সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঈদগাঁও-ঈদগড় সড়কে ধস, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দেড় লাখ মানুষ

news-image

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলার সঙ্গে পাহাড়ি জনপদ রামুর ঈদগড় ও নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ইউনিয়নের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ঈদগাঁও ফুলেশ্বরী নদীর প্রবল পাহাড়ি ঢলের তোড়ে বুধবার (২৮ জুলাই) সকাল ১০ টায় ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী সড়কের ঈদগড় ইউনিয়নের পানের ছড়া পয়েন্টে প্রায় ১০০ ফুট পাকা সড়ক ফাটলে ধসে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে সড়কের উভয় পাশে পণ্যবাহী অনেক যানবাহন আটকা পড়েছে। ঈদগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভুট্টো এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রামু উপজেলার পাহাড় বেষ্টিত ইউনিয়ন ঈদগড় ও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির পাহাড় ঘেরা ইউনিয়ন বাইশারীর কয়েক লাখ মানুষকে নিজ নিজ উপজেলা বা জেলা সদরে যেতে গেলে একমাত্র সড়ক যোগাযোগ ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী সড়ক। কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সঙ্গে সড়কটির সংযোগ সদ্যঘোষিত ঈদগাঁও উপজেলার ঈদগাঁও বাস স্টেশনে।

ফিরোজ আহমদ ভুট্টো বলেন, দীর্ঘদিন কাঁচা থাকার পর সড়কটি বছর দশেক আগে পাকা হয়। এতে পাহাড়ি জনপদের লোকজনের যাতায়াত সহজ হওয়ার পাশাপাশি অনায়াসে বাজারজাত হয়েছে এই উৎপাদিত রাবার, তরিতরকারিসহ নানা কৃষি ও পাহাড়ি পণ্য। কিন্তু গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সড়কের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ঈদগাঁও ফুলেশ্বরী নদীতে নামা খরস্রোতা ঢলের তোড়ে সড়কটি পানেরছরা পয়েন্টের প্রায় ১০০ ফুট ধসে গিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এতে উভয় পাশে আটকা পড়েছে যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী অসংখ্য যানবাহন।

সবজি বিক্রেতা আবদুল কাইয়ূম জুয়েল জানান, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ঈদগড় বাইশারীর পাহাড়ি এলাকায় উৎপাদিত সবজি ঈদগাঁও বাজারে সরবরাহ করা যাচ্ছে না। ভোরে বর্ষাকালীন সবজি নিতে ঈদগড় এসে মালভর্তি গাড়ি ধসে পড়া সড়ক এলাকায় আটকে আছে।

কলার আড়তদার হামিদ সিকদার বলেন, ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় বিকল্প পথে বাইশারী-গর্জনিয়া-নাইক্ষ্যংছড়ি-রামুর পাহাড় বেয়ে কলা পরিবহন করতে হবে। এর ফলে কয়েকগুণ বেশি পরিবহন খরচ পড়বে।

ঈদগড়ের সমাজকর্মী নুরুল আবছার বলেন, গত কয়েকবছর ধরে খরস্রোতা ঈদগাঁও নদীর মূল স্রোত সড়কের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হলেও ভাঙন প্রতিরোধ অথবা নদী শাসনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলে এত সুন্দর সড়কটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল। এতে পাহাড়ি দুই ইউনিয়নের কয়েক লাখ মানুষ যোগাযোগ নিয়ে দুর্ভোগে পড়েছে।

বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলম বলেন, বাইশারীকে এখন রাবার জোন ও মিনি শিল্প এলাকা বলা চলে। নানা কাজের সুবাদে এখানে লোকজনের বাস বাড়ছে। চিকিৎসাসহ নানা প্রয়োজনে দেশের যেকোনো প্রান্তে যেতে বাইশারী-ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়কই একমাত্র ভরসা। সড়কটি মাঝখানে ধসে যাওয়ায় সবাইকে বেকায়দায় ফেলেছে। এখন জরুরি রোগী নিয়ে যাওয়ারও পথ থাকল না। দ্রুত বিকল্প পথ না হলে ভোগান্তির অন্ত থাকবে না।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা বলেন, এ সড়কটা পার্বত্য চট্টগ্রাম সড়ক বিভাগের আওতাধীন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাচ্ছি। সবশেষ, দেখে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

 

এ জাতীয় আরও খবর

২৬ ম্যাচ পর অস্ট্রেলিয়াকে হারের স্বাদ দিল ভারতের মেয়েরা

আর্সেনালের কাছে হারল টটেনহাম

‘মেসির জার্সি’তে ফাতির ফেরায় জিতল বার্সা

অনন্যা হাঁটবেন কোন পথে?

কিছু অসৎ প্রতিষ্ঠানের কারণে ই-কমার্স বন্ধের সুযোগ নেই : বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রীতি ম্যাচে হংকংয়ের বিপক্ষে সাবিনা-তহুরার গোল উৎসব

কলকাতাকে হারাল চেন্নাই

শেখ হাসিনার সরকার দেশের উন্নয়নে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

দ্বিতীয় বিয়েতে আগ্রহ, ফুটন্ত তেলে স্বামীর নিম্নাঙ্গ ঝলসালেন স্ত্রী!

কোয়েল মল্লিক ও শ্রাবন্তীর সঙ্গে ডেটে যেতে চান হিরো আলম (ভিডিও)

সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট

৬৫ ঘণ্টার সফরে মোদীর ২০ বৈঠক