপর দিয়ে পারাপার না হয়ে ওপর দিয়ে এক গাছ থেকে আরেক গাছে যেতে পারে তার জন্যই রশি বেঁধে দেওয়া হয়েছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. হাবিবুন নাহার বলেন, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের যে জায়গাগুলো দিয়ে প্রাণীরা সড়ক বা রেললাইন পারাপার হয় সেই জায়গাগুলোতে আমরা রশি দিয়ে সেতু তৈরি করে দিয়েছি। এতে করে সড়কে গাড়িচাপা পড়ে বা রেলে কাটা পড়ে বন্যপ্রাণীর মৃত্যুর ঘটনা কমবে বলে আমি মনে করি। তিনি আরও বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই এভাবে করে দেওয়া হয়েছে। এতে তারা সফল হয়েছে। আমরাও লাউয়াছড়া বনে পরীক্ষামূলকভাবে এমনটি করেছি। আশা করি ভালো ফল পাব।’ বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষক বিভাগ (সিলেট) বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, বিশেষ করে লাউয়াছড়া বনের উল্লুকের জন্য এ রশির সেত তৈরি করা হয়েছে। এখন আর রাস্তা দিয়ে নয়, এ রশি দিয়ে তারা এক গাছ থেকে আরেক গাছে যেতে পারবে। এতে করে তারা আর সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হবে না।’

 

এ জাতীয় আরও খবর

এসএসসি শুরু ১০ নভেম্বর ও এইচএসসি ১৫ ডিসেম্বর

খালেদার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়লো

শিক্ষার্থীরা মানলেও অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

গায়েহলুদে ছবি তোলা নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ১০

না.গঞ্জে ‘কনস্টেবল নিয়োগে’ জালিয়াতি অমার্জনীয়: টিআইবি

অনিবন্ধিত ৫৯ আইপিটিভি বন্ধ

জাতিসংঘে বিশ্বনেতারা, থাকছেন টিকা না নেওয়া ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টও

সক্ষমতা বাড়ছে তিন স্থল শুল্ক স্টেশনের

জাতিসংঘ আগামী নির্বাচনে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায়

লোভ কমিয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ ই-কমার্স গ্রাহকদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চকলেট ভেবে বিষ খেয়ে শিশুর মৃত্যু

সাবিনারা ম্যাচ জিতলেই পাবেন ৩ হাজার ডলার পুরস্কার