বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভারতে পালান পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানাকে ১৪ দিনের জেল-হেফাজত

news-image

দীপক দেবনাথ, কলকাতা : ভারতে আটক বনানী থানার পরিদর্শক সোহেল রানাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ মহকুমা আদালত। তিন দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার ফের তাকে আদালতে তোলা হলে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক বিনোদ কুমার মাহাতো।

এদিন আদালতে সোহেল রানার আইনজীবী তপন রায় প্রধান তার মক্কেলের জামিনের আবেদন জানান। কিন্তু বিচারক আগামী ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। তবে জেল হেফাজতেও চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকবেন সোহেল।

এর আগে, গত রবিবার তাকে আদালতে তোলা হলে ৩ দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক। সেই রিমান্ড শেষেই এদিন ফের আদালতে তোলা হয় সোহেলকে।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা আন্তর্জাতিক সীমান্ত সংলগ্ন ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে বাংলাদেশ পুলিশের এই কর্মকর্তাকে আটক করে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। এরপর স্থানীয় মেখলিগঞ্জ পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় রানাকে।

ভারতে বেআইনি অনুপ্রবেশের অভিযোগে বাংলাদেশের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিনের আপন ভাই ওই প্রতিষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষক শেখ সোহেল রানার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোহেল রানা ছাড়াও আরো একাধিক মানুষের বিরুদ্ধে কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া জেলার গিমাডাঙা গ্রামের বাসিন্দা ৪৬ বছর বয়সী সোহেল রানাকে আটকের সময় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একাধিক ব্যাংক ডেবিট কার্ড, মার্কিন ডলার ও ইউরো, বাংলাদেশি মোবাইল সিম, মোবাইল ফোন এবং বেশ কিছু ওষুধ।

বিএসএফ’এর কাছে জেরায় ওই বাংলাদেশি পুলিশ কর্মকর্তা জানায় ভারত হয়ে নেপালের কাঠমান্ডু পাড়ি দেওয়ার উদ্দেশ্য ছিল তার। অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশের জন্য দালালকে ১০ হাজার বাংলাদেশি টাকাও দেয় বলে সোহেল প্রাথমিক তদন্তে জানায় বলে দাবি করে বিএসএফ।